শনিবার, ১৭ই আগস্ট, ২০১৯ ইং

ঈদের দিনে দেশজুড়ে ৮টি সড়ক দুঘর্টনায় প্রাণ গেল ২০ জনের

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুন ৫, ২০১৯
news-image

ডেক্স রিপোর্টঃ

ঈদের দিনে (বুধবার, ৫ জুন) সড়ক দুর্ঘটনায় ফরিদপুর, লালমনিরহাট, ঝিনাইদহ, আশুলিয়া, নরসিংদী, পঞ্চগড়, নেত্রকোণা ও টাঙ্গাইলে অন্তত ২০ জন নিহত হয়েছে। আহত হয়েছে বেশ কয়েকজন।

ঢাকা থেকে চুয়াডাঙ্গাগামী এ কে ট্রাভেলস বাস ভোরে ফরিদপুরের ধুলদী রেলগেট এলাকায় পৌঁছালে চালক নিয়ন্ত্রণ হারায়। গাছের সাথে ধাক্কা লাগে বাসটির। এতে ঘটনাস্থলে ৪ জন নিহত হয়। আহতদের উদ্ধার করে হাসপাতালে নেয়ার পর মারা যায় আরও ২ জন।

লালমনিরহাটের শিমলতলী বাজারে পিকআপ উল্টে ঘটনাস্থলে দুইজন এবং হাসপাতালে নেয়ার পর দু’জনের মৃত্যু হয়। আহত দশ জন। নিহতদের পরিচয় পাওয়া যায়নি।

নরসিংদী, ঝিনাইদহ, আশুলিয়া টাঙ্গাইল, নেত্রকোণা ও পঞ্চগড়ে আর ১০ জনের প্রাণ গেছে সড়কে।

ফরিদপুর
পবিত্র ঈদুল ফিতরের সকালে সড়ক দুর্ঘটনায় প্রাণ হারালেন পাঁচজন। এ সময় আহত হয়েছেন আরো অন্তত ২০ জন। বুধবার (৫ জুন) সকাল ৭টার দিকে ফরিদপুর সদর উপজেলায় ধুলদী রেলগেট এলাকায় একটি যাত্রীবাহী বাস নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে গাছের সঙ্গে ধাক্কা লেগে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের ফরিদপুরের সিনিয়র স্টেশন অফিসার মো. নুরুল আলম দুলাল জানান, এ কে ট্রাভেলসের বাসটি ঢাকা থেকে চুয়াডাঙ্গার দিকে যাচ্ছিল।
দুর্ঘটনায় ঘটনাস্থলেই চারজন নিহত হন। আহতদের উদ্ধার করে ফরিদপুর জেনারেল হাসপাতালে নেওয়ার পথে আরো একজন মারা যান। আহতদের মধ্যে ১৩ জনকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। বাসটি উদ্ধারে চেষ্টা চলছে।

লালমনিরহাট
লালমনিরহাটে যাত্রীবাহী লেগুনা নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে উল্টে তিন যাত্রী নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন আরও অন্তত আট জন। বুধবার (৫ জুন) সকালে রংপুর-কুড়িগ্রাম মহাসড়কের লালমনিরহাট সদর উপজেলার বড়বাড়ি স্মৃতিসৌধে এ দুর্ঘটনা ঘটে। তাৎক্ষণিকভাবে নিহতদের নাম-পরিচয় জানা যায়নি।

লালমনিরহাট সদর থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাহফুজ আলম বলেন, রংপুর থেকে ছেড়ে আসা কুড়িগ্রামগামী একটি যাত্রীবাহী লেগুনা নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে বড়বাড়ি স্মৃতিসৌধে ধাক্কা লেগে উল্টে যায়। এতে ঘটনাস্থলেই তিন জনের মৃত্যু হয়। এতে আহত হন অন্তত আট যাত্রী। আহতদের লালমনিরহাট সদর হাসপাতালসহ বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে বলে জানান তিনি।

ঝিনাইদহ
ঝিনাইদহের মহেশপুরে সড়ক দুর্ঘটনায় মোটরসাইকেলের দুই আরোহী নিহত ও অপর একজন গুরুতর আহত হয়েছেন। বুধবার সকাল সাড়ে ৯টার দিকে উপজেলার খোর্দ্দ-খালিশপুর নামক স্থানে এ দুর্ঘটনা ঘটে।
নিহতরা হলেন- কোটচাঁদপুর উপজেলার জগন্নাথপুর গ্রামের আলিম হোসেনের ছেলে বিপলু হোসেন (২০) এবং চুয়াডাঙ্গা জেলার জীবননগর উপজেলার রায়পুর গ্রামের আসাদুল ইসলামের ছেলে রানা (১৩)।

কোটচাঁদপুর ফায়ার সার্ভিসের সাব-স্টেশন অফিসার প্রদীপ মন্ডল জানান, সকালে কোটচাঁদপুর উপজেলার জগন্নাথপুর গ্রাম থেকে ওই তিন আরোহী মোটরসাইকেল যোগে খালিশপুর শহরের দিকে আসছিলেন। পথিমধ্যে খোর্দ্দ-খালিশপুর নামক স্থানে পৌঁছালে মোটরসাইকেলটি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে রাস্তার পাশে গাছের সঙ্গে ধাক্কা খায়। এতে তিনজনেই গুরুতর আহত হন। পরে তাদের উদ্ধার করে কোটচাঁদপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক বিপলু ও রানাকে মৃত ঘোষণা করেন। আহত ফিরোজ হোসেনকে উন্নত চিকিৎসার যশোর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

কোটচাঁদপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক ডা. শুভ্রাংশু সরকার জানান, তিনজনের মধ্যে দুইজন মারা গেছেন। অপরজনের অবস্থাও আশঙ্কাজনক। তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য যশোর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার করা হয়েছে।

দিনাজপুর
দিনাজপুরের রামডুবি এলাকায় বাসের ধাক্কায় দুই মোটরসাইকেল আরোহী নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন আরও একজন। মঙ্গলবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহতরা হলেন, সদর উপজেলার রানীগঞ্জের আটবাড়ী গ্রামের আজিজুল ইসলামের ছেলে সবুজ (২৩) ও একই এলাকার আব্দুল্লাহর ছেলে মমিনুল ইসলাম (২৪)।

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদশী সূত্রে জানা যায়, রাত সাড়ে ৮টার দিকে রামডুবি এলাকায় একটি দ্রুতগামী বাস পেছন থেকে সৈয়দপুরগামী ওই মোটরসাইকেলকে ধাক্কা দেয়। এতে ঘটনাস্থলেই মোটরসাইকেলের দুই আরোহীর মৃত্যু হয়। এ সময় আহত হন মোটরসাইকেলে থাকা আরও একজন। পরে পুলিশ মরদেহ উদ্ধার করে দিনাজপুর এম. আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠায়।

দিনাজপুর দশমাইল হাইওয়ে থানার পরিদর্শক (ওসি) শামসুল নুর ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, এই ঘটনায় একটি মামলা করা হবে।

আর পড়তে পারেন