বুধবার, ২১শে আগস্ট, ২০১৯ ইং

কুমিল্লায় এক মাসে ১০ জন খুন, ৯ ধর্ষণ

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মে ১৩, ২০১৯
news-image

স্টাফ রিপোর্টারঃ
এপ্রিল মাসে কুমিল্লায় ১০টি খুনের ঘটনা ঘটেছে। নারী ও শিশু নির্যাতনের ঘটনা ঘটেছে ৪৫ টি, যার মধ্যে ৯টি ধর্ষনের ঘটনা। এর মধ্যে ৪টি খুনের ঘটনাই ঘটেছে কোতয়ালী থানাধীন। মার্চ মাসেও জেলায় খুনের সংখ্যা ছিলো ১০ এবং ফেব্রুয়ারি মাসে ১১ টি। এছাড়াও এপ্রিল মাসে পুরো জেলা থেকে মোট ১১৩ টি অবৈধ অস্ত্র উদ্ধার করেছে পুলিশ।

এছাড়া ভ্রাম্যমান আদালতের ১৫৬ টি অভিযানে মামলা হয়েছে ২৯৯টি। আদায় করা হয়েছে ৮ লাখ ৪১ হাজার ৬৫০ টাকা অর্থদন্ড। মাদকদ্রব্য ও চোরাচালান বিরোধী অভিযানে জেলা টাস্কফোর্স ২০টি অভিযানে ২২ জনকে আটক করেছে, মামলা হয়েছে ১৮টি এবং আটককৃত মালামালের মূল্য ছিল ৩৬ লাখ ৯৪ হাজার ৯৫০ টাকা। পুলিশের ৭ হাজার ২৩১টি অভিযানে ৩৩৩ জনকে আটক করা হয়েছে, মামলা হয়েছে ২৬৩টি এবং আটককৃত মালামালের মূল্য ৯৩ লাখ ১৩ হাজার ৫০ টাকা। বিজিবির ১ হাজার ৩৯০ টি াভিযানে আটক হয়েছে ৩৩ জন। মামলার সংখ্যা ৩১ জন এবং আটককৃত মালামালের মূল্য ১ কোটি ৪২ লাখ ৪৫ হাজার ৬৯০ টাকা। র‌্যাবের ১৩টি অভিযানে আটক করা হয়েছে ৭ জনকে। মামলা হয়েছে ৬টি এবং আটক মামালামালের মূল্য ৩ লাখ ৩৬ হাজার ৪০০টাকা। জেলা আইনশৃঙ্খলা কমিটির সভায় এসব তথ্য উপস্থাপন করা হয়। এছাড়া আসন্ন ঈদ উল ফিতরকে সামনে রেখে যানজটর কমাতে সড়ক ও মহাসড়কে ফিটনেসবিহীন যানবাহন উচ্ছেদের নির্দেশনা দেন জেলা আইনশৃঙ্খলা কমিটির সভাপতি ও জেলা প্রশাসক মোঃ আবুল ফজল মীর। এসময় তিনি আরো বলেন, নগরীতে যানজট নিরসনে সিটি কর্পোরেশনের ভূমিকা নিয়ে হতাশা প্রকাশ করেন। এছাড়া বিভিন্ন বেসরকারি হাসপাতাল ও শপিং মলগুলোর সামনে যানজট নিরসনের ওইসব প্রতিষ্ঠানের মালিক ও ট্রাফিক বিভাগকে সমন্বিতভাবে কাজ করার নির্দেশনা প্রদান করেন। সভায় পুলিশ সুপার সৈয়দ নুরুল ইসলাম বলেন, আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে। জেলার সার্বিক আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে সকল বাহিনীর সমন্বিত ভাবে সচেষ্ট আছে।

সভায় জেলার আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ে আরো বক্তব্য রাখেন হিন্দু ধর্মীয় কল্যান ট্রাস্টের ট্রাস্টি নির্মল পাল, ক্লিনিক মালিক সমিতির সভাপতি রইস আবদুর রব, জেলা দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির সাধারণ সম্পাদক শাহ মোঃ আলমগীর খান, মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রন অধিদপ্তরের পরিদর্শক মোঃ এমদাদুল্লাহ, ফায়ার সার্ভিসের সহকারী পরিচালক রতন কুমার ণাথ, জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক মোঃ আছাদুল ইসলাম, ট্রাফিক ইন্সপেক্টর মোঃ কামাল উদ্দিনসহ অন্যান্যরা।

আর পড়তে পারেন