রবিবার, ১৮ই আগস্ট, ২০১৯ ইং

কুমিল্লার মার্কেটগুলোতে খন্ডকালীন চাকরিতে শিক্ষার্থীরা

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুন ২, ২০১৯
news-image

 

সেলিম সজীবঃ
কুমিল্লায় রোজার সময় ঈদ বাজারে ক্রেতাদের বাড়তি চাপ সামাল দিতে এবার বিপণি বিতানগুলো তাদের প্রস্তুতিতে কোনো কমতি রাখেনি। এরই অংশ হিসেবে কুমিল্লা ভিআইপি মার্কেটগুলোতে বাড়তি বিক্রেতা (সেলস ম্যান) নিয়োগ দিয়েছেন দোকান মালিকরা। আর এসব নিয়োগের ক্ষেত্রে সুদর্শন ছাত্রছাত্রীদের প্রাধান্য দেয়া হয়েছে। ফলে বিপণি বিতানগুলোতে গেলেই এখন চোখে পড়ছে তরুণ-তরুণী বিক্রয় কর্মীদের।

তারা প্রথমেই ক্রেতাদের স্বাগত জানিয়ে বলছেন, ‘স্যার আসুন, কী লাগবে দেখুন। গতকালই বাজারে এসেছে এই মডেলটি। এটি দেখতে পারেন। ওই যে লাল রঙের যেটি দেখছেন ওটাও চলছে ভীষণভাবে। এ ছাড়া এদিকটাও দেখতে পারেন।

‘ কান্দিরপাড় সাত্তার খান শপিং মল একটি জুতা শো-রুমে তাদের একজনের নাম রাসেল। তিনি ভিক্টোরিয়া কলেজের কলেজের প্রথম বর্ষের বিবিএর ছাত্র। রমজান উপলক্ষে কর্তৃপক্ষ তাকে এক মাসের জন্য নিয়োগ দিয়েছে। রমজান মাসে ক্লাস-পরীক্ষা নেই। বাড়িতে গিয়েও কোনো কাজ নেই। তাই ছুটির এ সময়কে কাজে লাগাতে এক মাসের জন্য এখানে কাজ করছেন তিনি।

রাসেল জানান, রমজান মাস, পড়াশোনার চাপ না থাকা এবং আর্থিক প্রয়োজন দুটিকেই সামনে রেখে তিনি এখানে খ-কালীন কাজে যোগদান করেছেন। পাশের আরেকটি কক্ষে ক্রেতাদের পছন্দসই জিনিস দেখাচ্ছিলেন, কুমিল্লা বিবির বাজারের শুভ তিনি ভিক্টোরিয়া কলেজের সমাজকল্যাণ বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র।

সরল চেহারার এ শুভ আজকের কুমিল্লাকে বলেন, গত কয়েকদিনের কাজে তার নানা ধরনের অভিজ্ঞতা হয়েছে। বিশেষ করে বড়দের সঙ্গে কীভাবে একসঙ্গে কাজ করতে হয়, কীভাবে বিভিন্ন মানুষের চাহিদা বুঝে তাদের সেবা দিতে হয় এসব বিষয়ে গুরম্নত্বপূর্ণ অভিজ্ঞতা হচ্ছে তার। যা তাকে আগামীদিনে ভীষণভাবে সহায়তা করবে। ঈদ বাজারে রাসেল , শুভ যেমন আছেন তেমনি আছেন নারী শিক্ষার্থীরাও। রয়েছেন কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া ছাত্রীরাও। নিজেদের সর্বসাধ্য উজাড় করে তারা ক্রেতাদের সেবা দিয়ে যাচ্ছেন।

শুভ জানায়, শুধু আর্থিক প্রয়োজনেই নয়, অবসর সময়কে সুন্দর একটি অভিজ্ঞতার মধ্য দিয়ে পার করতেই পড়াশোনার ফাঁকে এ কাজ করা। আর মিতু জানায়, সম্পূর্ণ ব্যক্তিগত আগ্রহ থেকেই সে এসেছে। ক্রেতারাও বলছেন, তরম্নণ বিক্রেতাদের পেয়ে তারাও সন্তুষ্ট। বিশেষ করে এসব শিক্ষার্থী বিক্রেতাদের ব্যবহারে তারা ভীষণ খুশি। আবার অনেকে একে পশ্চিমা বিভিন্ন দেশের সঙ্গে তুলনা করে বলেন, উন্নত জাতির লোকরাও তাদের সন্ত্মানদের অবসরে ছোটখাটো কাজ করিয়ে অভিজ্ঞতার ঝুড়ি ভারী করান। কুমিল্লায় শিক্ষার্থীরাও এ ধরনের কাজে নিজেদের নিয়োজিত করে যে অভিজ্ঞতা অর্জন করবে তা তাদের পরবর্তী জীবনে অনেক কাজে দেবে। ঈদে পরিবারের ওপর চাপ কমানোর পাশাপাশি নিজেদের অভিজ্ঞতার ঝুলিটাকে আরেকটু ভারী করতেই তাদের এ কাজে যোগদান।

একই সঙ্গে বিপণি বিতাণের মালিক বা তাদের প্রতিনিধিরাও সুদর্শন, কর্মঠ, চঞ্চল এসব বিক্রেতাকে পেয়ে দারম্নণ খুশি। এমনই একজন খন্দকার শফিং কমপলেক্স দোকানি মো. আবুল কালাম আজাদ আজকের কুমিল্লাকে বলেন, ‘প্রতি বছরই ঈদের সময় বিশেষ করে রোজার ঈদে বাড়তি বিক্রেতার প্রয়োজন হয়। পুরো একমাস ধরে ক্রেতাদের বাড়তি চাপ থাকে। এ চাপ সামাল দিতে এ সময় বাড়তি লোকও নিয়োগ দিতে হয়। আমরা সবাইকেই নিয়োগ দিই। কিন্তু চেষ্টা করি ছাত্রছাত্রীদেরই অগ্রাধিকার দিতে।

কারণ তারা খুবই চঞ্চল এবং ক্রেতারাও এমন টগবগে তরম্নণ-তরম্নণীদের পছন্দ করেন। তাদের চাহিদা মাথায় রেখে আমরাও শিক্ষার্থীদের প্রথমে বেছে নিই। তবে এসব শিক্ষার্থীর যদি কেউ পরে স্থায়ীভাবে কাজ করতে চান তবে তাদের সে সুযোগও দেয়া হয়।’ এসব শিক্ষার্থী ও দোকান কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, খ-কালীন কাজ করা এসব বিক্রেতা মাসে ৮ হাজার থেকে ১৫ হাজার টাকা পর্যন্ত্ম বেতন পেয়ে থাকেন। অফিস টাইম সাধারণত দুপুর ১২টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত্ম। দোকানভেদে সময় ও বেতনের ভিন্নতাও রয়েছে।

আর পড়তে পারেন