বুধবার, ১৬ই জুলাই, ২০১৯ ইং

তিতাসের কে এই প্রতারক নাসির, যাকে খুজঁছে হোমনা থানা পুলিশ

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুলাই ১০, ২০১৯
news-image

 

স্টাফ রিপোর্টার
কুমিল্লার তিতাস উপজেলার শাহপুর গ্রামের কে এই প্রতারক নাসির। যাকে খুজে বেড়াচ্ছে পাশের হোমনা থানা পুলিশ। আর যার পক্ষে বিপক্ষে একের পর এক মানব বন্ধন, মিটিং মিছিল ও হামলা মামলার ঘটনা ঘটছে এলাকায়। উপজেলার মজিদপুর ইউনয়নের শাহপুর গ্রামের উত্তর পাড়ার কৃষক রহমত আলীর ছেলে নাসির উদ্দিন । কন্ঠ নকল করে প্রবাসীর বাবা মা ও স্ত্রীদের সাথে প্রতারণাই তার আসল পেশা।

তার প্রতারনার শিকার হওয়া হোমনা উপজেলার চান্দের চর গ্রামের রেহেনা বেগম বিস্তারিত ঘটনার বর্ণনা দিয়ে কয়েকটি বিকাশ মোবাইল নাম্বারের নামে ৩জুন হোমনা থানায় একটি সাধারণ ডায়েরী করেন। বিষয়টি প্রথমে থানার এসআই আব্দুর রাজ্জাক তদন্ত করলেও পরে দায়িত্ব নেন এএসপি সার্কেল মো. ফজলুল করিম এবং প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে প্রতারক চক্রের হোতা নাসিরকে সনাক্ত করেন।

রেহেনা বেগমের ডায়েরী সূত্রে জানা যায়, তার ভাই কুয়েত প্রবাসী শফিকুল ইসলাম পরিচয় দিয়ে ইন্টারনেট নাম্বারে ফোন করে অভিকল শফিকের কন্ঠে টাকা চায়। কি কারনে টাকা লাগবে জানতে চাইলে ভিসার জন্য বলে জানান। টাকা দিতে রাজি হলে ৮টি বিকাশ নাম্বারে সাড়ে নয় লাখ টাকা দেন রেহেনা বেগম। হোমনা থানায় করা এমন অভিযোগের তদন্তে নামেন সহকারী পুলিশ সুপার(হোমনা সার্কেল) মোঃ ফজলুল করিম । তদন্তে প্রযুক্তির ব্যবহারে তিতাস উপজেলার শাহপুর গ্রামের নাসিরের নাম আসে। নাসির সরকারকে আটকের জন্য গত ১২ জুন এএসপি ফজলুল করিমের নেতৃত্বে তার গ্রামের বাড়ি শাহপুরে অভিযান চালানো হয়। তবে পুলিশের উপস্থিতি টের পালিয়ে যায় নাসির।

এরপর পুলিশকে তার বাড়ী চিনতে সহযোগিতা করার ফলে ওই গ্রামের মো. রফিকুল ইসলামসহ এলাকার বিশিষ্ট ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগ করেন নাসিরের স্ত্রী জানু আক্তার । এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে শাহপুর গ্রামে নাসিরের গ্রেপ্তার দাবী করে কয়েক দফা মিছিল, প্রতিবাদ সভা ও হামলার ঘটনা ঘটেছে।

নাসিরের বিরুদ্ধে কেউ মুখ খুললেই হামলা মামলার শিকার হতে হয় তার বাহিনীর লোকজনের হাতে। কয়েকদিন আগে শাহপুর বাজারে রশিদ মিয়া নামে এক বৃদ্ধের মাথা ফাটিয়ে দেয় তার লোকজন।

শাহপুর গ্রামের সমাজ সেবক রফিকুল ইসলাম বলেন, নাসির সরকার ও তার চাচা মালেক সরকার দেশের বিভিন্ন এলাকায় প্রতারণা করে বেড়ায়। হোমনায় বিকাশে প্রতারনা করে জনৈক মহিলার নিকট থেকে সাড়ে নয় লাখ টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ তদন্তে পুলিশ তাঁর খোজে আমাদের গ্রামে আসে। আমরা পুলিশকে সহযোগিতা করায় তার স্ত্রীকে দিয়ে কুমিল্লার আদালতে আমাদের নামে মিথ্যা মামলা করে। আর নাসিরের প্রধান সহযোগি তার চাচা মালেক। নাসিরের প্রতারণার টাকায় দাউদকান্দির গৌরীপুর বিশাল টাওয়ার(বিল্ডিং) তৈরী করেছেন। আর সরকারী অর্থায়ণে নির্মিত শাহপুর গ্রামের রাস্তায় নিজের নাম ফলক লাগিয়ে সমাজ সেবকের লেবাজ লাগান প্রতারক নাসির।

এদিকে তার প্রতারণার শিকার তিতাস উপজেলার কলাকান্দি গ্রামের ফার্নিচার ব্যবসায়ী মো. নূরে আলম। তিনি জানান, নাসির আমার ভাইয়ের কন্ঠ নকল করে আমার ছেলেকে বিদেশ নেয়ার কথা বলে তিন লাখ টাকা নেয়। প্রতারক নাসির তাঁর বাড়ী এক ছেলেকে দিয়ে আমার কাছ থেকে এ টাকা গুলো নেয়। যখন আমি বুঝতে পারলাম যে আমি প্রতারনার শিকার হয়েছি, তখন যার মাধমে টাকা দিয়েছি তার কাছে গেলে বিভিন্ন হুমকি ধমকি দিতো আমাকে। তাদের ভয়ে থানায়ও যায়নি।

তিতাস থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সৈয়দ আহসানুল ইসলাম বলেন, আমি শুনেছি শাহপুর গ্রামের নাছির নামে কোন লোকের নামে হোমনা থানায় প্রতারণার অভিযোগ হইছে। আমার এখানে আসলে আমি তদন্ত করে দেখবো। আর নাসিরের নামে মামলা আছে কিনা সেটা রেকর্ড না দেখে বলতে পারবো না।

সহকারী পুলিশ সুপার (হোমনা সার্কেল) ফজলুল করিম বলেন, হোমনা থানায় করা একটি প্রতারণার ডায়েরীর তদন্ত করতে গিয়ে প্রযুক্তির মাধ্যমে নেয়া টাকা বিকাশ নাম্বারের মালিক তিতাস উপজেলার নাসিরের নাম আসে। তার বাড়ীতে গেলে সে আমাদেও উপস্থিতি টের পেয়ে পালিয়ে যায়। তবে তার বিরুদ্ধে আরো প্রতারনার অভিযোগ আমরা পেয়েছি। ইতি মধ্যে সে দেশের বাইরে পালিয়ে গেছে বলে আমরা খবর পেয়েছি।

আর পড়তে পারেন