শনিবার, ১৭ই আগস্ট, ২০১৯ ইং

রোহিত শর্মা ও রাহুলের জোড়া সেঞ্চুরিতে ভারতের দাপুটে জয়

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুলাই ৬, ২০১৯
news-image

 

স্পোর্টস ডেস্কঃ

রোহিত শর্মা ও লোকেল রাহুলের সেঞ্চুরিতে শ্রীলংকার বিপক্ষে ৭ উইকেটের বিশাল ব্যবধানে  জয় পেয়েছে ভারত। নিয়ম রক্ষার এ ম্যাচ জিতে আবার পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে উঠলো ভারত।

শনিবার (৬ জুলাই) লিডসে বাংলাদেশ সময় সাড়ে ৩টায় এবারের বিশ্বকাপের অন্যতম সেরা দল ভারতের মুখোমুখি হয় লঙ্কানরা। যেখানে টসে জিতে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেন দিমুথ করুনারত্নে। অ্যাঞ্জেলো ম্যাথিউসের দুর্দান্ত সেঞ্চুরিতে ২৬৪ রানের সংগ্রহ পায় শ্রীলঙ্কা। তবে

শ্রীলঙ্কার দেওয়া ২৬৫ রানের টার্গেটে ব্যাটিং করতে নেমে কুমার সাঙ্গাকারাকে ছাড়িয়ে নির্দিষ্ট এক বিশ্বকাপে সর্বোচ্চ সেঞ্চুরির রেকর্ড গড়েন রোহিত শর্মা। এখন পর্যন্ত পাঁচটি তিন অঙ্কের ম্যাজিক ফিগার দাঁড় করিয়েছেন তিনি। মজার ব্যাপার সাঙ্গাকে পেছনে ফেলতে তারই দেশ শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ম্যাচকেই উপলক্ষ বানালেন এই ভারতীয় ওপেনার।

এর আগে লঙ্কান কিংবদন্তি ও রোহিত চারটি সেঞ্চুরি নিয়ে যৌথভাবে শীর্ষে ছিলেন। যেখানে ২০১৫’র আসরে টানা চারটি সেঞ্চুরি করেছিলেন সাঙ্গাকারা। ৯২ বলে সেঞ্চুরির দেখা পান রোহিত। এ সময় তিনি ১৪টি চার ও ২টি ছক্কা হাঁকান। কাসুন রাজিথার বলে আউট হওয়ার আগে ৯৪ বলে ১০৩ করেন তিনি।

এদিন আরও ২৭ রান করলে অবশ্য স্বদেশি কিংবদন্তি শচীন টেন্ডুলকারের এক বিশ্বকাপে রেকর্ড ৬৭৩ রানের রেকর্ড ভাঙতে পারতেন। তবে যেহেতু ভারত সেমিফাইনালে জায়গা করে নিয়েছে, ফলে বলাই যায় ফর্মে থাকা রোহিত ওই রেকর্ডও ভেঙে ফেলবেন।

এর আগে সাকিব আল হাসানকে ছাড়িয়ে চলমান বিশ্বকাপে ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ রানের শিখরে উঠেছেন রোহিত শর্মা। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে রাউন্ড রবিন লিগের শেষ ম্যাচে অপরাজিত ৬৩ রান করার পথে শীর্ষে ওঠেন তিনি।

শুক্রবার (জুলাই ০৫) পাকিস্তানের বিপক্ষে ৬৪ রানের ইনিংস খেলার পর ৬০৬ রান করেছিলেন বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব। বর্তমানে তার অবস্থান দ্বিতীয়। এই আসরে সেরা পাঁচে পরের স্থানগুলোতে রয়েছেন যথাক্রমে অস্ট্রেলিয়ার ডেভিড ওয়ার্নার (৫১৬), অ্যারন ফিঞ্চ (৫০৪) ও ইংল্যান্ডের জো রুট (৫০০)।

এদিকে এদিন রোহিত ৫৬ রান করার পথে সাকিবের আরেকটি রেকর্ডে ভাগ বসান। ইতিহাসের মাত্র চতুর্থ ব্যাটসম্যান হিসেবে বিশ্বকাপে ৬০০ রান করার কীর্তি গড়েন তিনি। এর আগে সাকিব ছাড়াও ভারতের শচীন টেন্ডুলকার ও অস্ট্রেলিয়ার ম্যাথিউ হেইডেন ৬’শ রানের মাইলফলক গড়েছিলেন।

ক্যারিয়ারের দ্বিতীয় সেঞ্চুরির পাশাপাশি বিশ্বকাপের প্রথম সেঞ্চুরি করেন লোকেশ রাহুল। ১১৮ বলে তিনি শেষ পর্যন্ত ১১১ রান করেন। লাসিথ মালিঙ্গার বলে আউট হওয়ার আগে তিনি ১১টি চার ও একটি ছক্কা হাঁকান। রাহুল ও রোহিত মিলে ৩০.১ ওভারে ১৮৯ রানের ওপেনিং জুটি গড়েন। এবারের বিশ্বকাপে এটিই ওপেনিংয়ে সর্বোচ্চ রানের জুটি।

একটি রেকর্ড গড়েন অধিনায়ক বিরাট কোহলিও। ৩৪ রানে অপরাজিত থাকা এই তারকা ৫ রান করার পর শচীন টেন্ডুলকার ও সৌরভ গাঙ্গুলীর পর তৃতীয় ভারতীয় হিসেবে বিশ্বকাপে ১০০০ রান করার কীর্তি গড়েন।

শ্রীলঙ্কান বোলারদের মধ্যে মালিঙ্গা, রাজিথা ও ইসুরু উদানা একটি করে উইকেট পান।

এর আগে প্রথমে ব্যাট করা লঙ্কানরা নির্ধারিত ৫০ শেষে ৭ উইকেট হারিয়ে এই ২৬৪ রান দাঁড় করায়। এদিন শুরুটা অবশ্য ভালো হয়নি শ্রীলঙ্কার। মাত্র ৫৫ রানের মধ্যেই টপ অর্ডারের চার ব্যাটসম্যানকে হারায় তারা। দলীয় ১৭ রানে প্রথম উইকেটের পতন হয়। ব্যক্তিগত ১০ রানে জসপ্রিত বুমরাহ’র বলে উইকেটের পেছনে মহেন্দ্র সিং ধোনির হাতে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন দিমুথ করুনারতেœ। এরপর কিছুটা সামলে উঠলেও দলীয় ৪০ রানে ফেরেন কুশল পেরার। একইভাবে বুমরাহ’র বলেই আউট হয়ে ফেরেন পেরেরা। তিনি করেন ১৮ রান।

১১ ও ১২তম ওভারে পর পর ফেরেন কুশল মেন্ডিস ও অভিষেক ফার্নান্দো। তাদের ফেরান রবীন্দ্র জাদেজা ও হার্দিক পান্ডিয়া।

পঞ্চম উইকেট জুটিতেই মূলত ঘুরে দাঁড়ায় শ্রীলঙ্কা। যেখানে ম্যাথিউস ও লাহিরু থিরিমান্নে ১২৪ রান তুলে দলকে ভালো সংগ্রহ পাইয়ে দেন। ওয়ানডে ক্যারিয়ারে তৃতীয় সেঞ্চুরি করা ম্যাথিউস ১২৮ বলে ১০টি চার ও দুটি ছক্কায় ১১৩ করে বুমরাহ’র তৃতীয় শিকারে পরিণত হন। আর কুলদীপ যাদবে বলে আউট হওয়ার আগে থিরিমান্নে ৬৮ বলে ৫৩ রান করেন।

শেষ দিকে ধনাঞ্জয়া ডি সিলভা ২৯ ও ইসুরু উদানা এক রানে অপরাজিত থেকে মাঠে ছাড়েন।

 

আর পড়তে পারেন