মঙ্গলবার, ১৫ই জুলাই, ২০১৯ ইং

আইনী উদ্দেশ্য বাস্তবায়নে ব্যর্থ বার কাউন্সিল! (মুক্তমত)

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুন ২৬, ২০১৯
news-image

 

মো : হোসেন আসিফ

কথাটা শুনে অনেকের মনে খটকা লাগতে পারে। আসলেই কী তাই ? হা,  সত্যি বার কাউন্সিল অন্যান্য ব্যর্থ সংগঠনের মতই একটি সংগঠন।

তখন প্রশ্ন হতে পারে, কেন ? এই যুক্তি সংগত প্রশ্নের যথাযথ উত্তরই হচ্ছে আমার লেখনির মূল প্রতিপদ্য বিষয়।

“বাংলাদেশ ল্যিগাল প্রাকটিশনারস্  বার কাউন্সিল অর্ডার ১৯৭২ এর অনুচ্ছেদ ১০ “অনুযায়ী বার কাউন্সিলের কার্যাবলী গুলো হল:

* এ্যাডভোকেট তালিকা ভুক্তি করা, এই উদ্দেশ্যে পরিক্ষা নেয়া, সনদ প্রদান করা এবং তালিকা ভুক্তি থেকে বাদ দেয়া।

* এ্যাডভোকেটদের বিরুদ্ধে পেশাগত অসদাচরনের বিচার ও শাস্তি।

* পেশাগত আচরন ও নৈতিকতা নির্ধারন।
* আইন শিক্ষার উন্নয়ন।
* এর সদস্যদের নির্বাচন আয়োজন।

প্রশ্ন হচ্ছে বার কাউন্সিল উল্লেখিত কর্মকান্ডের কয়টি শর্ত পূরণ করছে ? বার কাউন্সিল সর্বদা, একাগ্রতা, নিষ্ঠা ও নির্ধারিত সময়ে মধ্যে যে কাজটি সম্পাদন করে তা হল উপরে উল্লেখিত কার্যাবলীর সর্বশেষ শর্ত, মানে নির্বাচন। যেখানে তাদের ক্ষমতা নির্ধারণ ব্যতিরেকে আর কিছু হয় বলে আমার মনে হয় না। তবুও একমাত্র এই কাজটি সময়মত করে বলে তাদের সাধুবাদ জানানো উচিত।আর পেশাগত আচরণ এবং নৈতিকতা নির্ধারণ, যা তারা নির্ধারণ করেই ক্ষান্ত থাকে বাস্তবায়নের দিকে চোখ তুলেও তাকায় না।

এরপর আসি পেশাগত অসদারণের বিচার ও শাস্তি। যেহেতু আইনের ছাত্র এবং কোর্ট প্রাকটিসের অভিজ্ঞতা রয়েছে, তাই বলছি। প্রাকটিক্যালি আইনজীবিদের যে পেশাগত কিছু আচার- আচরণ আছে বা নৈতিকতা বলতে কোন কথা আছে, সেটা হয় কেউ জানে না আর জানলেও তোয়াক্কা করে না। এমন অভিযোগ হাজারটা করা যাবে কিন্তু করবো না। একটা উদাহরণ দিব মাত্র। আইনত কোন আইনজীবি তার পেশাগত সার্থে কাউকে ( দালাল) নিয়োগ দিতে পারবে না। বাস্তব চিত্র ভিন্ন, দালাল বৈ কোন সিনিয়র আইনজীবি হতে গুনা ক’জন।

এখন আসি বার কাউন্সিলের মূল ব্যথা, যার কারনে রাজকীয় পেশার আজ করুন দশা।
প্রথমত, আইন শিক্ষার উন্নয়নে ভূমিকা নিয়ে বলবো। বার কাউন্সিল কখনো এই বিষয়টিকে গুরুত্বদেয় নি। যার কারনে অনেক অযোগ্য ব্যাক্তি এই পেশায় নিয়োজিত ছিল এবং আছে। পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় গুলি সহ কিছু ভালো মানের প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয় হতে যথাযথ আইনী শিক্ষাদানের মাধ্যমে দক্ষ ও যোগ্যতা সম্পন্ন গ্র্যাজুয়েট বের হচ্ছে। কিন্তু অনেক বেসরকারী বিশ্ববিদ্যালয় সনদ বিক্রির ধান্দা করছে। তাদের বার কাউন্সিল বা ইউ, সি, জি কেউ কিছু বলছে না।

অন্যদিকে অনেক ভালো মানের আইনজ্ঞ, বিচারক উঠে এসেছেন বিভিন্ন আইন কলেজ থেকে। কিন্তু যুগোপযোগীতায় এটা এখন প্রশ্ন বিদ্ধ ( সুপ্রীম কোর্ট অর্ডার অনুযায়ী)।
বার কাউন্সিল আইন শিক্ষার উন্নয়ন চাইলে, এ বিষয় গুলি সমাধান ব্যাতীত অসম্ভব। উপরোক্ত বিষয়াবলী সমাধান করলে, এ্যাডভোকেটদের সনদ প্রদানে আলাদা করে এক্সাম নিতে হবে না।যেমনটা প্রয়োজন হয় না ডাক্তারদের ক্ষেত্রে। প্রয়োজনে আইন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গুলিকে রেগুলার মনিটরিং করুন, সিলেবাস প্রণয়ন,পরিবর্তন, প্রশ্ন পত্র প্রদানসহ যাবতীয় উদ্দ্যোগ গ্রহণ করুন। একটা ছাত্র/ ছাত্রীকে ৪ বছরের (পাস কোর্স ব্যাতীত) অনার্স করার পরও যদি আইনজীবি হতে পরীক্ষা দেয়া লাগে, এটা প্রমাণ করে আইন শিক্ষা উন্নয়নে আপনাদের ভূমিকা শূণ্য!

আইন শিক্ষার উন্নয়নে শ্রম দেয়ার মতো সময় আপনাদের নাই। তাহলে পরীক্ষা যখন নিবেনই তাহলে বেধে দেয়া সময়ের মধ্যে কেন নয়। আইনত ছয় মাসের মধ্যে পরিক্ষা নেয়ার কথা থাকলেও নিচ্ছেন না। মহামান্য হাইকোর্টের বেধে দেয়া এক বছর সময়ও মানছেন না। তার মানে কী হতে পারে ? সময় স্বল্পোতা নাকি তথাগত বাঙ্গলী নীতি, নতুনদের আগমনে শংঙ্কা বা ভীতি।
শেষ প্রশ্ন, নির্বাচন নির্ধারিত সময়ের মধ্যে পরীক্ষা কেন নয়?

এই পেশার উন্নয়ন ও প্রসার যাদের হাতে, তারাই যদি এমন পেশাগত অবমূল্যায়নের ধ্বংস লীলায় মেতে উঠেন, এই দায় কে নিবে বিচার বিভাগ নাকি রাষ্ট্র?
আমার মতে যে সংগঠন দায়িত্ব পালনে ব্যার্থ, সংগঠন বিলুপ্ত হোক না হয় ঢেলে সাজানো হোক।

– মো : হোসেন আসিফ
শিক্ষানবীশ আইনজীবি এন্ড লিগ্যাল এ্যাডভাইজার।
কুমিল্লা জার্জকোট, কুমিল্লা
০১৯১৭০০৮৮৫৪ / ০১৫৫১৮১৮৫৭৭

আর পড়তে পারেন