রবিবার, ১৭ই আগস্ট, ২০১৯ ইং

‘স্থায়ীত্বশীল উন্নয়ন অভিযাত্রায় কাউকে পেছনে রেখে নয়’ শীর্ষক প্রাক-বাজেট নাগরিক সংলাপ অনুষ্ঠিত

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
জুন ১, ২০১৯
news-image

 

স্টাফ রিপোর্টারঃ
”জাতীয় বাজেট অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি আর্থিক দলিল যা গণমানুষের আশা-আকাক্সক্ষা, অধিকার ও স্থায়ীত্বশীল উন্নয়নের অঙ্গীকার সমৃদ্ধ বার্ষিক আয়-ব্যয় পরিকল্পনা। জনঅংশগ্রহণ ও অর্ন্তভূক্তিমূলক বাজেট প্রণয়ন প্রক্রিয়া নাগরিক সমাজের মতামত দিয়ে সমৃদ্ধ ও সম্পূর্ণ হয়। বাংলাদেশের বাজেট প্রণয়ন প্রক্রিয়া কেন্দ্রিভূত। প্রকৃত পক্ষে জনঅংশগ্রহণমূলক বাজেট প্রণয়ন করতে হলে বাজেট প্রণয়ন প্রক্রিয়াকে বিকেন্দ্রীকরণ করতে হবে। সেজন্য অবিলম্বে জেলা বাজেট প্রণয়ন করা প্রযোজন। জেলা বাজেট কার্যকর করতে হলে স্থানীয় সরকার শক্তিশালী করতে হবে। এতে করে জাতীয় বাজেটে তৃণমূলের জনমত প্রতিফলিত হবে। অংশগ্রহনমূলক গনতান্ত্রিক সুশাসন, দুর্নীতিমুক্ত কার্যকর বাস্তবায়ন ব্যবস্থা, জনঅংশগ্রহন স্থায়িত্বশীল উন্নয়নের কাঙ্খিত লক্ষ্যে পৌঁছাতে পারে আমাদের প্রিয় মাতৃভূমি। কাউকে পেছনে রেখে নয়, বরং সকলকে একসাথে নিয়ে এই স্থায়ীত্বশীল উন্নয়ন অভিযাত্রায় আমরা অংশগ্রহণ করতে পারি। আমাদের জাতীয় পরিকল্পনা ও বাজেট সেদিকে এগিয়ে যাওয়ার লক্ষ্যে প্রণয়ন করা উচিত।” ১ জুন বেসরকারী উন্নয়ন সংস্থা দর্পণ এর অপরাজিতা সম্মেলন কক্ষে সুশাসনের জন্য প্রচারাভিযান (সুপ্র) ও দর্পণ এর যৌথ উদ্যোগে আয়োজিত ’স্থায়ীত্বশীল উন্নয়ন অভিযাত্রায় কাউকে পেছনে রেখে নয়’ শীর্ষক প্রাক বাজেট নাগরিক সংলাপে বক্তাগন একথাগুলো বলেন। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন কুমিল্লা পে্রুস ক্লাবের সাবেক সভাপতি ও সাপ্তাহিক অভিবাদনের সম্পাদক আবুল হাসানাত বাবুল। বিশেষ অতিথি ছিলেন ব্লাষ্টের কুমিল্লা জেলা সভাপতি এডভোকেট সৈয়দ নূরুর রহমান, দুপ্রক এর সাধারন সম্পাদক শাহ মোহাম্মদ আলমগীর খান এবং রিপোর্টাস ইউনিটির সহ-সভাপতি ওমর ফারুকী তাপস।

অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন সুপ্র কুমিল্লা জেলা কমিটির সাধারন সম্পাদক ও দর্পণ এর নির্বাহী পরিচালক মো: মাহবুব মোর্শেদ। অনুষ্ঠানে মাল্টিমিডিয়া প্রেজেন্টেশন উপস্থাপন করেন দর্পণ এর সিনিয়র প্রোগ্রাম অফিসার আফসানা আফরোজ জুঁই। অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন শিক্ষার্থী ফারহানা আক্তার , আলিয়া ফেরদৌস তন্নী, আরএইচড্ওি-র নির্বাহী পরিচালক কাজী মাহতাব, বাংলাদেশ উইমেন চেম্বার অব কর্মাস এন্ড ইন্ডাষ্ট্রীর কুমিল্লা জেলা শাখার সভাপতি নাগমা মোর্শেদ, মহিলা কল্যাণ সংস্থার সভাপতি নাছিমা আক্তার, পুলিশ লাইন সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নাসিমা বিশ্বাস, দর্পণ এর সহকারী প্রকল্প পরিচালক নাজনীন আক্তার তপা, ডিস্ট্রিক্ট ক্যাম্পেইন ফ্যাসিলেটেটর সালমা আক্তার চৈতি এবং সমতটের কাগজের সম্পাদক জামাল উদ্দিন দামাল।

অনুষ্ঠানে বক্তাগণ আরও বলেন, দারিদ্র নির্মূল ও বৈষম্য কমাতে বিত্তবান নাগরিক ও ধনীক শ্রেণীর উপর করের চাপ বাড়াতে হবে, বাড়তি রাজস্ব দিয়ে সমাজের পিছিয়ে পড়া ও সুবিধাবঞ্চিত শ্রেণীর মানুষের জন্য কর্মসূচি জোরদার করতে হবে, জিডিপি’র অনুপাতে শিক্ষা, স্বাস্থ্য ও সামাজিক নিরাপত্তা খাতে বরাদ্দ বাড়াতে হবে, ক্ষুদ্র ও মাঝারী শিল্পের প্রসার, পর্যাপ্ত কর্মসংস্থানের সৃষ্টি, উপকারভোগীর সেবা নিশ্চিত করা এবং, সরকারী সেবা প্রাপ্তিতে ঘুষ-র্দূনীতি বন্ধ করাসহ সময়পোযোগী পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে।

সভায় বক্তাগন যেসব দাবিগুলো উপস্থাপন করেন সেগুলো হলো: দ্বাদশ শ্রেনী পর্যন্ত সবার জন্য মানসম্মত শিক্ষা অর্জনে প্রয়োজনীয় সংখ্যক প্রাথমিক, মাধ্যমিক ও উচ্চ-মাধ্যমিক বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠায় অর্থায়ন বাড়ানো জরুরী, শিক্ষকের সংখ্যা বাড়িয়ে শিক্ষার্থী শিক্ষক অনুপাত ৩০-১ নিশ্চিত করার জন্য তহবিল নিশ্চিতকরণ, সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিশুদের জন্য পুষ্টিমান সম্পন্ন দুপুরের খারার সরবরাহের জন্য বাড়তি বরাদ্ধ, জাতীয় শিক্ষানীতি বাস্তবায়নের লক্ষ্যে শিক্ষাখাতে বাজেটের কমপক্ষে ২০% বা জিডিপি’র ৬% বরাদ্দ নিশ্চিতকরন, কমিউনিটি ক্লিনিকে ডাক্তারের উপস্থিতি নিশ্চিত করা সহ সেবার মানোন্নয়নে অর্থায়ন করতে হবে, ইউনিয়ন ও উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রে পর্যাপ্ত ডাক্তার, নার্স ও ঔষধ সরবরাহ করতে হবে, ডাক্তার-রোগীর আনুপাতিক হার বৃদ্ধি করতে হবে ও প্রত্যন্ত অঞ্চলে অত্যাধুনিক স্বাস্থ্য সরঞ্জাম সরবরাহ করতে হবে, স্বাস্থ্যসেবার বানিজ্যিকিকরন রোধ করে স্বাস্থ্য ক্ষেত্রে ব্যক্তিগত ব্যয়ের পরিমাণ কমাতে কার্যকর পদক্ষেপ দরকার, স্বাস্থ্য ব্যয় কমাতে ক্ষতিকর তামাকপণ্যের উপরসুর্নিদিষ্টউচ্চ-হারে কর বৃদ্ধি করতে হবে; বিএটিসহ বিভিন্ন দেশী-বিদেশী কোম্পানি কর্তৃক কর ফাঁকি রোধে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে; উন্নত স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিকরনে স্বাস্থ্যখাতে বাজেটে বরাদ্দ বৃদ্ধি করে কমপক্ষে জিডিপি-এর ৩% অথবা মোট বাজেটের ১০ % বরাদ্দ দেয়ার পাশাপাশি বাজেট ব্যবহারে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত করতে হবে; ক্ষুদ্র ও মাঝারি কৃষকের স্বার্থে স্বায়ীত্বশীল কৃষি ব্যাবস্থার উন্নয়নে কৃষিখাতে বাজেট বরাদ্দ বৃদ্ধি করতে হবে; কৃষকের উৎপাদিত ফসলের মূল্য নিশ্চিতকরনে সবকারী ক্রয়ব্যাবস্থায় আরো অর্থায়ন করতে হবে, দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে কৃষক সেবা কেন্দ্র কার্যকরভাবে চালু করতে হবে; বহুজাতিক কোম্পানীসমূহের হাত থেকে কৃষিকে বাচাতে জরুরী ব্যাবস্থা নিতে হবে; জলবায়ু পরিবর্তন ক্ষয়ক্ষতি মোকাবেলায় জরুরি পদক্ষেপ নিতে বনভূমি ও সবুজ বেষ্টনী কার্যকর করতে হবে, ক্ষতিগ্রস্থ কম্যুনিটি সমূহের ও বিশেষভাবে কৃষকদেও জলবায়ূ মোকবেলার সক্ষমতা বৃদ্ধিতে বরাদ্ধ বাড়াতে হবে; ধনী দেশগুলো উন্নয়নশীল দেশগুলোকে প্রতি বছর ১০০ বিলিয়ন ডলার দেয়ার প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়ন করতে হবে; সামাজিক সুরক্ষার জাতীয় কৌশলপত্র অনুযায়ী জীবনচক্র ভিত্তিক সামাজিক নিরাপত্তাবেষ্টনী কার্যকর করতে হবে; সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচিতে সুবিধাভোগীর পরিমান ও বাজেট বরাদ্দ বৃদ্ধি করতে হবে; সকল নাগরিকের জন্য জাতীয় পেনশন ব্যবস্থা কার্যকর করতে হবে; কর্মসূচিটি বাস্তবায়নে তথ্যপ্রযুক্তিভিত্তিক এই কার্যক্রমটি স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত করতে হবে; প্রকৃত সুবিধাভোগী নির্বাচনে, সম্পদ ও সুবিধা প্রদানে জনঅংশগ্রহণ এবং জবাবদিহিতা থাকতে হবে; প্রত্যক্ষ কর নির্ভর বাজেট প্রণয়ন করতে হবে, করের বিপরীতে নাগরিক সুবিধা নিশ্চিত করতে হবে; নিত্য প্রয়োজনীয় সেবা ও দ্রব্যের উপর মূসক বা ভ্যাট প্রত্যাহার করতে হবে; কর্পোরেট কর ফাঁকি রোধে কার্যকর ও দৃঢ় পদেক্ষপ গ্রহণ করাসহ বহুজাতিক কোম্পানী কর রেয়াত সুবিধার পুনঃমূল্যায়ণ করতে হবে এবং তামাক কর কাঠামো যুগোপযোগী করাসহ ধুমপান ও তামাকজাত দ্রব্য ব্যবহার নিয়ন্ত্রণ (সংশোধন) আইন ২০১৩ এবং ধুমপান ও তামাকজাত দ্রব্য ব্যবহার নিয়ন্ত্রণ বিধিমালা ২০১৫ এর যথাযথ প্রয়োগ নিশ্চিত করতে হবে এবং তামাকপণ্যের উপর আরোপিত স্বাস্থ্য উন্নয়ন সারচার্জ ২% উন্নীত করতে হবে।

আর পড়তে পারেন