বুধবার, ১৯শে জুন, ২০১৯ ইং

আন্তর্জাতিক অঙ্গনে রোনালদোর ডাবল, মেসির হাত শূণ্য

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুন ১০, ২০১৯
news-image

স্পোর্টস ডেস্ক :

রবিবার (৯ জুন) রাতে নেদারল্যান্ডসকে ১-০ গোলে হারিয়ে উয়েফা নেশনস লিগের শিরোপা জিতেছে পর্তুগাল। ২০১৬ সালে ইউরো জেতার পর পর্তুগালের জার্সি গায়ে এটি ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোর দ্বিতীয় আন্তর্জাতিক ট্রফি। নেশনস লিগ ইউরোর মতো বড় কিছু না হলেও এটি তো আন্তর্জাতিক টুর্নামেন্টই। এর মাধ্যমে আরেকটি ট্রফি জিতে রোনালদো তাঁর প্রবল প্রতিদ্বন্দ্বী লিওনেল মেসির সঙ্গে আন্তর্জাতিক ট্রফি জয়ে ২-০ ব্যবধানে এগিয়ে গেলেন।

বিশ্ব ফুটবলকে মেসি ও রোনালদো কী কী দিয়েছেন, সেটা নিয়ে কথা বলা বাহুল্য ছাড়া কিছুই নয়। উল্টো প্রশ্ন আসতে পারে, ফুটবলকে এই দুই মহারথী যা দিয়েছেন, ফুটবল কি তাদের সে ঋণ মেটাতে পেরেছে? তিন বছর আগেও বলা যেত, না, পারেনি। তত দিন পর্যন্ত ফুটবলের দুই মহাতারকার আন্তর্জাতিক ট্রফির ভান্ডার ছিল শূন্য।

কিন্তু গত তিন বছরে ভাগ্য ফিরে তাকিয়েছে রোনালদোর দিকে। তিনি ইউরো জিতেছেন, দেশের হয়ে। কাল জিতলেন ইউরোপিয়ান নেশনস লিগের শিরোপা। রোনালদোর হাতে দুটি আন্তর্জাতিক ট্রফি দেখে মেসির কি একটু হলেও ঈর্ষা জাগে না?

২০১৬ সালে ইউরো জয়ের সঙ্গে ইউরোপীয় নেশনস লিগের শিরোপার তুলনা টানলে হবে না। ইউরো পৃথিবীর দ্বিতীয় সেরা আন্তর্জাতিক ফুটবল প্রতিযোগিতা, বিশ্বকাপের পরপরই। সে ইউরোর ফাইনালে ফেবারিট ফ্রান্সকে হারিয়ে অপ্রত্যাশিতভাবে শিরোপা জয়ের আনন্দ, সম্মানটাই অন্য রকম। নেশনস লিগ এবারই প্রথম শুরু হওয়া টুর্নামেন্ট। ইউরোপের দ্বিতীয় সেরা আন্তর্জাতিক টুর্নামেন্ট। এর ট্রফি আন্তর্জাতিক ট্রফিই। কাল নেদারল্যান্ডস হারিয়ে রোনালদোর দল হাতে তুলল ইউরোপের আরেকটি সম্মান।

অন্যদিকে জাতীয় দলের হয়ে মেসির অর্জনের ভান্ডার এখনো শূন্য। তিনবার কোপা আমেরিকা ও একবার বিশ্বকাপের ফাইনালে উঠেও মেসিদের সহ্য করতে হয়েছে শিরোপা হারানোর যন্ত্রণা। চোখের সামনে অন্য দলের খেলোয়াড়দের শিরোপা নিয়ে উল্লাস করতে দেখেছেন। গোটা ক্যারিয়ারে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী রোনালদোর সঙ্গে সমানে সমান টক্কর দিলেও এই এক জায়গায় আক্ষরিক অর্থেই পিছিয়ে পড়েছেন মেসি। এগিয়ে গেছেন পর্তুগিজ রাজপুত্র।

অথচ আর্জেন্টিনা দলে নামকরা তারকাদের উপস্থিতি দেখলে যে–কেউই বলবে, শিরোপা জেতার কথা ছিল আর্জেন্টিনারই। বরং পর্তুগালেরই শিরোপাহীন থাকার কথা ছিল। সাধারণ মানের একটা দলের অসাধারণ খেলোয়াড় ছিলেন রোনালদো। একসময় উত্তর আয়ারল্যান্ডের যেমন ছিলেন জর্জ বেস্ট বা রোমানিয়ার গিওর্গি হ্যাগি, ওয়েলসের গ্যারেথ বেল কিংবা সুইডেনের জ্লাতান ইব্রাহিমোভিচ। কিন্তু তিন বছর ধরে পর্তুগাল দলের যে অভাবনীয় উন্নতি হয়েছে, সে উন্নতি সব পূর্বানুমানকে ভুল প্রমাণ করে দিয়েছে।

আন্তর্জাতিক অঙ্গনে এখন মেসির চেয়ে তাই রোনালদোই এগিয়ে। রোনালদোকে টপকানো দূরে থাক, স্পর্শ করতে হলেও ক্যারিয়ারের শেষবেলায় এসে এখন মেসিকে আর্জেন্টিনার হয়ে কোপা আমেরিকা আর বিশ্বকাপ জিতে দেখাতে হবে। মেসি কি পারবেন?

আর পড়তে পারেন