মঙ্গলবার, ২০শে আগস্ট, ২০১৯ ইং

যদি যেতে চান কানাডায়…জেনে নিন

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুন ২৩, ২০১৯
news-image

 

লাইফস্টাইল ডেক্সঃ
আন্তর্জাতিক মানসম্পন্ন শিক্ষা ব্যবস্থায় পরিচালিত উত্তর আমেরিকার দেশ কানাডা। কম খরচে পড়ালেখা, শিক্ষাজীবন শেষে সহজেই পছন্দনীয় পেশায় যোগদান, স্থায়ী বাসিন্দা কিংবা নাগরিক সুবিধার কারণে অন্যান্য দেশের তুলনায় বাংলাদেশী শিক্ষার্থীদের কাছেও বিদেশে উচ্চ শিক্ষার পছন্দনীয় দেশের একটি কানাডা।

বিশ্বের সব নাম করা বিশ্ববিদ্যালয়ের তালিকার একটি বিরাট অংশজুড়ে রয়েছে কানাডার বিশ্ববিদ্যালয়গুলো। স্বনামধন্য এসব বিশ্ববিদ্যালয়ের ডিগ্রি বিশ্বব্যাপী সমাদৃত। উজ্জ্বল ভবিষ্যৎ ও ক্যারিয়ার গঠনে যা বিরাট ভূমিকা পালন করতে পারে।

বিশ্বে কোয়ালিটি এডুকেশন বললেই সবার প্রথমে আসে কানাডার নাম। দেশটিকে শিক্ষার ক্ষেত্রে সুপার পাওয়ার বলা হয়। বিশ্বে টপ এক হাজার ইউনিভার্সিটির মধ্যে কানাডাতে আছে ২৬টি। প্রতি বছর কানাডা সরকার প্রায় আড়াই লাখ থেকে তিন লাখ আন্তর্জাতিক ছাত্রছাত্রীকে কানাডার বিভিন্ন ইউনিভার্সিটি গুলোতে উচ্চশিক্ষা গ্রহণের সুযোগ দিয়ে থাকে। সেই সাথে পড়াশোনা শেষ করে সেখানেই যোগ্যতা অনুযায়ী কাজ এবং বসবাসের সুবিধাও মেলে অনায়াসেই। তাই কয়েক বছর ধরে দেশের বহু ছাত্রছাত্রী কানাডার বিখ্যাত ইউনিভার্সিটি গুলোতে উচ্চশিক্ষা নেয়ার জন্য পাড়ি জমাচ্ছে।

এখন কানাডায় শিক্ষার্থী হিসেবে প্রবেশ করে নাগরিকত্ব পাওয়া খুবই সোজা। দুই বছর পড়াশোনার পর কিছু নিয়ম কানুন মেনে আবেদন করলেই সেখানকার স্থায়ী বাসিন্দা হওয়ার সুযোগ রয়েছে। আর স্থায়ী বাসিন্দা হলে, পড়াশোনার খরচ লাগবে না বললেই চলে। এছাড়া ডিপ্লোমা করেও অনার্স করতে পারবেন। যাওয়া যাবে ৬ মাসের টিউশন ফি দিয়ে। এছাড়া পড়াশোনা করতে যে টাকা খরচ হবে, আয় করার সুযোগ থাকছে তার চেয়েও বেশি।

এখন আপনাদের সাথে পরিচয় করে দিবো উপরের সব সুবিধা পাওয়া বাংলাদেশের শিক্ষার্থীদের জন্য বিশেষভাবে উপযোগী একটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সাথে। যার নাম: টরেন্টো স্কুল অব ম্যানেজম্যান্ট। কানাডার অন্টারিও-এর প্রাণকেন্দ্রে অবস্থিত এই শিক্ষা প্রতিষ্ঠান।

কানাডার টরেন্টো স্কুল অব ম্যানেজমেন্ট সৃষ্টিশীল উদ্ভাবনীর একটি পোস্ট সেকেন্ডারী নান্দনিক প্রতিষ্ঠান। ব্যবসায়িক এবং ট্যুরিজম-এর ক্ষেত্রে ক্যারিয়ার গঠনে এই প্রতিষ্ঠান সময়োপযোগি কয়েকটি বিষয়ে পড়াশোনার বিশেষ অফার চালু করেছে। এর মধ্যে রয়েছে, বিজনেস, আইটি, একাউন্টিং হসপিটালিটি অ্যান্ড ট্যুরিজম, এসিসিএ, বিগ ডাটা (ডাটা এনালিটিক), সাইবার সিকিউরিটি, ডিজিটাল মার্কেটিং ইত্যাদি।

এখানকার ডিগ্রিসমূহ বিশ্বমানের তো বটেই, আমেরিকা এবং কমনওয়েলথভুক্ত অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়ের ডিগ্রিরও সমতুল্য। এখানে শিক্ষার দক্ষতা বৃদ্ধির জন্য ওয়ার্কশপ ও কাউন্সেলিং ব্যবস্থা রয়েছে এবং আর্থিক সহযোগিতার জন্য বিভিন্ন স্কলারশিপ দেওয়া হয়ে থাকে।
এখন নিজের মনের কোনে উঁকি দিতে পারে একটি প্রশ্ন, তা হলো আপনি কীভাবে যাবেন সেখানে। সেজন্য আপনাকে নিশ্চয়ই কোন না কোন মাধ্যমের সহায়তা নিতে হবে, যারা দীর্ঘদিন ধরে এ বিষয়ে কাজ করে আসছে, দেখছে সফলতার মুখও। একজন সচেতন মানুষ হিসেবে আপনি যোগাযোগ করতে পারেন বিএসবি গ্লোবাল নেটওয়ার্কে। কেননা, বাংলাদেশে কানাডায় উচ্চশিক্ষার বিষয়ে শিক্ষার্থীদের পরামর্শদানসহ অন্যান্য সহযোগিতায় তারা কাজ করছে, ২৬ বছর ধরে।
এখন পর্যন্ত এক লাখেরও বেশি শিক্ষার্থী উচ্চ শিক্ষার জন্য বিএসবি’র মাধ্যমে পাড়ি দিয়েছে বিদেশে। তারা বিশ্বের প্রায় সব উন্নত দেশের নামকরা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশোনা করছে। পড়াশুনার পাশাপাশি কাজ করে অর্থ উপার্জনের মাধ্যমে পরিবার এবং দেশের অর্থনৈতিক সমৃদ্ধি বয়ে আনছে ওই শিক্ষার্থীরা।

কানাডায় উচ্চশিক্ষা নিতে ইচ্ছুক শিক্ষার্থীরা যেকোনো সমস্যায় তাই যোগাযোগ করতে পারেন এই পরামর্শদানকারী প্রতিষ্ঠানের সাথে। ভর্তি সম্পর্কিত তথ্যের জন্য যোগাযোগ: বিএসবি গ্লোবাল নেটওয়ার্ক, প্লট-২২, গুলশান সার্কেল-২, ঢাকা ফোন: ৯৮৬১৭৯০-৪, ০১৭২০৫৫৭১০২-১০৮, ০১৭২০৫৫৭১১৮/১২৩

আর পড়তে পারেন