মঙ্গলবার, ২০শে আগস্ট, ২০১৯ ইং

আনিকার চিকিৎসক হওয়ার স্বপ্ন কেড়ে নিল একটি সড়ক দুঘর্টনা

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুন ২৮, ২০১৯
news-image

ইমতিয়াজ আহমেদ জিতুঃ
আনিকা আক্তার তাহসিন (২২), ইবনে সিনা মেডিকেল কলেজের ১ম বর্ষের শিক্ষার্থী। স্বপ্ন ছিল চিকিৎসক হয়ে মানুষের সেবা করার। তার সেই স্বপ্ন অধোরাই থেকে গেল । এক দুঘর্টনা কেড়ে নিল তার স্বপ্ন । দুঃখের সাগরে নিমজ্জিত করে গেল তার পরিবারকে।

নিহত আনিকা কুমিল্লা নগরীর ২য় মুরাদপুর এলাকার বাসিন্দা প্রয়াত প্রকৌশলী মামুনুর রশিদের মেয়ে। পাঁচ মাসের ব্যবধানে পিতা-কন্যা দুই জনের মৃত্যু হল।

বৃহস্পতিবার (২৮ জুন) বিকালে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের কুমিল্লা জেলার দাউদকান্দি উপজেলার ইলিয়টগঞ্জ এর টামটা এলাকায় ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা কুমিল্লা অভিমুখি রয়েল পরিবহনের একটি যাত্রীবাহী বাস নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে সড়কের পাশের একটি ডোবায় পড়ে যায়। এসময় বাসে থাকা অন্তত ১২জন যাত্রী আহত হয়। আহতদের উদ্ধার করে স্থানীয় গৌরীপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাওয়ার পর কর্তব্যরত চিকিৎসক মেডিকেল ছাত্রী আনিকা আক্তার তাহসিন ও জেলার বুড়িচং উপজেলার মিথিলাপুর গ্রামের মৃত সফিকুর রহমানের মেয়ে রৌশন আরাকে মৃত ঘোষণা করেন।

রাতে আনিকার মরদেহ বাড়িতে আনার পর স্বজনরা কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন। এলাকায় নেমে এসেছে শোকের ছায়া। মরদেহ দেখতে আনিকার আত্বীয়-স্বজন, সহপাঠিসহ এলাকার শোকার্ত লোকজন বাড়িতে ভীড় জমায়। স্থানীয়রা জানান, ৫ বোনের মধ্যে সে ছিল সবার কনিষ্ঠ ছিল খুব মেধাবী। ৫ মাস আগে আনিকার বাবা প্রকৌশলী মামুন মারা যান। তাই ওই পরিবার একটি শোক কাটিয়ে না উঠতে সবার আদরের কনিষ্ট আনিকাকে হারিয়ে শোকে স্তব্ধ পুরো পরিবার। শুক্রবার বাদ জুম্মা এলাকায় নামাজে জানাযা শেষে তাকে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়েছে।

তার বড় বোন তাননিয়া আল নিসা জানান, বাবা-মায়ের স্বপ্ন ছিল আনিকা একজন বড় চিকিৎসক হয়ে মানুষের সেবায় কাজ করবে, কিন্তু একটি দুর্ঘটনা আমাদের পরিবারের সকল স্বপ্ন ভেঙ্গে চুড়মার করে দিল।

স্থানীয় শিক্ষার্থী রেহমান জানান, মেয়েটি অনেক ভদ্র ছিল। সদা হাসোজ্জ্বল ছিল। মহাসড়ক চলাচলরত যানবাহনগুলো আর যেন কোন বাবা-মায়ের আদরের সন্তানকে এভাবে কেড়ে না নেয় সেজন্য চালকদের সচেতন হওয়া উচিত। গাড়ি চালানোর সময় যাতে চালকরা মুঠোফোনে কথা না বলে সে বিষয়ে আইনশৃঙখলাবাহিনী ও পরিবহন নেতাদের দৃষ্টি দেওয়া উচিত। অন্যথায় সড়কে মৃত্যু মিছিল থামবে না।

আর পড়তে পারেন