মঙ্গলবার, ১৫ই জুলাই, ২০১৯ ইং

কুমিল্লায় লোডশেডিংয়ে অতিষ্ট, বিদ্যুৎ অফিস ঘেরাও

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুন ২৪, ২০১৯
news-image

 

অনলাইন ডেস্কঃ
কুমিল্লা জেলার বুড়িচং উপজেলার বিভিন্ন গ্রামে ঘন ঘন লোডশেডিং। অতিরিক্ত বিল আদায়, মিটার না দেখে বিলের রিডিং উত্তোলন, বিদ্যুৎ লাইন বিচ্ছিন্ন , দালালের দৌরাত্ম এমন অভিযোগ নিয়ে উপজেলার কয়েকটি গ্রামের জনসাধারণ পল্লী বিদ্যুৎ অফিস ঘেরাও উদ্দ্যেশে অফিসের ভিতর বাহিরে ভীড় জমায়।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, ২৪ জুন সোমবার সকাল ১১ ঘটিকায় কুমিল্লা জেলার বুড়িচং উপজেলায় ষোলনল ইউনিয়নের শিবরামপুর, কন্ঠনগর,গোশাইপুর, কিশোর নগর, গোপিনাথপুর, আগানগরসহ আরও কয়েকটি গ্রামের জনসাধারণ সম্মেলিতভাবে কুমিল্লা পাবিস-২ বুড়িচং অফিসে কয়েকটি দাবী নিয়ে অফিস ঘেরাও চেষ্টা চালায়।

তাদের অভিযোগ ছিল গরম আসার পর থেকেই ঘন ঘন লোডশেডিং, অতিরিক্ত বিল আদায়, মিটার না দেখে বিলের রিডিং উত্তোলন, দালালের দৌরাত্ম ষোলনল ইউনিয়নের কয়েকটি গ্রামের বিদ্যুৎতের লাইন বুড়িচং সদরের সাথে সংযুক্ত করে দেওয়ায় এমন দাবী নিয়ে স্লোগানে স্লোগানে মুখোরিত পল্লী বিদ্যুৎ অফিস। এ সময় ষোলনল ইউনিয়ন পরিষদের জামাল মেম্বার বলেন, সময় অসময় বিদ্যুৎ চলে যায় এতে ছেলে-মেয়েদের লেখা-পড়া বিঘ্ন ঘটে।

এ ছাড়াও ব্যবসার প্রতিষ্ঠানের ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের স্বাভাবিক কার্যক্রম অচল হয়ে পড়ে। এ গরমে জনসাধারণ রাতের বেলাও আরামে ঘুমাতে পারে না, বিশেষ করে শিশুরা এ গরম সহ্য করতে পারে না। এখানে আরো কিছু লোক বলেন শতভাগ বিদ্যু থাকার পরও আমাদের এলাকায় কেন ২৪ ঘন্টা শতভাগ বিদ্যুৎ পাই না। প্রায় আধাঁ ঘন্টা অবস্থানের পর বুড়িচং পল্লী বিদ্যুৎ অফিসের ডিজিএম ফখর উদ্দিন তাদের দাবী গুলো মেনে নিয়ে সমাধানের আশ^াস দেন। তার আশ্বাস নিয়ে এখান থেকে অভিযোগকারীরা বুড়িচং উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা অফিসের উদ্দ্যেশে রওনা দেন।

পরে এ বিষয়টি নিয়ে ডিজিএম ফখর উদ্দিন সাথে সাংবাদিক সাথে কথা বললে তিনি জানান, আমরা কাউকে বলি নাই দালালি করতে। তাদের দাবী গুলোর মধ্যে অনেকগুলো দাবী যুক্তিসংগত নয়। আমরা সুনির্দিষ্ট অভিযোগ পেলেই সাথে সাথেই ব্যবস্থা নেই। এবং লোডশেডিং সমাধানে আমাদের চেষ্টা অব্যাহত থাকবে।

আর পড়তে পারেন