মঙ্গলবার, ২০শে আগস্ট, ২০১৯ ইং

বিশ্বমানের পর্যটন কেন্দ্র এখন চট্টগ্রামের পতেঙ্গা সী-বিচ

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুন ৩০, ২০১৯
news-image

চট্টগ্রাম সী-বিচ থেকে ফিরে-মোঃ আবদুল আউয়াল সরকারঃ
চট্টগ্রামের পতেঙ্গা সমুদ্র সৈকতকে গড়ে তোলা হচ্ছে বিশ্বমানের পর্যটন কেন্দ্র হিসেবে। চট্টগ্রামের পতেঙ্গা সমুদ্র সৈকতকে গড়ে তোলা হচ্ছে বিশ্বমানের পর্যটন কেন্দ্র হিসেবে। অত্যাধুনিক সব সুযোগ সুবিধা থাকছে এই বিচে। শুধুমাত্র পর্যটকদের হাটার জন্য নির্মান করা হচ্ছে প্রায় সাড়ে পাঁচ কিলোমিটার ওয়াকওয়ে। কুমিল্লা ইমেজিং সেন্টার (সিটি স্ক্যান সেন্টার) এর কাজে চট্টগ্রাম যাই।

বন্ধুরা সকলে মিলে ভাবলাম সাগড় পাড়ে ঘুরা যায়। যেমন ভাবনা তেমন কাজ। কিন্তু কোথায় কোন সাগড় পাড়ে যাব? কক্সবাজার তো অনেক দূরে কাছে কোথায়ও যাওয়া যায় কিনা হঠাৎ মাথায় এলো পতেঙ্গা বিচের কথা। সেই অনেক বছর আগে গিয়েছিলাম বর্তমান অবস্থা সম্পর্কে ধারনাই ছিলনা। যাওয়ার পর দেখলাম কি অপরূপ দৃশ্য। চেনাই জায়না আগের সেই পতেঙ্গা বিচ। এখনকার পতেঙ্গা বিচ আর আগের পতেঙ্গা বিচ অনেক তফাৎ। আমরা ছিলাম নয় জন। কুমিল্লা ইমেজিং সেন্টারের চেয়ারম্যান মো: গোলাম রসুল মিয়া, ব্যবস্থাপনা পরিচালক ডা: মো: আবদুল আউয়াল সরকার, ভাইস চেয়ারম্যান মো: সোহেল রানা, মো: আসাদ্্ুজ্জামান, অর্থ-পরিচালক মো: আবদুল কাদের, নির্বাহী পরিচালক মো: মিজানুর রহমান, মো: কবির হোসেন, মো: আলমগীর খান ও হেলাল। সমুদ্র সৈকতের তীরে বসে উপভোগ করলাম সূর্যাস্তের অপরূপ মনোরম সৌন্দর্য। তখন সাগড়ে জোয়ার ছিল। পাথরের উপরে বসে জোয়ারের পানির ঢেউ আর পানির উঠা নামার অপরূপ দৃশ্য উপভোগ করছিলাম। জোয়ারের সময় ঢেউয়ের আঁচর যেন নয়নাভিরাম দৃশ্যের অবতারণা করে। সন্ধ্যার সময় সূর্যাস্তের দূশ্য মনকে আরো পুলকিত করে। সবচেয়ে বেশি ভাল লাগে সন্ধ্যার পরিবেশ।

বর্তমানে সেখানে অসংখ্য লোকের সমাগম। সেই সাথে আছে স্প্রিড আর কাঠের তৈরি নৌকায় উঠা নামার সুযোগও। জাহাজের চলাচল কিংবা মাথার উপর দিয়ে উড়ে যাওয়া বিমানের দৃশ্যও অসাধারণ। বিকেল গড়াতে থাকলে জোয়ার আসতে শুরু করে। তীরে এসে পড়ে ঢেউ। সমুদ্র সৈকত দেখে আমাদের ফিরতে ইচ্ছে করছিল না। সাগর, নদী আর পাহাড় বেষ্টিত বন্দর নগরীতে এসে অতি অল্প সময়ে ঘুরে এলাম সৈকতটি । কাজ কিংবা বেড়ানোর মধ্যেই কিছুটা সময় নিয়ে যে কেউ ঘুরে আসতে পারেন অনাবিল সৌন্দর্য্যরে পতেঙ্গা সৈকতে।

পতেঙ্গা সমুদ্র সৈকত বন্দরনগরী চট্টগ্রামের একটি জনপ্রিয় পর্যটন কেন্দ্র, যা কর্ণফুলী নদীর মোহনায় অবস্থিত। চট্টগ্রাম শহরের জিরো পয়েন্ট থেকে মাত্র চৌদ্দ কিলোমিটার দূরে এই বিচ অবস্থিত । দুই ভাগে সৈকতের ৫ কিলোমিটার জুড়ে চলছে সৌন্দর্য্য বর্ধনের কাজ। প্রথমভাগের কাজ শেষ পর্যায়ে। দুপাশে যতদূর চোখ যায় কেবল পর্যটক আর পর্যটক। তাদের কোলাহলে ছাপিয়ে যাচ্ছিল ঢেউয়ের গর্জন। কেউ ব্যস্ত সুসজ্জিত বাগানের ফুলের সঙ্গে মিলে মিশে ছবি তুলছে, কেউবা বসার আসনে বসে তীরের সৌন্দর্য্য মনের মাধুরী মিশিয়ে উপভোগ করছেন। অনেকেই আবার হাটারপথ (ওয়াকওয়ে) ধরে সমুদ্রের সৌন্দর্য্য উপভোগ করছিলেন। এমন পরিবেশে চট্টগ্রামের পতেঙ্গা সমুদ্র সৈকতের চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (সিডিএ) চট্টগ্রাম সিটি আউটার রিং সৌন্দর্য্য বর্ধনের কাজ চলছে। ফলে চার স্তর থেকে উপভোগ করা যায় সমুদ্র দর্শন।
চট্টগ্রাম সিটি আউটার রিং সড়ক থেকে সমুদ্রের দিকে নামতেই ৩০ফুট প্রশস্তের হাটা পথ। এর পরেই অভ্যর্থনা জানাবে সুসজ্জিত বাগানের রং বেরংয়ের বর্ণিল ফুলের সমাহার। রয়েছে বসার জন্য হাজারো আসন। এত উপভোগের মধ্যে দিয়ে হাটা যাবে সৈকতে। মিলবে সমুদ্রের নোনা পানি ছোঁয়ার স্বাদ। ঘুরাঘুরি মধ্যে পারকী সমুদ্র সৈকত আনোয়ারা উপজেলায় কিছুক্ষন বিশ্রামের মধ্যে দিয়ে কেটে গেল দিনটি।

প্রসঙ্গত: প্রকৃতির অনন্য ভূমি চট্টগ্রামের অন্যতম ও পৃথিবীর দীর্ঘতম সমুদ্র সৈকত কক্সবাজারের পরে পতেঙ্গা সী-বিচ গোটা বাংলাদেশে অদ্বিতীয় সৌন্দর্য্যরে লীলাভূমি হিসেবে পরিচিত। সাগর পাশের জার্নিটা আসলেই আনন্দের। যদি কখনো কেউ সময় পান তাহলে সাগর পাড় থেকে ঘুরে আসার অনুরোধ করছি।

লেখক; সাংবাদিক কবি ও লেখক

আর পড়তে পারেন