বুধবার, ১৬ই জুলাই, ২০১৯ ইং

কথিত ছোট দলগুলোর হয়ে প্রতিবাদ করছে বৃষ্টি!

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুন ১৫, ২০১৯
news-image

জুবায়ের আহমেদঃ

ইংল্যান্ড এন্ড ওয়েলসে বসেছে আইসিসি ওয়ানডে বিশ্বকাপের ১২তম আসর। বিশ্বকাপকে আরো আকর্ষণীয় ও উপভোগ্য করে তুলতে মাত্র ১০ দলকে নিয়ে ২০১৯ বিশ্বকাপ আয়োজন করে আইসিসি। ধারণা করা হয় বিশ্বকাপে ছোট দলগুলোর অংশগ্রহণের ফলে তাদের ম্যাচগুলোর অধিকাংশই একপেশে হয়, যাতে করে এ ম্যাচগুলোতে স্পন্সর আগ্রহ থাকে কম, পাশাপাশি প্রভাবশালী দেশগুলো ছোট দলের সাথে পরাজয়বরণ করলে বিশ্বকাপ থেকে ছিটকে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে এবং আকর্ষণ কমে যায় বিশ্বকাপের। আইসিসির আয় রোজগারেও প্রভাব পড়ে, এসকল কারনেই ১৬, ১৪ বা ১২ দলের পরিবর্তে মাত্র ১০ দলকে নিয়ে বিশ্বকাপ আয়োজন করছে আইসিসি।

পাশাপাশি ২০০৭ সালের বিশ্বকাপে ১৬ দলকে চার গ্র“পে বিভক্ত করার ফলে প্রতিটি গ্র“পে ২টি করে বড় দল থাকার পাশাপাশি ২টি করে তুলনামূলক দুর্বল দল রাখা হয়। ভারত ও শ্রীলংকার সাথে বারমুডার পাশাপাশি উঠতি দল বাংলাদেশের অন্তর্ভূক্তিতে বি গ্র“পটকি ডেথ গ্র“পে পরিণত হয় এবং ভারতকে হারিয়ে সুপার এইটে উঠে বাংলাদেশ, গ্র“প থেকেই বিদায় নেয় শিরোপার স্বপ্ন নিয়ে বিশ্বকাপে আসা ভারত। মূলত এ ধরনের আপসেট (তখনকার সময় বিবেচনায়) এর কারনে বড়দলগুলো শুরুতেই বিদায় নেওয়ায় বিশ্বকাপের আকর্ষণ কমে যায়, আর্থিক ক্ষতি হয় আইসিসি ও বড় দলগুলোর। বিশ্বকাপে দল কমিয়ে ছোট ছোট গ্র“পের পরিবর্তে ২০১১ সাল ও ২০১৫ সালের বিশ্বকাপে মাত্র ২টি গ্র“পে বিভক্ত করা হয় দলগুলোকে, যার ফলে বড় দলগুলো অপেক্ষাকৃত দুর্বল দলের সাথে পরাজিত হলেও সুযোগ থাকে ঘুরে দাঁড়ানোর। বিশ্বকাপে দল কমানোর এটিও বড় একটি কারণ।

কিন্তু অনিশ্চয়তার খেলা ক্রিকেট তার সৌন্দর্য্য বজায় রাখতে চলতি বিশ্বকাপে বড় দল আর ছোট দলকে আলাদা করেনি। উইন্ডিজ বনাম পাকিস্তান এবং নিউজিল্যান্ড বনাম শ্রীলংকার মধ্যকার দুটি ম্যাচ হয়েছে একপেশে, যেমনটা ধারণা করা হয় অস্ট্রেলিয়া বনাম কেনিয়া বা এমন ব্যবধান থাকা দলগুলোর মধ্যে। পাশাপাশি বৃষ্টির প্রভাবে ম্যাচ পরিত্যক্ত হওয়ার ফলেও বিশ্বকাপ তার আকর্ষণ ও সৌন্দর্য্য কিছুটা হলেও হারিয়েছে। বৃষ্টির কারনে পরিত্যক্ত হওয়া ম্যাচগুলোর টিকেটের টাকাও দর্শকদের ফেরত দিচ্ছে আইসিসি, যাতে আর্থিক ক্ষতি হওয়ার বিপরীতে লাভের পরিমাণ কমে যাচ্ছে আইসিসির।

চলতি বিশ্বকাপে ইতিমধ্যে অনুষ্ঠিতব্য ম্যাচগুলোর মধ্যে বাংলাদেশ বনাম শ্রীলংকা, ইংল্যান্ড বনাম ভারত ও পাকিস্তান বনাম শ্রীলংকার ম্যাচ ৩টি পরিত্যক্ত হওয়ার পাশাপাশি রেজাল্ট হয়নি উইন্ডিজ বনাম সাউথ আফ্রিকার ম্যাচে। এছাড়াও শ্রীলংকা বনাম আফগানিস্তানের ম্যাচটি বৃষ্টি আইনে নিস্পত্তি হয়েছে। ইংল্যান্ডে এ মৌসুমে বৃষ্টি নিয়মিত হওয়ায় পরিত্যক্ত, কোন রেজাল্ট না হওয়া এবং বৃষ্টি আইনে নিস্পত্তি হওয়া ম্যাচের সংখ্যা আরো বাড়তে পারে শেষ পর্যন্ত। বৃষ্টির প্রভাবে বিশ্বকাপ খানিকটা হলেও রং হারাচ্ছে।

বিশ্বকাপকে আকর্ষণীয় ও উপভোগ্য করে তোলার পাশাপাশি আইসিসি ব্যবসায়িক দৃষ্টিভঙ্গি থেকে ১৬, ১৪ বা ১২ দলের পরিবর্তে মাত্র ১০ দলকে নিয়ে বিশ্বকাপ আয়োজন করলেও প্রকৃতি সফল হতে দেয়নি আইসিসির এ উদ্যোগ। বিশ্বকাপে ছোট দল থাকায় অনেক ম্যাচ একপেশে হবে, স্পন্সর আগ্রহ কম থাকে, বড় দলগুলোর পরাজয়ের শংকা থাকে, বড়দলগুলো পরাজিত হলে বিশ্বকাপের আকর্ষণ কমে যায়। এসব থেকে পরিত্রাণের জন্যই ছোট দলগুলোকে খেলার সুযোগ না করে দিলেও ইতিমধ্যেই একপেশে হয়েছে উইন্ডিজ বনাম পাকিস্তান ও নিউজিল্যান্ড বনাম শ্রীলংকার ম্যাচ। পাশাপাশি বৃষ্টির কারনে অনেক ম্যাচ মাঠে না গড়ানোয় এবং এক ম্যাচ মাত্র কয়েক ওভার খেলা হওয়ায় আইসিসির ব্যবসায়িক পলিসিও মার খাচ্ছে দারুন ভাবে এবং সামনে আরো ম্যাচ পরিত্যক্ত বা অল্প ওভার খেলা হওয়ায় সে লস অব্যাহত থাকবে।

আইসিসির লাভ ক্ষতির পাশাপাশি বিশ্বকাপে অংশগ্রহণকারী দল এবং সেমিফাইনাল খেলার স্বপ্ন দেখাগুলোর ম্যাচ পরিত্যক্ত হওয়ায় লড়াই করা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে অনেক দল, যার ফলে স্বপ্নভঙ্গের শংকা অনেক দলের। আবার তুলনামূলক দুর্বল দলও বৃষ্টির কারনে ম্যাচ পরিত্যক্ত হওয়ায় ১ পয়েন্ট অর্জন করে পয়েন্টের লড়াইয়ে টিকে থাকছে।

বিশ্বকাপে অব্যাহত বৃষ্টি নিয়ে সমালোচনা হচ্ছে ব্যাপক ভাবে। তবে এ থেকে পরিত্রাণের কোন সুযোগ নেই আপাতত। সেমিফাইনাল ও ফাইনাল ব্যতীত রিজার্ভ ডে রাখা হয়নি। কেনো সব ম্যাচে রিজার্ভ ডে রাখা হয়নি তা নিয়ে আলোচনা সমালোচনা চললেও সেসব আর গুরুত্ববহন করে না এখন, বৃষ্টির কারনে ম্যাচ পরিত্যক্ত হবে, রেজাল্ট আসবে না বা কার্টেল ওভারের ম্যাচে হিসাব নিকাশ পাল্টে যাবে এসব পরিণতির কথা মাথায় রেখেই খেলতে হচ্ছে দলগুলোকে।

বিশ্বকাপের সময়সূচী অনেক আগেই নির্ধারণ করা হয়। ইংল্যান্ডে এ মৌসুমে নিয়মিত বৃষ্টি হবে তা জানার পরও কেনো এই মৌসুমে বিশ্বকাপ আয়োজন করা হয়েছে তার কোন সঠিক ব্যাখ্যা আইসিসি না দিলেও ধারণা করা যায়, আইপিএলের সময়সূচী এবং অন্যান্য সিরিজগুলোর সময়সূচী, সর্বোপরি বলা যায় প্রভাবশালী দলগুলোর ঘরোয়া টুর্নামেন্টের সময় ঠিক রাখতে বৃষ্টির মৌসুমেই আয়োজন করতে বাধ্য হয়েছে আইসিসি।

সাম্প্রতিক সময়ের পারফরম্যান্সের উপর ভিত্তি করে শ্রীলংকাকে বাংলাদেশ দল হারাবে এবং সেমিফাইনাল খেলতে শ্রীলংকার সাথে ম্যাচটি গুরুত্বপূর্ণ অনেক, এমন ভাবনার মধ্যেই বৃষ্টির কারনে পিছিয়ে গেছে টাইগাররা, যদিও বাংলাদেশ জিততোই তা নিশ্চিত করে বলা না গেলেও ম্যাচটি হলে অন্তত আফসোস থাকতো না, এখন যতটা আফসোস হচ্ছে বৃষ্টির কারনে পরিত্যক্ত হওয়ায়।

শুধু বাংলাদেশই নয়, বৃষ্টির কারনে অনেক দলের হিসাব নিকাশই পাল্টে যাচ্ছে। যা অব্যাহত থাকবে ফাইনাল পর্যন্ত। ফলে সব ছাপিয়ে বিশ্বকাপের নায়ক এখন বৃষ্টি। বিশ্বকাপে বৃষ্টি নিয়ে ক্রিকেটপ্রেমীদের হতাশার পাশাপাশি রসিকতারও শেষ নেই। বৃষ্টিতে ম্যাচ ভেসে যাওয়ায় টিকেট কেটে খেলা দেখতে যাওয়া মানুষগুলোর স্বপ্নভঙ্গ হওয়ার পাশাপাশি টিভি সেটের সামনে বসে খেলা দেখতে আগ্রহী হয়ে থাকা মানুষগুলোর স্বপ্নভঙ্গ হচ্ছে, সেই সাথে অংশগ্রহণকারী দল, স্পন্সর সহ সংশ্লিষ্ট সকলের স্বার্থের হানি ঘটছে বৃষ্টির কারনে, যা ১০ দলকে নিয়ে আয়োজিত বিশ্বকাপকে আকর্ষণীয় ও উপভোগ্য করার বিপরীত হয়।

ফুটবল বিশ্বকাপ যেখানে ৪৮ দলকে নিয়ে আয়োজনের কথা চলছে সেখানে ২০০৭ সালে ১৬ দলকে নিয়ে ক্রিকেট বিশ্বকাপ হওয়ার বিপরীতে ২০১১ সাল থেকে দলের সংখ্যা কমছেই ক্রিকেট বিশ্বকাপে। ২০১১ সালে ১৪ ও ২০১৫ সালে ১২ দলকে নিয়ে বিশ্বকাপ আয়োজনের বিপরীতে চলতি বিশ্বকাপ হচ্ছে মাত্র ১০ দলের। নামে আকর্ষণীয় ও অর্থরোজগারের জন্য দল কমিয়ে বিশ্বকাপ আয়োজনের উদ্দেশ্য কিছুটা হলেও ব্যাহত হয়েছে চলতি বিশ্বকাপে, তা সন্দেহাতীত ভাবেই বলা যায়। প্রকৃতিই যেনো জবাব দিয়েছে জিম্বাবুয়ে, আয়ারল্যান্ড ও অন্যান্য দলগুলোর হয়ে।

-শিক্ষার্থী, ডিপ্লোমা ইন জার্নালিজম,

বাংলাদেশ ইন্সটিটিউট অব জার্নালিজম অ্যান্ড ইলেকট্রনিক মিডিয়া (বিজেম)

আর পড়তে পারেন