বুধবার, ১৯শে জুন, ২০১৯ ইং

তিতাসে দফায় দফায় হামলা ভাংচুর ও লুটপাট

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুন ১১, ২০১৯
news-image

 

স্টাফ রিপোর্টার :

কুমিল্লার তিতাসে টাকা লেনদেনকে কেন্দ্র করে ২০টি বাড়িতে দুইদিন যাবৎ দফায় দফায় হামলা, ভাংচুর ও লুটপাটের ঘটনা ঘটেছে।

সোমবার ও মঙ্গলবার উপজেলার নয়াকান্দি গ্রামের মধ্যপাড়ায় রমজান মিয়ার বাড়িতে এ ঘটনায় উভয় পক্ষের ৬জন আহত হয়েছে। ১৫টি পরিবার পুরুষ শুণ্য।

এলাকায় থমথমে ভাব বিরাজ করায় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে পুলিশ মোতায়েন করেছে প্রশাসন।

সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, তিতাস উপজেলার নারান্দিয়া উইনিয়নের নয়াকান্দি গ্রামের মধ্যপাড়ার রমজান আলীর ছোট ভাই সিপনের সাথে উপজেলার কদমতলী গ্রামের সুবেদ আলীর ছেলে আইয়ুব আলীর সাথে মালয়েশিয়ায় থাকাকালীন প্রায় ৩৫লাখ টাকা ব্যবসায়িক লেনদেন হয় বলে রমজান আলী জানায়।

টাকা লেনদেনের পর থেকে আইয়ুব আলী গা-ঢাকা দেয়। দীর্ঘদিন পর সোমবার (১০ জুন) সকালে আইয়ুব আলী তার বোন নাজমার শশুর বাড়ি নয়াকান্দি পূর্বপাড়া বেড়াতে আসে। সিপন আইয়ুবকে পেয়ে টাকার বিষয়টি ফয়সালা করার জন্য বললে নাজমার স্বামী ছাইদুল ও তার বাড়ির লোকজনের সাথে কথা কাটাকাটি হয়।

এর রেষ ধরে ওই বিকেলে উভয় পক্ষের মধ্যে দফায় দফায় সংঘর্ষে উভয় পক্ষের ছয়জন আহত হয়। এর মধ্যে আহত শামীম(৩৩) ও মাসুদুর রহমান(১৬) কে আশংকাজন অবস্থায় ঢাকায় প্রেরণ করা হয়।

হামলার ঘটনায় সোমবার (১০ জুন) রাতেই নাজমা আক্তার ও আমীর হোসেন বাদি হয়ে তিতাস থানায় পৃথক দু’টি মামলা করেন। দু’টি মামলায় রমজানকেসহ ৩৯জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত ২০জন রাখা হয়। রাতেই পুলিশ ৩জনকে আটক করলে অন্যরা ভয়ে পালিয়ে যায়

ফলে পুরুষ শুণ্য হয়ে যায় রমজান, দিলু মিয়া, হালিম, ওসমানসহ ১৫টি পরিবার। পরদিন সকালে ফাকা বাড়ীতে হামলা, ভাংচুর ও লুটপাট চালায় ছাইদুল ও তার লোকজন। তাদের ভয়ে বাড়ীঘর ফেলে মহিলারা পালিয়ে যায়। পুলিশ আসার পর মহিলারা বাড়িতে আসে।

ক্ষতিগ্রস্ত রমজানের বোন ছেনোয়ারা জানান, মঙ্গলবার(১১ জুন) সকালে আবদি মেম্বারের ছেলে রিয়াজুল, আজহারুল, ফজলু মিয়ার ছেলে নুর আলম, ইয়াকুবের ছেলে আমীর হোসেনরা ২৫/৩০ এসে আমাদের বাড়িতে হামলা চালায়। বড় বড় ছুরি, কুড়াল দিয়ে কুপিয়ে ঘরের বেড়ার টিন, সোকেস আলমারী ভেঙ্গে টাকা পয়সা, স্বর্ণ গয়না সব নিয়ে গেছে। কোরবানী ঈদে বিক্রীর জন্য রাখা ১৬টি গরু নিয়ে গেছে। এখন আমাদের বাড়ির সব গোয়াল ঘর গুলো ফাকা।

প্রত্যক্ষদর্শী মসজিদের ইমাম মাওলানা মুজিবুর রহমান বলেন, মন্টু মিয়া, মাইন উদ্দিন ও ইসরাফিলের বাড়ির দিকে লোকজন দৌড়াইয়া আসতে দেখে আমিও সেখানে যাই। এসেই তারা ঘরে ঢুকে হাড়িপাতিল উঠানে ছুড়ে ফেলে আর ভাংচুরের আওয়াজ শুনতে পাই। হামলাকারী আজহারুল ও রিয়াজুলকে ছাড়া অন্যদের চিনিনা। যাওয়ার সময় তারা বাছুরসহ ৭টি গরু নিয়ে যায়।

দু’টি মামলার তদন্তকারী তিতাস থানার উপ-পরিদর্শক মধুসুদন জানান, সোমবার(১০ জুন) রাতে নাজমা ও আমীর হোসেন পৃথক দু’টি অভিযোগের ভিত্তিতে ডালিম, ইখতার ও উজ্জল নামে তিনজনকে আটক করা হয়েছে।

মঙ্গলবার(১১ জুন) সকালে হামলা, ভাংচুর ও গাভিসহ লুটপাটের ঘটনাকে সাজানো ও মিথ্যা বলে দাবী করেন।

ওসি সৈয়দ আহসানুল ইসলাম বলেন, মঙ্গলবার সকালে হামলা ভাংচুরের খবর পাইছি, তবে গাভি লুটপাটের ব্যাপারে তদন্ত চলছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে ওই গ্রামে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

আর পড়তে পারেন