মঙ্গলবার, ২০শে আগস্ট, ২০১৯ ইং

মুরাদনগরে ভাড়া বাসার আড়ালে অবৈধ প্রাইভেট ক্লিনিক ব্যবসা !

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুলাই ৯, ২০১৯
news-image

 

মাহবুব আলম আরিফ, মুরাদনগর ঃ
কুমিল্লার মুরাদনগর উপজেলায় ভাড়া বাসায় চলছে অবৈধ প্রাইভেট ক্লিনিকের রমরমা ব্যবসা। জেলা সিভিল সার্জন ও প্রশাসনের কোন প্রকার অনুমোদন ছাড়াই অবৈধ ভাবে ক্লিনিক ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছেন শারমিন সুলতানা নামের এক মিডওয়াইফ।

সে নবীনগর উপজেলার কুনিকাড়া গ্রামের নান্নু চৌধুরীর মেয়ে ও বাবুল সরকারের স্ত্রী।

জানা যায়, সরকারি নিয়ম নীতির কোন প্রকার তোয়াক্কা না করে ও অভিজ্ঞ ডাক্তার ছাড়াই উপজেলার বাঙ্গরা বাজার সংলগ্ন হলি ক্রিসেন্ট কিন্ডার গার্টেন স্কুলের ২য় তলায় গত ১বছর যাবৎ ফ্যামিলি বাসার ২টি রুম ভাড়া নিয়ে গর্ভবতী মহিলাদের ডেলিভারিসহ নানা চিকিৎসা কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছেন । ভাড়া বাসায় ক্লিনিক পরিচালনাকারী শারমিন সুলতানা নিজেকে একজন অভিজ্ঞ ডাক্তার পরিচয় দেন। সাধারন মানুষকে নানাভাবে ফুসলিয়ে এবং অল্প টাকায় নরমাল ডেলিভারি ও নানা সুযোগ সুবিধার কথা বলে নিয়ে আসার জন্য রয়েছে তার একটি নিজস্ব দালাল সিন্ডিকেট। প্রতি মাসে ৫০টির বেশী নরমাল ডেলিবাড়ীসহ নানা চিকিৎসা প্রদান করেন তিনি। গর্ভপাতের মত নিষিদ্ধ কর্মকান্ডও সে এখানে করে আসছেন বলে বিভিন্ন সুত্রে জানা যায়। বর্তমানে এখানকার নিম্ন আয়ের মানুষগুলো এ প্রতারনার ফাঁদে পা দিয়ে বেশিরভাগ হয়রানীর শিকার হন।

দেশের বিভিন্ন হাসপাতালে যখন ভূল চিকিৎসায় রোগীর মৃত্যু উদ্বেগজনক হারে বাড়ছে, এসময় কোন প্রকার বাধাহীন ভাবে এমন অবৈধ ক্লিনিকের রমরমা ব্যবসা নিয়ে জনমনে শংকা বিরাজ করছে।

ক্লিনিকে বোনকে চিকিৎসায় নিয়ে আসা জেসমিন আক্তার বলেন, আমরা জানি এই হাসপাতালে বড় মহিলা ডাক্তার আছে তাই এখানে চিকিৎসা করাইতে আইছে। কিন্তু তিনি ডাক্তার না আর এইডা অবৈধ হাসপাতাল এটা আমরা জানি না।

খামার গ্রামের মোশারফ বলেন আমিও জানতাম তিনি বড় ডাক্তার তাই আমার স্ত্রীকে নিয়ে আসছি কিন্তু তিনি ডাক্তার নন এটা আমরা জানিনা।

এ বিষয়ে শারমিন সুলতানা বলেন, আমি কোন প্রতারণা করছি না কারন, যে রোগীর চিকিৎসা করতে পাড়ি তাদের চিকিৎসা করি, যাদের চিকিৎসা করতে পারিনা তাদের অন্য হাসপাতালে যেতে বলি। স্বাস্থ্য বিভাগের অনুমোদন আছে কিনা এমন প্রশ্নের কোন উত্তর দিতে পারেননি তিনি।

এ ব্যাপারে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ আলীনুর মোহাম্মদ বশীর আহাম্মদ বলেন, সিভিল সার্জনের অনুমোদন ছাড়া ও মেডিকেল নীতিমালার বাইরে এধরনের কিøনিক করার কোন সুযোগ নেই। বিষয়টি তদন্ত করে যথাযথ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ভারপ্রাপ্ত) ও এসিল্যান্ড সাইফুল ইসলাম কমল বলেন, অবৈধ ক্লিনিক বন্ধে শীগ্রই প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

আর পড়তে পারেন