রবিবার, ২৬শে মে, ২০১৯ ইং

প্রতারক চক্রের কবলে চাঁদপুর লক্ষ্নীপুরের সাধারণ মানুষ

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মে ১৪, ২০১৯
news-image

 

মাসুদ হোসেন, চাঁদপুর :
প্রতারক চক্রের কবলে পড়েছে চাঁদপুর ও লক্ষ্নীপুরের সৌখিনপ্রিয় সাধারণ মানুষ ইন্টারনেটের স‚ত্র ধরে তথ্য অনুযায়ী এ শিকার হয়েছেন কয়েকজন ব্যক্তি। জানা যায়, গত কয়েকদিন আগে “আলমাস মাহফুজ জিসান” নামে একটি ছেলে অনলাইনে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের মাধ্যমে মোবাইল ফোন অপারেটর গ্রামীণ ফোনের ভিআইপি সিরিজের একটি সিম বিক্রয় করার ঘোষণা দেন।

আগ্রহী ব্যক্তিদের তার ব্যক্তিগত নাম্বারে যোগাযোগ করতে বলা হয়েছে। বিজ্ঞপ্তিতে দেওয়া ভিআইপি সিরিজ নাম্বারটি ০১৩০০০০০০০০ উল্লেখ করেন। অনলাইনে বিজ্ঞপ্তিটি দেখে সৌখিন প্রিয় কয়েকজন মানুষ জিসানের ব্যক্তিগত ০১৮১৯০৭০৭৭০ এই নাম্বারে যোগাযোগ করেন। এর মধ্যে ঢাকার মোহাম্মদপুর এলাকার একজন বাসিন্দাও ছিলেন। তিনি ঐ প্রতারকের সাথে যোগাযোগ করা হলে প্রতারক তাকে চাঁদপুর সরকারী কলেজ গেইট ভিশন টেলিকমের ঠিকানা দেন এবং কাঙ্খিত সিমটির জন্য ৩ হাজার টাকা দাবী করেন। দুজনের মধ্যে কথাবার্তার এক পর্যায়ে ২ হাজার টাকায় মিমাংসা হয়। তবে প্রতারকের শর্ত হলো সিম নিতে এডভান্স টাকা দিতে হবে।
এমন পরিস্থিতি দেখে লোকটি মোহাম্মদপুরের স্থানীয় একটি টেলিকম সেন্টারে টাকা বিকাশ করার জন্য গেলে দোকানের প্রতিনিধির সাথে বিষয়টি শেয়ার করেন। দোকানের লোকটির বাড়িও চাঁদপুর সদরে। পরিচয় হবার পর প্রতারক জিসানের সাথে দোকানের লোকটি কথা বলেন এবং বলেন সিমটি নিতে হলে টাকা নিয়ে চাঁদপুর সরকারী কলেজ গেইট ভিশন টেলিকমে যাওয়ার জন্য। সে ম‚হুর্তে দোকানদার তার গ্রামের বাড়ির এক বন্ধুকে ফোন করে মঙ্গলবার (১৪ মে) সকাল ১১টায় কলেজ গেইটে পাঠায়। ঠিকানা মত ওখানে গিয়ে ভিশন টেলিকম নামে কোন দোকান খুঁজে না পেয়ে তার বন্ধুকে ফোন দেয়। পরে ঐ প্রতারকের সাথে প‚ণরায় যোগাযোগ করলে সে একই ঠিকানা দেন। কিছুক্ষণ পর চাঁদপুরের লোকটি প্রতারকের নাম্বার সংগ্রহ করে ফোন দিয়ে ঠিকানা জানার চেষ্টা করলে সে বলে আপনি কোথায় আছেন। চাঁদপুরের লোকটি কলেজ গেইট মা কম্পিউটারের সামনে আছি বলে জানায়। প্রতারক এখন সে দোকানটির কথা বলে ভিতরে যেতে বলেন। লোকটি ভিতরে গিয়ে দেখে কেউই ফোনে কথা বলছে না। দোকানের সবাইকে নাম্বারটি দেখালে কেউই চিনতে পারেনি কাঙ্খিত লোকটি। পরক্ষণে একের পর এক কল দিয়ে কথা বার্তার মধ্য দিয়ে কোন সমাধান না আসায় চাঁদপুরের লোকটি মোবাইল সিস্টেমের মাধ্যমে জানতে পারে প্রতারকের নাম ঠিকানা ও ছবি এবং সাথে সাথে তার ঢাকার বন্ধুকে বিষয়টি জানায়।

এর মধ্যেই লক্ষ্নীপুরের রায়পুর উপজেলার একজন ভদ্রলোক এসে মা কম্পিউটারের সামনে এসে একই অভিযোগ করেন। এসময় লোকটি জিসানের সাথে কথোপকথনের মেসেগুলো দেখান এবং একই সিরিজের নাম্বার দিবে বলে লোকটিকে রায়পুর থেকে চাঁদপুর কলেজ গেইট পর্যন্ত আনেন। প্রতারক চক্রের এমন ঘটনা বুঝতে পেরে প্রতারক জিসানকে আবার কলে দেন চাঁদপুরের লোকটি। কল রিসিভ করে কথা বলেন নি এবং প্রতারকের নাম ঠিকানা বলে দেবার পর চাঁদপুরপুরের লোকটিকে গালিগালাজ শুরু করেন। পরক্ষণে প্রতারনার শিকার দুজন ভদ্রলোক ঐ স্থান ত্যাগ করেন। পরে অন্য মাধ্যমে জানা যায় সিম বিক্রির নাম করে জিসান আরো অনেকের সাথেই এমন প্রতারনা করে হাতিয়ে নিচ্ছেন হাজার হাজার টাকা। প্রতারক জিসানকে ধরে আইনের আওতায় আনার জন্য প্রশাসনের কাছে অনুরোধ জানিয়েছেন ভুক্তভোগী সাধারণ মানুষ।

আর পড়তে পারেন