মঙ্গলবার, ১৫ই জুলাই, ২০১৯ ইং

বঙ্গবন্ধু মানেই বাংলাদেশ : অগ্রণী ব্যাংকের এমডি

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুলাই ৬, ২০১৯
news-image

 

আজকের কুমিল্লা এক্সক্লুসিভঃ

বঙ্গবন্ধু মানেই বাংলাদেশ । এই বাংলাদেশ সৃষ্টি হয়েছে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কারণে। অগ্রণী ব্যাংকের এমডি শামস্-উল ইসলাম একান্ত সাক্ষাৎকারে এ কিথা বলেন। এছাড়া তিনি বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে আলোচনা করেছেন। এ সাক্ষাৎকারের চুম্বক অংশ পাঠকদের জন্য তুলে ধরা হল। সাক্ষাৎকারটি নিয়েছেন সাংবাদিক কালাম আঝাদ।

প্রশ্ন : বঙ্গবন্ধু কর্নার করার বিষয়টি কীভাবে আপনার মাথায় এলো?
শামস্-উল ইসলাম : ২০১০ সালে বঙ্গবন্ধু কর্নারের বিষয়টি যখন মাথায় আসে। তখন আমি জেনারেল ম্যানেজার পদে ছিলাম। অগ্রণী ব্যাংক কিন্তু পাকিস্তান আমলে হাবিব ব্যাংক ছিল। তো পাকিস্তান আমলে কিন্তু একজন বাংলাদেশির জেনারেল ম্যানেজার হওয়া ছিল প্রায় অসম্ভব। সে সময় আমার চিন্তা হলো- আমি জেনারেল ম্যানেজার হলাম কার কারণে? এই বাংলাদেশ হয়েছে বলে। আর এই বাংলাদেশ হয়েছে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কারণে। আউট অব মাই হাম্বল রেসপেক্ট আমি যদি আমার রেসপেক্টটা শো করি উনাকে, উনার জন্য; যেটা পরবর্তীতে আরও অনেকেই উপকৃত হবে। কিংবা তারাও বঙ্গবন্ধু সম্পর্কে একটু জানবে। এই দায়িত্ব থেকেই কিন্তু আমি আসলে বঙ্গবন্ধু কর্নার করেছি। আমরা যখন যুদ্ধ করি, যখন স্বাধীনতা হয়; সে সময় কিন্তু আমরা অনেক ছোট ছিলাম। পরবর্তীতে কিছুটা হলেও আমাদের জাতির জনকের প্রতি অপার দায়বদ্ধতা থেকেই কিন্তু আসলে এটি করা।

প্রশ্ন : বঙ্গবন্ধু কর্নার করতে গিয়ে আপনি কোনো বাধার সম্মুখীন হয়েছিলেন কি?
শামস্-উল ইসলাম : যেহেতু আমি একজন জেনারেল ম্যানেজার ছিলাম, আমার এডিশনাল একটা দায়িত্ব ছিল। আমি ঢাকায় হেড অফিসে হেড অব আইটি ছিলাম। এর পাশাপাশি সিলেটের মৌলভীবাজারের জোনাল অফিসে আমাকে একটি বিভাগ দেখতে হতো। সে সময় মৌলভীবাজারে অফিসে ফাঁকা একটি স্পেস ছিল। তখন আমি এই স্পেসটি ইউজ করার জন্য একটি আলমিরা দিই। এখানে কিছু বই কিনে দিয়ে যার নাম দিলাম- বঙ্গবন্ধু কর্নার। অবসর টাইমে এখানে বসে বঙ্গবন্ধুর উপর যতো বই আছে, সেটা মানুষ পড়বে। তখনো বঙ্গবন্ধুর আত্মজীবনী বের হয়নি। তখন আমি কী করলাম- ইসলামিক ফাউন্ডেশন এবং বাংলা একাডেমিতে বঙ্গবন্ধুর যতোটা বই ছিল, এর সবগুলো আমি নিজের টাকায় ডোনেট (অনুদান) করলাম ২০১০ সালে। একটা আলমিরা দিলাম। পরে ওটা এভাবেই ছিল। আর আগায়নি। পরে আমি যখন ২০১৫ সালে ম্যানেজিং ডিরেক্টর (ব্যবস্থাপনা পরিচালক) হলাম আনসার ভিডিপি ব্যাংকে, তখন আমার মনে হলো- এই বুঝি আরেকটা মোক্ষম সময়, আমি হয়তো এখানে একটু বড় আকারে, আরেকটু সুন্দর আকারে কিছু একটা করতে পারি। আমার মনের মধ্যে ছিল- ওখানে তো সংক্ষিপ্তভাবে করলাম, ছোট পরিসরে। আরেকটু বৃহৎ পরিসরে, আরেকটু টিউনিং করে গর্জিয়াসভাবে করা যায় কি-না। আনসার-ভিডিপি একটা ছোট ব্যাংক। তবুও আমরা সেখানে এটা করলাম। সেখানে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের গ্লাস ফাইবারে একটি আবক্ষ (বাস্ট) স্থাপন করলাম। তখন বঙ্গবন্ধুর আরও কিছু বই বেরিয়েছে। বঙ্গবন্ধুর আত্মজীবনীও বেরিয়েছে তখন। সে সময় ড. মসিউর রহমান স্যারকে বঙ্গবন্ধুর জন্মদিনে আমরা দাওয়াত দিলাম। তখন উনি বললেন, উনি আসবেন। আমরা অনুষ্ঠানটাকে ডিগনিফাই করার জন্য কয়েকটি পর্ব আমরা করলাম। একটা হলো বঙ্গবন্ধু কর্নার উদ্বোধন, আরেকটা হলো বঙ্গবন্ধুর ৪১তম শাহাদত বার্ষিকী উপলক্ষে আলোচনা সভা এবং আনসার-ভিডিপি ব্যাংকের কৃতি পোষ্যদের বৃত্তি প্রদান। সবমিলিয়ে কিন্তু আমরা অনুষ্ঠানটি করলাম। শেষ মুহূর্তে কিন্তু উনি আসতে পারলেন না। অবশ্য প্রাক্তন সাংসদ এবং আওয়ামী লীগ নেতৃত্বসহ অন্য আরও অনেক গুণীজনরা এসেছিলেন। (এ সময় অ্যালবাম বের করে স্মৃতিগুলো বের করে দেখালেন)।

প্রশ্ন : অগ্রণী ব্যাংকে বঙ্গবন্ধু কর্নারের বিষয়ে বলুন।
শামস্-উল ইসলাম : আমি ২০১৬ সালে যখন অগ্রণী ব্যাংকে ম্যানেজিং ডিরেক্টর হিসেবে যোগদান করি, তখন আরও বড় পরিসরে বঙ্গবন্ধু কর্নার করার করার ইচ্ছে হলো। তখন দেখলাম, বর্তমানের বঙ্গবন্ধু কর্নারের জায়গাটি একটি ওয়েটিং রুম। এর পুরোটা গ্লাস দিয়ে কভারড (আবদ্ধ) ছিল। আমি তখন সেটিকে বঙ্গবন্ধু কর্নারে রূপদান করি। সে সময় ১১৭ কেজি ওজনের ব্রোঞ্জের আবক্ষ আনলাম। এটি মনুমেন্টাল একটি জিনিস হয়ে গেছে। পরে আমি যখন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে এটি দেখালাম, তখন তিনি এটিকে দেশের সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের লাইব্রেরিতে করার জন্য নির্দেশ দিলেন। ফলে এটি এখন জাতীয় ইস্যু হয়ে গেছে। তখন অনেকেই অনেক কথা বললেন। যদি সরকার চেঞ্জ হয়ে যায়। তখন আমি ঝামেলায় পড়তে পারি। কিন্তু আমি কোনোকিছুকেই তোয়াক্কা করি নি।

প্রশ্ন : বঙ্গবন্ধু কমপ্লেক্স নিয়ে কিছু বলুন।
শামস্-উল ইসলাম : শাহবাগে আমাদের একটি জায়গা আছে। ওখানে একটি গ্রিন বিল্ডিং করব। বিল্ডিংটির ডিজাইনের জন্য আমরা একটি প্রতিযোগিতার আয়োজন করেছিলাম। প্রতিযোগিতায় যে প্রথম হয়েছে, তাকে আমরা পুরস্কৃত করেছি। প্রথম স্থান অধিকারকারীকে ৫ লাখ টাকা পুরস্কার দিয়েছি। মুজিব বর্ষ শুরু হয়েছে, ইনশাআল্লাহ আমরা কাজটি যদি করতে পারি, তবে এটি একটি বড় কাজ হবে। কারণ বঙ্গবন্ধুর জন্যই এ ব্যাংক। দেশ স্বাধীন হবার পর ব্যাংকগুলোর নামকরণ করার ক্ষেত্রে অগ্রণী ব্যাংকের নাম দেওয়ার অর্থই হলো যে এই ব্যাংক অগ্রে থাকবে।

প্রশ্ন : অগ্রণী ব্যাংকের সম্মুখে বঙ্গবন্ধুর ম্যুরাল করার কোনো ভাবনা রয়েছে কি?
শামস্-উল ইসলাম : বঙ্গবন্ধুর ম্যুরালটা করার বিষয়ে আমাদের ভাবনা রয়েছে। দৃষ্টিনন্দন স্থান নির্বাচন করে আমরা এগুবো। এজন্য আরেকটু গভীরভাবে চিন্তা করা প্রয়োজন।

প্রশ্ন : বঙ্গবন্ধু কর্নার থেকে বই নিয়ে বাসায় পড়বার সুবিধা চালু করবেন কি?
শামস্-উল ইসলাম : আমরা এখানে একটা ডিজিটালাইজড ই-লাইব্রেরি করে দেব। অর্থাৎ এখানে যতটা বই আছে, এর সবগুলো যেন বাসায় বসে পড়া যায়। এমন সুবিধা চালু করে দেব।

প্রশ্ন : বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে ধারণ করে অগ্রণী ব্যাংককে কোন পর্যায়ে নিয়ে যেতে পারবেন বলে মনে করেন?
শামস্-উল ইসলাম : এটা তো আমার স্টিমুলিটিং ফ্যাক্টর। আমি অগ্রণী ব্যাংকে দায়িত্ব নেওয়ার পর সবাইকে বুঝাতে চেষ্টা করেছি, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্বাধীনতার পর হাবিব ব্যাংক থেকে আমাদের এ ব্যাংকটাকে নাম দিয়েছেন অগ্রণী ব্যাংক। তিনি নিশ্চয় মনে করেছেন, এটা অগ্রে থাকবে। উনি অন্য নাম দিতে পারতেন। উদাহরণ হিসেবে ন্যাশনাল ব্যাংককে সোনালী ব্যাংক নাম দিয়েছিলেন কারণ ওরা সোনালী আশ (পাট) নিয়ে কাজ করত। আমাদের প্ল্যানিং হচ্ছে, আগামী তিন বছরে এটিকে সেকেন্ড লার্জেস্ট ব্যাংক হিসেবে উন্নীত করব। ২০৩০ সালের মধ্যে অগ্রণী ব্যাংক হবে প্রথম। আমি হেড অব আইটি হিসেবে ২০১০ সালে দায়িত্ব গ্রহণের পর প্রথম বছরেই আমরা রেমিট্যান্স ব্যবসায় জনতাকে ক্রস করেছি। দ্বিতীয় বছরেই আমরা সোনালীকে ক্রস করেছি। এখনও কিন্তু আমরা সেই প্রথম অবস্থান ধরে রেখেছি। এটা মনে করি, আমরা জাতির জনকের দেওয়া নামের স্বার্থকতা প্রমাণ করতে পেরেছি। বিভিন্নক্ষেত্রে অগ্রণী ব্যাংক এগিয়ে যাচ্ছে। আমি যখন ২০১৬ সালে অগ্রণী ব্যাংকে জয়েন করি, তখন এটি অনেকটা পিছিয়ে ছিল। ১শ, ২শ কোটি টাকা প্রফিট করতে পারবে কিনা, সেটা নিয়েও শঙ্কার মধ্যে ছিল। আমি এসেই ১শ দিনের প্রোগ্রাম চালু করে ৪ মাসের মাথায় ৫৫৫ কোটি টাকা মুনাফা অর্জন করেছি। এবার আমরা ৯৫২ কোটি টাকা প্রফিট করেছি এবং এবারই প্রথম আমরা জনতাকে ক্রস করেছি।

প্রশ্ন : অবসর গ্রহণের পর কী করার ইচ্ছে আছে।
শামস্-উল ইসলাম : অবসর গ্রহণের পর আমি দেশের মানুষের সেবা করতে চাই। আমার এলাকায় একটি ভোকেশনাল ইনস্টিটিউট করতে চাই। আমার মনের মধ্যে আছে, আমার গ্রামের এলাকা খুবই অনুন্নত এলাকা, এটি খুবই অবহেলিত। আমার এলাকায় বেকার সমস্যা রয়েছে, সেটি দূর করতে চাই। আমি দেশের মানুষের জন্য সাধ্যমতো আজীবন কাজ করে যেতে চাই।

আর পড়তে পারেন