বৃহস্পতিবার, ২২শে আগস্ট, ২০১৯ ইং

চান্দিনার মাধাইয়া-কৈলাইন সড়ক যেন মরন ফাঁদ; গর্ত আর খানাখন্দে যান চলাচল ব্যহত

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুলাই ১৪, ২০১৯
news-image

 

স্টাফ রিপোর্টারঃ
কুমিল্লার চান্দিনা উপজেলার মাধাইয়া-কৈলাইন সড়কটি দীর্ঘদিন যাবৎ মেরামত না করায় প্রায় ২০ কিলোমিটার পাকা সড়কই এখন মরন ফাঁদে পরিণত হয়েছে। ফলে ওই সড়কে চলাচলকারী চান্দিনা, কচুয়া ও বরুড়া উপজেলার যাত্রীরা চরম দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন।

সড়কটির বিভিন্ন স্থানে কার্পেটিং উঠে খানাখন্দে পরিণত হয়েছে। জিরুআইশ বাজার, মহিচাইল বাজার, নবাবপুর বাজার, কুদুটি মহিলা মাদ্রাসা এলাকা সহ বেশ কিছু স্থানে বড় গর্ত হয়ে প্রায় প্রতিদিনই দুর্ঘটনা ঘটছে। চলতি বর্ষা মৌসুমে টানা ভারী বর্ষণে এই সমস্যা আরও প্রকট হয়েছে। কোন কোন অংশে সড়কের দু’পাশ ভেঙে ভারী যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে গেছে।

এতে সাধারণ মানুষ, কর্মজীবী ও ব্যবসায়ীসহ বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষকে প্রতিনিয়ত চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। কিন্তু তারপরও ঝুঁকি নিয়েই ওই সকল সড়কে যানবাহন চলাচল করছে।

এদিকে সড়ক ভাঙার অজুহাতে এক শ্রেণির অসাধু সিএনজি অটোরিক্সা চালকরা অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করছে। ফলে যাত্রীদের দুর্ভোগ আরও বেড়েছে।

ভুক্তভোগী শিক্ষক-শিক্ষিকা, ব্যাংক কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, এই সড়কটি জনগুরুত্বপূর্ণ। এ সড়ক দিয়ে প্রতিদিন বিভিন্ন রুটের প্রায় কয়েক হাজার যানবাহন চলাচল করে। দীর্ঘদিন যাবত মেরামত না করায় সড়কটি এখন ঝুঁকিপূর্ণ।
মাধাইয়া-রহিমানগর সড়কের সিএনজি চালক রিপন মিয়া, জাহাঙ্গীর আলম, শাহ জাহান সহ আরও কয়েকজন চালকের সাথে জানা গেছে, রাস্তা ভাঙার কারণে গাড়ি নিয়ে চলাচল করতে কষ্ট হয়। প্রায়ই গর্তে গাড়ী আটকে যায়। গাড়ীর পার্টস ভেঙ্গে যায়। এছাড়া যাত্রীদেরও সমস্যা হয়।

ব্যবসায়ী মোহাম্মদ রাসেল আহমেদ জানান, সড়কটি ভাঙে যাওয়ায় এ অঞ্চলের কৃষকদের কৃষি পণ্য পরিবহনে চরম ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে। উৎপাদিত ফসল নিয়ে বিভিন্ন হাট-বাজারে যেতে এই সড়কটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। সড়কটি ভাঙা হওয়ায় কৃষিজাত ফসল পরিবহণের খরচও অনেক বেড়ে গিয়েছে।

যাত্রী মঞ্জুরুল আলম জানান, সড়কের বেহাল অবস্থার কারণে যাতায়াত তো নিরাপদ নয়ই, সাথে অতিরিক্ত ভাড়াও দিতে হয়। সড়কের দোহাই দিয়ে যাত্রীদের কাছ থেকে ৩০ টাকার ভাড়া ৫০ টাকা আদায় করছে চালকরা। একটু সন্ধ্যা হলে আরো বেড়ে গিয়ে ১০০ টাকা পর্যন্ত দিতে হয়।

এব্যাপারে উপজেলা সহকারী প্রকৌশলী মোল্লা আবুল কালাম আজাদ জানান, ‘চলতি বর্ষা মৌসুমে পানি আটকে সড়কটি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। পল্লী সড়ক ও কার্লবার্ট উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় আমরা একটি প্রস্তাবনা আমরা ঢাকায় পাঠিয়েছি। আশাকরি অনুমোদনও হয়ে যাবে। ২-৩ মাসের মধ্যেই সড়কটির সংস্কার কাজ করতে পারবো বলে আমরা আশাবাদী।’ তিনি আরও বলেন- ‘ঈদের আগে আমরা কিছু স্থানে ইট ফেলে গর্ত ভরাট করেছিলাম। বর্ষায় আবারও ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। স্থানীয় সংসদ সদস্য অধ্যাপক মো. আলী আশরাফ এমপি একটি ডিও লেটার দিয়েছেন। সে অনুযায়ী বরাদ্দ পেলে সড়কটির উন্নয়ন কাজও চলতি অর্থ বছরেই শেষ হবে।’

আর পড়তে পারেন