মঙ্গলবার, ১৫ই জুলাই, ২০১৯ ইং

বিচিত্র পেশা মাছ কাটা

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুন ২৩, ২০১৯
news-image

জুবায়ের আহমেদঃ

অবৈধ পথে কোটি কোটি টাকা আয় রোজগারের চেয়ে বৈধ উপায়ে রোজগারের এক টাকাও অমূল্য। অবৈধ পথে অর্থ উপার্জন ধর্মীয় ভাবে নিষিদ্ধ হওয়ার পাশাপাশি রাষ্ট্রীয় ভাবেও নিষিদ্ধ। বৈধ পথে আয় রোজগারের মাধ্যম হউক যতই ছোট, তাতে থাকে গর্ব করার মতো মানসিক প্রশান্তি। প্রান্তিক পর্যায়ে বহু পেশাজীবিক মানুষ আছে যারা সারাদিন কায়িক পরিশ্রমের মাধ্যমে জীবিকা নির্বাহ করেন। প্রতিষ্ঠিত ব্যবসা কিংবা সরকারী বেসরকারী চাকুরী এবং জনমুখে উচ্চারিত বহু পেশার আড়ালে থাকা একটি পেশার নাম মাছ কাটা। সারা দেশের বিভাগীয় ও জেলা উপজেলা শহরগুলোর বাজারের মাছপট্টিতে মাছের দোকানের পাশে থাকে মাছ কাটা পেশায় নিয়োজিত থাকা ছোট ছোট শিশু থেকে শুরু করে বয়স্ক বহু মানুষ। যারা মূলত আগ্রহী ক্রেতাদের কাছ থেকে কেজি প্রতি নির্দিষ্ট অংকের টাকা গ্রহণের মাধ্যমে মাছ কাটেন। ব্যবসায়ী ও পেশাজীবি নারী পুরুষ থেকে শুরু করে সবশ্রেণীর ক্রেতাই মাছ কেটে নিচ্ছেন।

কাটাযুক্ত মাছগুলোতে কেজি প্রতি ২০ টাকা ও কাটা ছাড়া যেকোন মাছ কেজি প্রতি ১৫ টাকা হিসেবে কেটে থাকেন এই পেশাজীবিরা। আমি নিজেও একজন ক্রেতা হিসেবে নিয়মিতই মাছ কেটে নেই বাসায়। ব্যক্তিগত কৌতুহল থেকে এ পেশায় নিয়োজিত থাকা একাধিকজনকে জিজ্ঞাসাবাদ করলে তারা জানায়। বৈধ পথে ইনকাম করছেন, এতেই তারা খুশি এবং দৈনন্দিন আয়ও হয় ভালো। কোন প্রকার দেশ ও সমাজবিরোধী কাজে লিপ্ত না হয়ে কায়িক পরিশ্রমের মাধ্যমে যতটুকু রোজগার করছেন, এতেই সন্তুষ্টি আদায় করছেন। সাপ্তাহিক ছুটির দিনগুলোতেই অন্যান্য দিনগুলোর থেকে দিগুণ রোজগার করেন তারা। ধারালো দা বটি ও ছুরি দিয়ে খুব দ্রুতই মাছ কাটতে পারায় সামান্য কিছু টাকা খরচের মাধ্যমে বাজার থেকেই মাছ কেটে নিয়ে যাচ্ছে সবশ্রেণীর মানুষ। সকাল থেকে মধ্যরাত পর্যন্ত চলে তাদের এই মাছ কাটার কাজ।

পবিত্র কোরআনের সুরা জুমার ১০নং আয়াতে বলা হয়েছে “সালাত সমাপ্ত হলে তোমরা জমিনে ছড়িয়ে পড়বে এবং আল্লাহর অনুগ্রহ সন্ধান করবে, আর আল্লাহকে অধিক স্মরণ করবে যেনে তোমরা সফলকাম হতে পারো”। মাছ কাটা পেশার সাথে জড়িত মানুষগুলোও আল্লাহর অনুগ্রহেই যেন জীবিকা নির্বাহ করছেন সামান্য আয়ে। সব ক্রেতাই মাছ কেটে নেয় না, যারা কেটে নেয় তারাই এই পেশায় নিয়োজিত মানুষগুলোর ভরসা। আবার কেউ দাম কম দিতে চাইলেও সেভাবে না করতে পারেন না, কেননা অনেকেই কেজি প্রতি ১৫/২০ টাকা খরচকে বেশি মনে করলে মাছ না কেটে বাসায় নিয়ে যান। যার ফলে নির্ধারিত মূল্যের চেয়েও কম মূল্যে কাটতে হয় মাছ।

বাংলাদেশের নাগরিকরা নিজেদেরকে ডাক্তার, আইনজীবী, ইঞ্জিনিয়ার, সরকারী চাকুরীজীবি, ব্যবসায়ী কিংবা ড্রাইভার সহ বিভিন্ন পেশাজীবি হিসেবে পরিচয় দিলেও সারা দেশের বিভাগীয় ও জেলা উপজেলা শহরগুলোর বাজারে মাছ কাটা পেশায় নিয়োজিত থাকা মানুষগুলোর দেবার মতো আলাদা পেশাগত পরিচয় নেই। কারো জিজ্ঞাসে তারা বলতে পারে না আমরা এটা করি ওটা করি। খানিকটা আফসোসের সুরে মিথ্যে করেই বলতে হয় আমরা ব্যবসা করি, কি ব্যবসা প্রশ্ন করা হলে, মাছ ব্যবসা বলেই থামতে হয় মাছ কাটা পেশাজীবিদের।

মাছ কাটা পেশায় জড়িতদের নিয়ে নেই কোন বাজারভিত্তিক সংগঠন। নেই কোন স্বীকৃতি। আমার এ লেখাটিও তাদের স্বীকৃতি আদায়ের উদ্দেশ্যে নয়। তবে নানান বৈধ পেশার মধ্যে অতি সাধারণ এ পেশায় জড়িত থাকা মানুষগুলোও পূর্ণ সন্তুষ্টি সহকারে সারাদিন পরিশ্রমের মাধ্যমে জীবিকা নির্বাহ করছে। জীবিকা নির্বাহের একমাত্র মাধ্যম কাজ, সে কাজ যত ছোটই হোক, তাকে মূল্যায়ণ করার মাধ্যমেই এগিয়ে চলছে মানুষগুলো। লেখাপড়া না জানা কিংবা নামমাত্র পড়া লেখা করে কোন চাকুরী না পাওয়ায় বা ব্যবসা করার মতো সামর্থ্য না থাকায় দেশবিরোধী কোন কর্মকান্ড, মাদক সহ সবধরনের অবৈধ কাজে নিজেদের না জড়িয়ে পরিশ্রমের মাধ্যমে সামান্য মাছ কাটা পেশায় নিজেদের নিয়োজিত রেখেছে পরিবারের জীবিকা নির্বাহ করছেন, সম্মান, শ্রদ্ধা ও ভালোবাসা তাদের প্রতি। সেই সাথে প্রত্যাশা থাকবে এ পেশায় নিয়োজিত মানুষের চেষ্টা ও পরিশ্রমকে কোন স্বীকৃতি দেওয়ার সুযোগ থাকলে রাষ্ট্র ও সমাজ যেনো এগিয়ে আসে, তাদের পাশে দাঁড়ায়।

-শিক্ষার্থী
ডিপ্লোমা ইন জার্নালিজম
বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব জার্নালিজম এন্ড ইলেকট্রনিক মিডিয়া (বিজেম)।

আর পড়তে পারেন