রবিবার, ১৭ই আগস্ট, ২০১৯ ইং

লোকাল বাসে নারী ভোগান্তি, সমাধানে করণীয়

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুলাই ১৯, ২০১৯
news-image

জুবায়ের আহমেদঃ

বাংলাদেশে বাড়ছে পেশাজীবি নারীর সংখ্যা, বাড়ছে স্কুল-কলেজগামী ছাত্রীর সংখ্যা। সেই সাথে দৈনন্দিন বিভিন্ন কাজের জন্য ঘরের বাহিরে বের হওয়া নারীর সংখ্যাও কম নয়। ধনাঢ্য পরিবারের সদস্যরা প্রাইভেট গাড়ী কিংবা সিএনজিতে যাতায়াত করলেও অধিকাংশ নারীর যাতায়াত হয় লোকাল বাসে। বাংলাদেশে প্রত্যেক রোডেই চলাচলকৃত লোকাল বাসগুলোতে মহিলাদের জন্য ড্রাইভারের পাশে স্বল্পসংখ্যক সিট বিদ্যমান, যা যাতায়াতকারী মহিলাদের তুলনায় পর্যাপ্ত হয়। নির্ধারিত মহিলা সিট ছাড়া পুরো গাড়ীতে অসংখ্য সিট থাকলেও সেখানে একা যাতায়াতকারী মহিলা বসতে অসংকোচবোধ করেন, এর কারন একটাই পাশের পুরুষযাত্রী কর্তৃক বিভিন্ন উপায়ে ভোগান্তি, সকলেই এক না হলেও গাড়ীতে নারীদের বিভিন্ন ভাবে উত্যক্তকারীদের সংখ্যাটা অনেক।

মহিলাদের জন্য নির্ধারিত সিটের সংখ্যা গাড়ীবেধে ৫ থেকে ১০সিটের মধ্যেই। সকালে অফিস-স্কুল-কলেজ শুরুর সময়ে কিংবা বিকালে স্কুল-কলেজ ছুটি ও সন্ধ্যা থেকে কর্মস্থান থেকে ফেরার সময়ে প্রত্যেকটি বাসেই সিটের তুলনায় অধিক মহিলা যাতায়াত করেন। সিট না থাকলেও অনেক মহিলা বাসে উঠেন শুধুমাত্র দ্রুত গন্তব্যে যাওয়ার জন্য। দাঁড়িয়ে থেকে যাতায়াতের সময় অনেক পুরুষই নারীদের প্রতি ন্যূনতম সম্মান প্রদর্শন পূর্বক নিজের সিট ছেড়ে দিলেও অনেকেই তা করেননা, ছেড়ে দেওয়া সিটটির পাশে আরেকটি সিটে পুরুষ থাকায় সেখানেও স্বাচ্ছন্দে বসতে পারেনা বহু মহিলা। আর দাঁড়িয়ে যাতায়াতকারী মহিলারা পাশের পুরুষ দ্বারা হয়রানির শিকার হওয়াটা দিন দিন বাড়ছেই।

সব পুরুষই খারাপ নয়, ভালোর সংখ্যাটাও অনেক, তবে বাসগুলোতে সিটের দ্বিগুণ যাত্রী নেওয়ার কারনে যে পরিস্থিতি সৃষ্টি হয় তাতে করে অনিচ্ছাকৃত ভাবেও ভোগান্তিকর পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়, যা দিন দিন বাড়ছেই। সেই সাথে অনেক সময় তরুন, মধ্যবয়সী কিংবা যেকোন বয়সের ড্রাইভার দ্বারা পাশে বসা মহিলাদের ভোগান্তিকর ঘটনাও কম নয়।

ইচ্ছাকৃত কিংবা অনিচ্ছাকৃত লোকাল বাসে নারী ভোগান্তির সংখ্যা দিন দিন বাড়ছেই। এর থেকে পরিত্রানের উপায় হিসেবে নারীর প্রতি সম্মান ও শ্রদ্ধা প্রকাশ পুরুষদের নিজস্ব মনমানসিকতার ব্যাপার হলেও লোকাল বাসে নারী ভোগান্তি সন্তোষজনক ভাবে কমানোর জন্য শুধুমাত্র ড্রাইভারের পাশে নারীর জন্য সিট বরাদ্ধ না রেখে পুরো বাসের দুই পাশের সিটের মধ্যে একপাশ নারীর জন্য আরেক পাশ পুরুষ, এভাবে নির্ধারণ করে দেওয়া হলে নারীরা তাদের জন্য নির্ধারিত সিটে কোন প্রতিবন্ধকতা ছাড়াই বসতে পারবে। অনেক সময়েই বাসে নারীর সংখ্যা কম হলে পুরুষরা নারীদের জন্য নির্ধারিত সিটসমূহে শেষের দিক থেকে বসতে পারবে, যাতে কোন সমস্যাই থাকার কথা নয়। আর নারীর সংখ্যা অধিক হলে এবং মহিলাদের জন্য নির্ধারিত সিটে পুরুষ বসলে তখন পুরুষ তার সিট ছেড়ে দেবে মহিলাকে।

এখনও অনেক পুরুষ মহিলাদের সিট ছেড়ে দেয়। তবে সেসব পুরুষের সংখ্যা খুবই কম। মহিলাদের জন্য নির্ধারিত সিটে পুরুষ বসে না। কেউ খালি পেয়ে বসলেও মহিলা বাসে উঠলে সে পুরুষ সিট ছেড়ে দেয়। ঠিক একই সূত্রে যদি মহিলাদের সিট সংখ্যা আরো বাড়ানো হয় এবং মহিলা সিট হিসেবে নির্ধারণ করে দেওয়া হয় তাহলে সে সিটগুলোতে কোন পুরুষ বসলেও মহিলা বাসে উঠলেই সিট ছেড়ে দেবে।

যেখানে মানুষ বেশি সেখানে ভোগান্তি থাকবেই, লোকাল বাসও তার ব্যতিক্রম নয়। তবে দিন দিন মহিলা যাত্রীর সংখ্যা বাড়ছে বিধায় বাসে মহিলা ভোগান্তির বিষয়ে কার্যকরী সিদ্ধান্ত নেওয়া জরুরী। এর জন্য বাস মালিক সমিতি এবং সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় বিষয়টিকে গুরুত্ব দিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করলে সন্তোষজনক ভাবে কমে যাবে লোকাল বাসে নারী ভোগান্তি। সংশ্লিষ্ট দায়িত্ববান ব্যক্তিদের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।

শিক্ষার্থী, ডিপ্লোমা ইন জার্নালিজম, বাংলাদেশ ইন্সটিটিউট অব জার্নালিজম অ্যান্ড ইলেকট্রনিক মিডিয়া (বিজেম)

আর পড়তে পারেন