রবিবার, ১৭ই আগস্ট, ২০১৯ ইং

এরশাদের যথাযথ মূল্যায়ন হওয়া উচিত

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুলাই ১৬, ২০১৯
news-image

 

মেহেদী হাসান :

হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ বংলাদেশের জনমনে এক অতি পরিচিত নাম। জাতীয় রাজনীতি ও রাষ্ট্রক্ষমতার একজন প্রভাবশালী নিয়ামক। তার বর্ণাঢ্য রাজনৈতিক ও পারিবারিক জীবনের জন্য সবসময় আলোচনায় থেকেছেন ১৯৮২-পরবর্তী সময়ে। নব্বই-পরবর্তী সময়ে জন্মগ্রহণকারী বাংলাদেশিদের কাছে তার পরিচয় একজন স্বৈরশাসক হিসেবে।

কারণ তিনি জোর করে রাষ্ট্রক্ষমতায় এসেছিলেন। অনেকটা এই তকমা দিয়েই দেশের কয়েকটি প্রজন্ম সদ্য প্রয়াত রাষ্ট্রপতি এরশাদকে জানেন। উপমহাদেশীয় রাজনীতির ধারা হচ্ছে নেতৃত্বে থাকা মানুষদের মন্দ কাজগুলোকে নিয়ে রাজনীতি করা, ভালো কাজগুলোর জন্য কৃতজ্ঞতা স্বীকার না করা এবং সর্বোপরি তাদের ভুলে যাওয়া।

এরশাদ তার কৃতকর্মের জন্য সমালোচিত এবং দীর্ঘ কারাজীবন ভোগ করেছেন; কিন্তু কখনও সম্মানিত হতে পারেননি। মানুষ স্বভাবতই আত্মবিস্মৃত, ভুলে গিয়ে আনন্দ লাভ করে, আমরাও ভুলে যাব এরশাদকে।

১৪ জুলাই সাবেক রাষ্ট্রপতি বার্ধক্যজনিত কারণে চলে গেলেন যাবতীয় সমালোচনার বাইরে। জাতি এখন তাকে কীভাবে মনে রাখবে? এ প্রশ্নের উত্তর আগামী প্রজন্মের জন্য অতীব গুরুত্ব রাখে। বাংলাদেশের ইতিহাসের সবচেয়ে কলঙ্কজনক ঘটনা জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে হারানো।

দেশকে শত্রুমুক্ত করে স্বাধীনতার স্বাদ এনে দিলেও দেশকে প্রতিষ্ঠিত করে যাওয়ার সময় দেয়া হয়নি বঙ্গবন্ধুকে। তাই রওশন এরশাদ বলেছিলেন, ‘বঙ্গবন্ধু একটি স্বাধীন দেশ দিয়েছিলেন। কিন্তু দেশটি গড়ার জন্য পর্যাপ্ত সময় তিনি পাননি। দেশ গড়ার জন্য হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের অসংখ্য কীর্তি অক্ষয় হয়ে আছে’।

’৭৫-পরবর্তী দেশে যে রাজনৈতিক সংকট ও অস্থির অবস্থার জন্ম নেয় সেটাকে দুটি অংশে ভাগ করা যায়। ’৭৫-৮২ এবং ’৮২-৯১। প্রথম অংশে দেশের রাজনৈতিক ইতিহাসে সবচেয়ে বেশি ভাঙাগড়া হয়েছে যার ফলে দেশ হয়ে পড়েছিল রাজনৈতিকভাবে অস্থিতিশীল। আর দ্বিতীয় ভাগে রাজনীতিহীন দেশে স্থিতিশীলতা ফিরে আসে।

১৯৮২ সালের ২৪ মার্চ সেনাবাহিনীর তৎকালীন চিফ অব স্টাফ লেফটেন্যান্ট জেনারেল হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ সামরিক শাসন জারির মধ্য দিয়ে রাষ্ট্রপতি আবদুস সাত্তারকে হটিয়ে দেশের ক্ষমতায় অধিষ্ঠিত হন।

এবং ১৯৯০ সালের ৬ ডিসেম্বর পর্যন্ত রাষ্ট্রক্ষমতায় ছিলেন, তার ক্ষমতা আহরণের উপায় সঠিক না হলেও স্বাধীনতা-পরবর্তী সময়ে প্রথম দীর্ঘ মেয়াদে দেশ চালানোর সুযোগ পান এরশাদ।

এই দীর্ঘ সময় রাষ্ট্র ক্ষমতায় থাকার কারণে দেশের সার্বিক উন্নয়নে অনেক উল্লেখযোগ্য সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেন এবং কোনো ধরনের দলীয় মতভেদ বা আমলাতান্ত্রিক জটিলতা না থাকার কারণে গৃহীত সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নে সফল হন।

এরশাদ বলেন, ‘আমি যেহেতু একজন সার্বক্ষণিক রাজনীতিবিদ, সেহেতু আমার চিন্তাচেতনা-ভাবনায় রাজনৈতিক প্রসঙ্গ প্রাধান্য পেয়ে থাকে। এ বাক্যটিতে তিনি অনেক বেশি প্রজ্ঞাপূর্ণ রাজনীতিবিদের পরিচয় দিয়েছেন। অরাজনৈতিক বিষয়বস্তুকে কখনই তিনি তেমনভাবে প্রাধান্য দেননি।

জাতীয় পার্টির প্রচার ও প্রকাশনা সেল থেকে প্রকাশিত ‘দেশের জন্য যা করেছি এবং আগামীতে যা করতে চাই’ গ্রন্থে এরশাদ প্রথম ধাপে ২০৭টি উন্নয়ন কর্মকাণ্ডের চিত্র তুলে ধরেছেন। আরেকটি ভাগে আরও ১৭৩টি উন্নয়ন কাজের বিবরণ দিয়েছেন।

ওই গ্রন্থ অনুযায়ী এরশাদের সময়ের উন্নয়ন কর্মকাণ্ডের মধ্যে রয়েছে- উপজেলা ব্যবস্থা প্রবর্তন, জেলা-উপজেলাভিত্তিক তিন স্তরবিশিষ্ট বিকেন্দ্রীকরণমূলক প্রশাসন চালু, ৪৬০ থানাকে উপজেলায় উন্নীত করা, শুক্রবার সাপ্তাহিক ছুটি ঘোষণা, গ্রাম সরকার পদ্ধতি বিলোপ, হাইকোর্ট বেঞ্চ সম্প্রসারণ, প্রতি জেলায় মুন্সেফ কোর্ট, নারী নির্যাতনের জন্য কঠোর শাস্তি, জাতীয় প্রেস কমিশন গঠন, আর্থিক নিয়ন্ত্রিত ব্যবস্থার বিকেন্দ্রীকরণ, রফতানি বাণিজ্য বৃদ্ধি, মুদ্রাস্ফীতি হার হ্রাস, শিল্প-বাণিজ্য, স্বাস্থ্য খাতের উন্নয়ন, কৃষক ও কৃষি উপকরণ সহজলভ্য করা, শিক্ষাবিষয়ক পদক্ষেপ, অবকাঠামোগত উন্নয়ন, নৌ যোগাযোগ, বিমান ও টেলিযোগাযোগ, পানি উন্নয়ন, বৈদ্যুতিক ও খনিজ শক্তি, নির্মাণ কাজ, জাতীয় ঈদগাহ নির্মাণ, ওয়ারী খাল সম্প্রসারণ, ঢাকার বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ ও ট্রেনের নামকরণ।

তার সময় দেশ দীর্ঘমেয়াদি উন্নয়নের দিকে প্রবেশ করে। তার সময়ের প্রভূত উন্নয়ন কর্মকাণ্ড পরবর্তী সময়ে দেশকে এগিয়ে নিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে। ব্যক্তিগত জীবনে সেনাসদস্য ও সমাজের উচ্চস্তরের মানুষ হলেও গ্রামবাংলার মানুষের প্রতি এরশাদের ছিল গভীর টান।

তার শাসনামলে গ্রামকেন্দ্রিক উন্নয়নের দিকে বিশেষ নজর দেয়া হয়। এরশাদ বলেছিলেন, ‘৬৮ হাজার গ্রাম বাঁচলে বাংলাদেশ বাঁচবে’। গ্রামের প্রশাসনিক দক্ষতা ও উন্নয়নে গুচ্ছগ্রামের প্রবর্তন করেছিলেন। তার অবদানস্বরূপ এরশাদকে ‘পল্লীবন্ধু’ উপাধিতে ভূষিত করা হয়।

একজন দক্ষ প্রশাসক হিসেবে দেশের প্রশাসনযন্ত্রে আনেন আমূল পরিবর্তন। তিনি উপজেলা পদ্ধতি প্রবর্তন করেন এবং দেশকে প্রশাসনিক সুবিধা দিতে ৬৪ জেলায় বিভক্ত করেন। রাজধানীকেন্দ্রিক নির্ভরশীলতা কমাতে তিনি প্রাদেশিক শাসনব্যবস্থার একনিষ্ঠ প্রচারক ও সমর্থক ছিলেন।

তিনি সবসময় দেশের সাতটি বিভাগ নিয়ে প্রাদেশিক প্রশাসন ব্যবস্থার পক্ষে ছিলেন। মহান মুক্তিযুদ্ধের প্রতি তিনি বরাবরই ছিলেন সংবেদনশীল, তার সময়েই সাভারে জাতীয় স্মৃতিসৌধ নির্মাণ, কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার সম্প্রসারণ এবং জাতীয় তিন নেতার মাজার নির্মিত হয়।

আমেরিকা, ইউরোপ ও চীনসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশের সঙ্গে সফল কূটনৈতিক সম্পর্ক স্থাপনের মাধ্যমে দেশের উন্নয়ন অগ্রগতিতে ব্যাপক ভূমিকা রাখেন। মধ্যপ্রাচ্য ও মুসলিম দেশগুলোয় জনশক্তি রফতানিতে তিনি অনেক ভূমিকা রাখেন। রাষ্ট্রক্ষমতায় থাকাকালীন নিজেকে তৃণমূলের সঙ্গে সংযুক্ত রেখেছিলেন।

প্রাকৃতিক দুর্যোগের সময় তার ব্যক্তিগত সম্পৃক্ততা ও ক্ষতিগ্রস্ত এলাকায় কর্ম তৎপরতার জন্য আজও এরশাদের জুড়ি মেলা ভার। দেশের প্রচলিত বিশ্ববিদ্যালয় ধারণাকে পরিবর্তন করতে চেয়েছিলেন এবং দেশে বিশেষায়িত ম্যানেজমেন্ট শিক্ষার কথা বলেছিলেন, যার ফল হিসেবে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্ম হয়।

১৯৮২ সালে এরশাদ সরকার দেশে একটি ওষুধনীতি প্রণয়ন করে। এর ফলে ওষুধের দাম যেমন কমে আসে, তেমনি স্থানীয় কোম্পানিগুলো ওষুধ উৎপাদনে সক্ষমতা অর্জন করে। একজন মুসলিম হিসেবে দেশের জনসাধারণের ধর্মীয় ভাবাবেগকে গুরুত্ব দিয়ে তিনি ইসলামকে রাষ্ট্রধর্ম করেছিলেন।

তিনি মসজিদ মাদ্রাসার বিল মওকুফ করেছিলেন। তার সময়েই টিভিতে আজান প্রচারের নিয়ম করেছিলেন। তিনিই Dacca-এর নাম উযধশধ করেন। সরকারি কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের সুযোগ-সুবিধা মাথায় রেখে সরকারি কর্মচারী-কর্মকর্তাদের পে স্কেল চালু করেছিলেন। এ রকম অসংখ্য অর্জন আছে এরশাদের ঝুলিতে।

তার সময় নেয়া পদক্ষেপের ব্যাপারে জাতীয় পার্টির প্রচার ও প্রকাশনা সেল থেকে প্রকাশিত ‘দেশের জন্য যা করেছি এবং আগামীতে যা করতে চাই’ গ্রন্থে এরশাদ বলেন, ‘এক বিপর্যস্ত বাংলাদেশের দায়িত্ব আমাকে গ্রহণ করতে হয়েছিল। তারপর অনেক ঘাত-প্রতিঘাতের মধ্য দিয়ে ৯টি বছর কেটে গেছে।

এ সময়ের মধ্যে আমি আপ্রাণ চেষ্টা করেছি একটি সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়ে তোলার। সেখানে কতটুকু সফল হয়েছি বা বিফল হয়েছি- তার মূল্যায়ন করতে হলে পরবর্তী সময়ের সঙ্গে আমার আমলের যোগবিয়োগ করার প্রয়োজন হবে। আমার মনে হয়, দেশের মানুষ সে অঙ্কটি নির্ভুলভাবে করতে পেরেছে।’

নির্বাচনভিত্তিক রাজনীতিতেও তিনি জনপ্রিয়তা অর্জন করেছিলেন। এরশাদের শাসনামল নিয়ে যতই বিতর্ক থাকুক না কেন, ক্ষমতাচ্যুত হওয়ার পরও তিনি কখনও নির্বাচনে পরাজিত হননি। এমনকি কারাগারে থেকে নির্বাচনে অংশ নিয়ে পাঁচটি আসনে জয়লাভ করেন এরশাদ।

জীবনের শেষ দিনেও তিনি চলতি জাতীয় সংসদে বিরোধী দলের নেতা ছিলেন। দীর্ঘ চার যুগের বর্ণাঢ্য রাজনৈতিক জীবনে এরশাদ সবসময় সমালোচিত ছিলেন তার ক্ষমতা গ্রহণের প্রক্রিয়া ও ব্যক্তিগত জীবনের জন্য।

তেমনভাবে কখনই এরশাদের রাজনৈতিক সফলতাকে স্বীকার করা হইনি। আজ এরশাদ অতীত হয়ে গেলেন, আর তার কর্মকাণ্ড জাতিকে ভাবাবে না। কিন্তু জাতির ইতিহাসে এরশাদ অধ্যায়কে মুছে ফেলা তো যাবে না।

আর পড়তে পারেন