বুধবার, ২৬শে জুন, ২০১৯ ইং

৫৬০টি মডেল মসজিদ ও ইসলামিক সাংস্কৃতিক কেন্দ্র নির্মাণ প্রকল্প সফল হোক

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুন ১৩, ২০১৯
news-image

 

জুবায়ের আহমেদঃ
পবিত্র ইসলাম ধর্মের অনুসারী মুসলিমদের দৈনন্দিন ইবাদত-বন্দেগি, ইসলামী বিধি বিধান শিক্ষা, ইসলাম প্রচার, ইসলামী সমাজ গঠনের জন্য মসজিদের ভূমিকা অপরিসীম। সাধারণ মানুষের মাঝে ইসলামের বানী ছড়িয়ে দেওয়ার জন্য, মানুষে মানুষে ঝগড়া বিভেদ দূর করার জন্যও মসজিদের ভূমিকা সবচেয়ে বেশি। কেননা মসজিদ ভ্রাতৃত্বের বন্ধন অটুট রাখে ও ধনী গরীবকে এককাতারে আনে। শত্র“র সাথেও কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে নামাজ আদায়ের স্থান হলো মসজিদ, যেখানে ইবাদাতের জন্য পা রেখে মানুষ মুহুর্তের মধ্যেই ভুলে যায় শত্র“তা, বিদ্বেষ, ঘৃণা। ভ্রাতৃত্বপূর্ণ সমাজ গঠনেও ভূমিকা রাখে মসজিদ। পবিত্র কোরআনের সুরা আল ইমরানের ৯৬ নং আয়াতে বলা হয়েছে “মানবজাতির জন্য সর্বপ্রথম যে ঘর প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল তা বাক্কায় (মক্কায়) অবস্থিত, আর এ ঘর বরকতময় এবং বিশ্ববাসীর জন্য পথ প্রদর্শক”।

বাংলাদেশের সিংহভাগ নাগরিকই ইসলাম ধর্মের অনুসারী মুসলিম। ফলে স্বাভাবিক ভাবেই সারা দেশে হাজার হাজার মসজিদ বিদ্যমান, যা এলাকাবাসীর নিজস্ব অর্থায়ন সহ দেশ বিদেশের অনুদানে নির্মাণ হয়। ইতিমধ্যে সারা দেশে বিদ্যমান মসজিদগুলোর অধিকাংশের মধ্যেই নেই ইসলামী পাঠাগার, মুসাফিরখানা। নেই পরামর্শকেন্দ্র, মুসাফিরখানা, দাতব্য চিকিৎসাকেন্দ্র। আধুনিক স্থাপনা ও সুবিধা সম্বলিত মসজিদের সংখ্যা বাংলাদেশে নেই বললেই চলে।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন সরকার ২০১৪ সালের নির্বাচনী ইশতেহারে সারা দেশের প্রতিটি জেলা উপজেলায় মডেল মসজিদ নির্মাণের ঘোষণা দিয়েছিলেন। এ ঘোষণা বাস্তবায়নের উদ্দেশ্যে ৮ই ফেব্র“য়ারী ২০১৫ইং তারিখে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী নির্দেশনা প্রদান করেন যে, দেশের প্রতিটি জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে একটি করে মডেল মসজিদ নির্মাণ করতে হবে যেখানে লাইব্রেরি, গবেষণা কক্ষ, ইসলামিক সাংস্কৃতিক কার্যক্রম, শিশু শিক্ষা কার্যক্রম, পুরুষ ও মহিলাদের পৃথক নামাজ কক্ষ, প্রতিবন্ধী ও অসুস্থ মুসল্লীদের জন্য মেহমানদের আবাসন ব্যবস্থা, বিদেশী পর্যটকদের পরিদর্শনের ব্যবস্থা, হজযাত্রীদের প্রশিক্ষণ কার্যক্রম ইত্যাদি থাকবে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা অনুযায়ী “প্রতিটি জেলা ও উপজেলায় একটি করে ৫৬০টি মডেল মসজিদ ও ইসলামিক সাংস্কৃতিক কেন্দ্র নির্মাণ” শীর্ষক প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছে এবং উক্ত প্রকল্প বাস্তবায়ন করার দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে ইসলামিক ফাউন্ডেশনকে, নির্মাণকারী সংস্থার দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে গণপূর্ত অধিদপ্তরকে, এ প্রকল্পের প্রাক্কালন ব্যয় ৮ হাজার ৭২২ কোটি টাকা ধরা হয়েছে, যার পুরোটাই ব্যয় করবে বাংলাদেশ সরকার। নির্মাণাধীন সময় ধরা হয়েছে ডিসেম্বর ২০১৭ থেকে ২০২২ সাল পর্যন্ত। প্রতিবন্ধী ও অসুস্থ মুসল্লিদের জন্য আলাদা র‌্যাম্প থাকবে। ইসলামিক ফাউন্ডেশনের জেলা ও উপজেলা পর্যায়ের অফিস, গবেষণা ও দাওয়াহ কার্যক্রম, লাইব্রেরি, কনফারেন্স হল, পবিত্র কোরআন পাঠ, নারী পুরুষের পৃথক অজুখানা, মৃতদেহ গোসলের ব্যবস্থা ও ইমাম প্রশিক্ষণ সহ নানাবিধ সুযোগ সুবিধা থাকবে মডেল মসজিদগুলোতে।

সরকার কর্তৃক এমন কার্যক্রম গ্রহণের ফলে সারা দেশের ধর্মপ্রাণ মুসলিমদের মধ্যে আনন্দের জোয়ার বইছে। এ সরকার ধর্মপ্রাণ, ইসলামে রীতিনীতি পালন ও প্রচারে আগ্রহী এবং সর্বোপরি ইসলামের কল্যাণে নিবেদিত প্রাণ তাই মনে করছে মুসলিমরা। উল্লেখিত সুযোগ সুবিধাদি সহ আরো বহু সুযোগ সুবিধাসম্বলিত এতো মডেল মসজিদ নির্মাণ নিঃসন্দেহে বাংলাদেশের ইসলামের ইতিহাসে অনন্য অর্জন। এ প্রকল্প বাস্তবায়ন হলে তা যুগান্তরকারী সাফল্য হয়ে থাকবে বাংলাদেশের ইতিহাসে।

সারা দেশে বর্তমানে বিদ্যমান মসজিদগুলোর মধ্যে বিশেষ করে, গ্রাম অঞ্চলের মসজিদগুলোতে ইমাম মোয়াজ্জিনের বেতন সীমিত, যা দিয়ে তাদের সংসার চলছে অনেক কষ্টে। এক এলাকা থেকে অন্য এলাকায় গমনের মাধ্যমে ইমাম সাহেবরা দৈনন্দিন পাঁচওয়াক্ত নামাজে ইমামতি সহ মক্তব ও অন্যান্য মসজিদভিত্তিক কার্যক্রমে নিয়োজিত থাকায় তাদের অন্য কোন আয়ের উৎস নেই, ফলে অধিকাংশ ইমাম সাহেবরাই মানবেতর জীবন যাপন করছে সারাদেশে। এই অবস্থায় গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর এমন মহতি কার্যক্রমের মাধ্যমে মুসলমাদের ধর্মীয় প্রধান স্থাপনা মসজিদ নির্মাণ, মসজিদভিত্তিক আদর্শ সমাজ গঠন, ইসলামী শিক্ষা গ্রহণ, ধর্মীয় কুসংস্কার বর্জন, জঙ্গীবাধ নির্মুলে এগিয়ে আসা, ধর্ম নিয়ে বাড়াবাড়ি বন্ধ করা, আলেম ওলামা সহ ইসলামী ব্যক্তিত্বদের শুদ্ধ ইসলামিক চর্চা ও গবেষণার দ্বার উম্মুক্ত হওয়া, মানুষের মাঝে ধর্মের প্রকৃত শিক্ষা ছড়িয়ে দেওয়ার পাশাপাশি ইসলামী শিক্ষায় শিক্ষিত তরুনদের কর্মসংস্থান হবে আশাতীত।
উক্ত প্রকল্পের অধীনে আপাতত একটি উপজেলায় শুধুমাত্র একটি মসজিদ নির্মাণ হলেও সরকারী অর্থায়নে ও ব্যবস্থাধীনে নির্মিত ও পরিচালিত এ মসজিদগুলোতে সারা উপজেলার ধর্মপ্রাণ মুসলিমরা ইসলামি লাইব্রেরী ব্যবহার, ধাতব্য চিকিৎসা গ্রহণ, ইমাম প্রশিক্ষণ গ্রহণ সহ প্রকল্পে উল্লেখিত সার্বিক সুবিধাদি ভোগ করতে পারবে, আর বর্তমান প্রেক্ষাপটে অনেক নামধারী মুসলিম জঙ্গী কার্যক্রমে নিজেকে জড়িত করায় সাধারণ ধর্মপ্রাণ মুসলিমদেরও ভিন্ন দৃষ্টিতে দেখাও বন্ধ হবে কেননা, সরকারী অর্থায়নে নির্মিত ও পরিচালিত এ মসজিদগুলোতে ধর্মপ্রাণ মুসলমানরা ইসলাম চর্চা এবং ইসলাম প্রচার করতে আসলে তাতে ধরেই নেওয়া যাবে যে এখানে হবে না কোনো ধর্মবিদ্বেষী কাজ, হবে না জঙ্গীবাদের উত্থান। তবে এর পাশাপাশি এটাও খেয়াল রাখতে হবে যে, মসজিদে যেনো কোনো রাজনৈতিক প্রভাব বিস্তার না ঘটে, কেননা রাজনৈতিক প্রভাবে মসজিদ নির্মাণের আসল উদ্দেশ্য ব্যাহত হওয়ার সম্ভাবনা থাকছেই, সংশ্লিষ্টদের এ বিষয়টিতেও দৃষ্টি সজাগ রাখতে হবে সবসময়।

আরো একটি বিষয় লক্ষনীয় ও উল্লেখ পয়োজন যে, এ প্রকল্প বাস্তবায়ন এবং পরবর্তীতেও সরকারী ভাবে মসজিদ নির্মাণ কার্যক্রম চলমান থাকলে প্রবাসে থাকা মুসলিমরা সংশ্লিষ্ট দেশে তাদের মালিক ও অন্যান্যদের থেকে ব্যক্তি উদ্যোগে অর্থগ্রহণের মাধ্যমে নিজ এলাকায় মসজিদ নির্মাণের প্রবণতাও কমে যাবে। বর্তমান সরকারের অধীনে বাংলাদেশ একটি উন্নয়নশীল দেশ হিসেবে এগিয়ে যাচ্ছে দুর্বার গতিতে। সরকার কর্তৃক ধর্মীয় কিংবা যেকোন সামাজিক উন্নয়নমূলক কর্মকান্ড নিয়মিত পরিচালনা ও বাস্তবায়ন হলে আস্থা তৈরী হবে সরকারের প্রতি। সরকারই প্রয়োজনে অনুদান গ্রহণের মাধ্যমে ধর্মীয় কিংবা দেশের যেকোন প্রয়োজন মেটাবে। “প্রতিটি জেলা ও উপজেলায় একটি করে ৫৬০টি মডেল মসজিদ ও ইসলামিক সাংস্কৃতিক কেন্দ্র নির্মাণ” শীর্ষক প্রকল্প বাস্তবায়ন হলে এবং পরবর্তীতেও এ কার্যক্রম চলমান থাকলে ব্যক্তি উদ্যোগে দেশের আভ্যন্তরীন বিষয়ে বিদেশীদের থেকে অর্থ গ্রহণের প্রবণতাও কমতে শুরু করবে যা হতে পারে বিদেশের মাটিতে বাংলাদেশ ও সরকারের ভাবমূর্তি উজ্জ্বলের দৃষ্টান্ত।

পরিশেষে স্বাধীন বাংলাদেশের স্থপতি বাঙ্গালী জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সুযোগ্য কন্যা গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশিত “প্রতিটি জেলা ও উপজেলায় একটি করে ৫৬০টি মডেল মসজিদ ও ইসলামিক সাংস্কৃতিক কেন্দ্র নির্মাণ” প্রকল্প ঘোষণা অনুযায়ী নির্ধারিত সময়েই সম্পন্ন হবে এবং পরবর্তীতে আধুনিক সুযোগ সুবিধা সম্বলিত আরো বহু মডেল মসজিদ নির্মাণ করা হবে, ইসলামের বাণী সকলের কাছে পৌঁছে দেওয়া, ধর্মীয় কুসংস্কার পরিহার, ইসলামী শিক্ষায় শিক্ষিতদের কর্মসংস্থান এবং মূল্যায়ণ সহ সর্বোপরি ইসলামের সার্বিক কল্যাণে এ সরকার এগিয়ে আসবে এবং অন্যান্য ধর্মগুলোর অনুসারীরাও যেনো শান্তিপূর্ণ ভাবে নিজ নিজ ধর্ম পালন করতে পারার পূর্ণ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয় সে আশাবাদ ব্যক্ত করছি।

লেখকঃ

শিক্ষার্থী, ডিপ্লোমা ইন জার্নালিজম,

বাংলাদেশ ইন্সটিটিউট অব জার্নালিজম অ্যান্ড ইলেকট্রনিক মিডিয়া (বিজেম)

আর পড়তে পারেন