বুধবার, ২০শে আগস্ট, ২০১৯ ইং

সাগরে সৌভাগ্যক্রমে বেঁচে যাওয়ার গল্প

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মে ১৫, ২০১৯
news-image

 

ডেস্ক রিপোর্ট :

লিবিয়া থেকে আমরা আশি জনের একটি গ্রুপকে প্রথমে একটি বড় নৌকায় তোলা হয়। এরপর সাগরের মাঝে তাদের আরেকটি ছোট নৌকায় তোলার সাথে সাথে ছোট নৌকাটি সাথে সাথে ডুবে যেতে শুরু করে। প্রতি পাঁচ মিনিটে যেন একজন করে লোক হারিয়ে যাচ্ছিল।

এভাবে একর পর একজন করে অনেক লোক হারালাম। আমরা কয়েকজন সারারাত ধরে সমুদ্রে সাঁতার কেটে ভেসে থাকি। হঠাৎ দেখি একটা মাছ ধরার ট্রলার। সবাই মিলে ‘হেল্প, হেল্প’ বলে চিৎকার করছিলাম। তারপর ওরা এসে আমাদের উদ্ধার করে। আর যদি দশ মিনিট দেরি হতো আমরা সবাই মারা যেতাম। আমাদের হাত পা আর চলছিল না। ভয়ংকর অভিজ্ঞতার কথাগুলো বলছিলেন লিবিয়া থেকে ইউরোপের দেশ ইতালিতে পাড়ি দিতে যাওয়া এক তরুণ।

জানা যায়, বেশিরভাগ সময় দালালের খপ্পরে পড়ে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে এভাবে সমুদ্র পাড়ি দিয়ে বিদেশে যাচ্ছে সিলেটের হাজারো তরুণ ও যুবক। তারা পরিবার-পরিজন ছেড়ে যাওয়া এসব অভিবাসী এক প্রকার অসহায় জীবনযাপন করে বিদেশে। প্রতি মাসেই এক বা একাধিক ট্রিপে রাতের আঁধারে ট্রলারে বা নৌকায় চেপে ইতালির পথে রওনা হয় শত শত মানুষ। মানবপাচারকারীরা সিলেটের ন্যায় সারা দেশে ফাঁদ পেতে এজেন্টদের মাধ্যমে লোক সংগ্রহ করছে। এসরে মধ্যেবেশির ভাগ অসহায় দরিদ্র পরিবারের তরুণ ও যুবক ।

সংশ্লিষ্ট একটি সুত্র জানিয়েছে, প্রথমেই বিমান যোগে ফ্লাইটে ঢাকা ‘টু’ দুবাই। দুবাই থেকে আম্মান। সেখান থেকে আবার তুরস্ক। তারপর তুরস্ক থেকে লিবিয়ার ত্রিপলি। সেখানে দীর্ঘ দিন বন্দি ঘরে থাকতে হচ্ছে। এরপর সময় সুযোগ বুঝে ছোট্ট একটি নৌকায় চেপে ভূমধ্যসাগর পাড়ি দিয়েই যেতে হয় স্বপ্নের দেশ ইতালিতে। এই বিপদসঙ্কুল সাগর পথ পাড়ি দিতে গিয়ে নৌকা ডুবে গত দুই বছরে সিলেটের প্রায় দুই শতাধিক তরুণ ভূমধ্যসাগরে প্রাণ দিতে হয়েছে।

সর্বশেষ গত শনিবার সাগরে নৌকা ডুবে জেলার গোলাপগঞ্জের ২জন ও ফেঞ্চুগঞ্জের ৪জনসহ ৬ জন মারা গেছেন। নৌকাডুবিতে বেচেঁ যাওয়াদের তিউনিসিয়ার উপকূলীয় শহর জারজিসের আশ্রয় কেন্দ্রে রাখা হয়েছে। এদের মধ্যে সিলেটের বিভিন্ন উপজেলার বেশ কয়েকজন তরুণ রয়েছেন।

ঢাকা টু ইউরোপের ভয়ংকর কিছু তথ্য

সাগরে মৃত্যুর মুখ থেকে ফিরে আসা দুই যুবকের ভয়ংকর অভিজ্ঞতার কথা। ৩০ বছর বয়সি আহমেদ বিলালের বাড়ী সিলেটের ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলার মহিদপুর মাঝপাড়া গ্রামের মৃত তজম্মুল আলী’র ছেলে। উন্নত জীবনের আশায় তিনি ইউরোপের পথে পাড়ি দিতে জমি বিক্রি করে দালালের হাতে তুলে দেন ৭ হাজার মার্কিন ডলারের সমপরিমাণ অর্থ (প্রায় ৬ লাখ টাকা)। এই দালালকে তিনি চেনেন ‘গুডলাক’ ছদ্মনামে। দালাল তাকে বলেছিল, সেখানে নাকি বেশ ভালো জীবনযাপন করতে পারবো। আমরা তাকে বিশ্বাস করেছিলাম। সাগর পাড়ি দিতে যে কোনো ঝুঁকি আছে, দালাল আমাদের সেটা বলে নাই। বলেছে, অনেক ভালো সুবিধা, অনেক ভালো লাইন হয়েছে। বলেছে জাহাজে করে একেবারে ইতালিতে পৌঁছে দেবে। আমি নিশ্চিত যতো লোককে সে এভাবে পাঠায়, তাদের বেশিরভাগই মারা যায়।

বিলাল আরে বলেন, ছয় মাস আগে তাদের যাত্রা শুরু হয়। প্রথমে তারা যান দুবাই। সাথে ছিল আরও দুজন। সেখান থেকে তুরস্কের ইস্তাম্বুলে। সেখান থেকে আরেকটি ফ্লাইটে লিবিয়ার রাজধানী ত্রিপলিতে। ত্রিপলিতে আরও প্রায় ৮০ জন বাংলাদেশি তাদের সাথে যোগ দেন। এরপর পশ্চিম লিবিয়ার কোন একটা জায়গায় একটি রুমে তাদের তিন মাস আটকে রাখা হয়। তখন আমার মনে হয়েছিল, আমি লিবিয়াতেই মারা যাব। আমাদের দিনে মাত্র একবার খাবার দেয়া হতো। অনেক সময় তারও কম। ৮০জন মানুষের জন্য সেখানে টয়লেট ছিল একটি। আমরা শৌচকর্ম পর্যন্ত করতে পারতাম না। আমরা খাবারের জন্য কান্নাকাটি করতাম।

আরো একজন সিলেটের গোলাপগঞ্জ উপজেলার মাহফুজ আহমেদ। তিনি ভয়ংকর অভিজ্ঞতার কথা পাঠকদের সাথে শেয়ার করেন। বলেন, গত ডিসেম্বর মাসের ১২ তারিখে আমি রওনা দেই। বাংলাদেশ থেকে প্রথম দুবাই যাই। সেখান থেকে আম্মান। সেখান থেকে আবার যাই তুরস্ক। তারপর তুরস্ক থেকে লিবিয়ার ত্রিপলি। আমার আপন দুই ভাইও আমার সঙ্গে ছিল। আমরা দালালকে জনপ্রতি নয় লাখ টাকা করে দেই। আমার এই দুই ভাইকে বাঁচাতে পারিনি। ওরা মারা গেছে। আমরা বুঝতে পারিনি এই পথে এতো বিপদ। দালাল বলেছিল, মাছের জাহাজে করে সুন্দরভাবে আমাদের নিয়ে যাবে। আমরা অনেক টাকা খরচ করেছি। ৩ ভাই মিলে ২৭ লাখ টাকা। জমি বিক্রি করে, আত্মীয়-স্বজনের কাছে থেকে এই টাকা জোগাড় করি। এখন তো এই ভুলের মাশুল তো আর দিতে পারবো না। যে দালালের মাধ্যমে আমরা আসি, তাকে আগে থেকে চিনতাম না।

নৌকায় বিপজনক যাত্রাঃ উত্তর-পশ্চিম লিবিয়া থেকে একটি বড় নৌকায় তোলা হয় ইউরোপগামী যুবকদের। এরপর সাগরের মাঝে তাদের আরেকটি ছোট নৌকায় তোলা হয়। আহমেদ বিলালের সঙ্গে ওই একই নৌকায় ছিলেন একজন মিশরীয় নাগরিক মনজুর মোহাম্মদ মেতওয়েলা। এই ছোট নৌকাটি সাথে সাথে ডুবে যেতে শুরু করে। আমরা যে আশি জনের মতো ছিলাম, প্রতি পাঁচ মিনিটে যেন একজন করে লোক হারিয়ে যাচ্ছিল। এভাবে একজন একজন করে অনেক লোক হারালাম। আমরা সারারাত ধরে সাঁতার কেটে ভেসে থাকি। হঠাৎ দেখি একটা মাছ ধরার ট্রলার। আমাদের মনে হলো আল্লাহ যেন আমাদের জন্য ফেরেশতা পাঠিয়েছে। সবাই মিলে ‘হেল্প, হেল্প’ বলে চিৎকার করছিলাম। তারপর ওরা এসে আমাদের উদ্ধার করে। আর যদি দশ মিনিট দেরি হতো আমরা সবাই মারা যেতাম। আমাদের হাত পা আর চলছিল না। বেঁচে যাওয়া যাত্রীরা বলছেন, তাদের সহযাত্রীদের সবাই ছিলেন পুরুষ।

ইউরোপ যাত্রা এবং কিছু সর্বনাশা তথ্যঃ
বৈধভাবে বিদেশে যাওয়ার অবারিত সুযোগ না থাকা এবং বেকারত্ব বৃদ্ধি পাওয়ায় জীবিকার সন্ধানে বিদেশে যেতে জীবনের ঝুকি নিতেও পিছপা হচ্ছে না মানুষ। গেল বছরে দৈনিক জালালাবাদ ছাড়াও জাতীয় দৈনিকগুলোর সংবাদে লিবিয়া থেকে সমুদ্র পথ পাড়ি দেয়াসহ ইউরোপে কীভাবে অবৈধ বাংলাদেশিরা প্রবেশ করছে, তার ভয়ংকর তথ্য তুলে ধরা হয়। সমুদ্রপথ পাড়ি দিয়ে বা অবৈধভাবে বাংলাদেশিরা যেমন ইউরোপে প্রবেশ করছেন, তেমনি দেশটিতে গিয়ে আশ্রয় চাওয়ার সংখ্যাও কম নয়।

রামরুর তথ্য মতে, ২০১২ সালে মানবপাচার প্রতিরোধ ও দমন আইন করার পর সমুদ্র পাড়ি দিয়ে বিদেশে যাবার ঘটনা ঘটে ২০১৪ ও ২০১৫ সালে। এ সময় বাংলাদেশের বিভিন্ন জেলার পাশাপাশি সিলেটের হাজারো তরুণ ও যুবকরা সমুদ্রপথে পাড়ি জমায়। এই দুই সালের পুরোটা সময় জীবনের ঝুঁকি নিয়ে সাগরপথে অবৈধভাবে বিদেশ যাওয়ার সময় আটকের ঘটনার খবর বিশ্বব্যাপী আলোচনার ঝড় ওঠে। বাংলাদেশি নাগরিকদের মালয়েশিয়ায় পাঠানোর কথা বলে ট্রলারে তোলার আগে প্রতিজনের কাছ থেকে ৪০-৮০ হাজার টাকা পর্যন্ত নেয় পাচারকারী চক্র। এরপর সাগরের মাঝপথে বা থাইল্যান্ডের জঙ্গলে তাদের জিম্মি করে পরিবারের কাছ থেকে জনপ্রতি ২-৩ লাখ টাকা মুক্তিপণ আদায়ের ঘটনাও ঘটেছে।

বিশ্লেষকরা বলছেন, যারা সমুদ্র পাড়ি দিয়ে বিদেশে যাচ্ছেন তারা বেশিরভাগ সময়ই প্রতারণার শিকার হচ্ছে। তবে এই প্রতারণার দায়ভার শুধু দালালদের কাঁধে দেয়ার সুযোগ নেই। এর দায় যেমন রাষ্ট্রকেও নিতে হবে, তেমনি নিতে হবে যারা যাচ্ছে তাদের ও পরিবারকে।

সার্বিক প্রসঙ্গে সিলেটের পুলিশ সুপার মোঃ মনিরুজ্জামান দৈনিক জালালাবাদকে বলেন, ইতোমধ্যে দালাল ও ট্রাভেল এজেন্সিগুলোর বিরুদ্ধে অভিযান চলছে। কয়েকজনকে আটক করাও হয়েছে। প্রশাসনের পক্ষ থেকে জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে এবং হবে। কিন্তু আমাদের সমাজের মানুষ প্রথমে সচেতন না হলে এটি নির্মুল করা সম্ভব হবে না।

আর পড়তে পারেন