বুধবার, ২০শে আগস্ট, ২০১৯ ইং

আত্মগঠন ও বিকাশে মাহে রমজান

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মে ১২, ২০১৯
news-image

 

মাওলানা মোবারক বিন নুরুল আলমঃ

প্রতিদিন সূর্য পূর্ব দিকে  উদিত হয় আবার  পশ্চিম  দিকে অস্তমিত হয়, কিন্তু সূর্য  কোনদিন আল্লাহর হুকুম অমান্য করে  ব্যতিক্রম পথ অবলম্বন করেনি। ফলত সে প্রতিনিয়ত মানুষের কল্যাণে আলো দিয়ে যাচ্ছে। কিন্তু চিন্তার বিষয় মানুষ সেই আলোকিত সময়টুকু কাজে না লাগিয়ে বিধাতার হুকুম অমান্য করে জীবন পাখিটিকে ঠেলে দিচ্ছে এক অন্ধকারাময় রাত্রির দিকে। তাইতো আমরা কালের পরিক্রমায় মোবাইলের ফ্রি টক টাইমের ন্যায় হারিয়ে পেলছি হায়াত নামক এক অমূল্য সম্পদকে। অথচ স্রষ্টা মানুষকে  সৃষ্টি করার  উদ্দেশ্যেই হচ্ছে মানুষ হায়াত নামক অমূল্য সম্পদকে কাজে লাগিয়ে আল্লাহর ইবাদত করবে। আর আল্লাহর ইচ্ছা হলো সকল বান্দা তার গোলামি করে জান্নাতের অধিকারি হোক তাই তিনি বান্দার কল্যানে আমল কুড়ানোর  অন্যতম মাস হিসাবে  স্বীকৃতি  দিয়েছেন পবিত্র মাহে রমাদান মাসকে। তাই আল্লাহর প্রিয় বান্দা যারা তারা রমাদান মাসের আগমনে আনন্দে আত্নহারা হয়ে উঠে’ তাদের হ্নদয়ে আনন্দের জোয়ার বহিতে থাকে। ফলত তারা কর্মসূচি তৈরি করে নেয় কিভাবে তারা রমাদান মাসকে কাজে লাগিয়ে আত্মগঠন করা যায়। তাহলে হে প্রিয় পাঠক আসুন আমরা ও আত্নগঠনের সিদ্ধান্ত নিয়ে  রমাদান মাস সম্পর্কে কিছু বিষয়ে জেনে নেই।

রমাদান আরবি শব্দ এর আবিধানিক অর্থ জ্বালিয়ে  দেয়া ‘পুড়িয়ে দেয়া ‘ছাই করে দেয়া ইত্যাদি আগুন যেভাবে লাকড়িকে পুড়িয়ে ছাই করে তেমনি রমাদান মানুষের পূর্বের গুনাহ গুলোকে ধ্বংস করে দেয়।  তাইতো রাসুল  (সা) বলেছে যে ব্যক্তি মাহে রমাদান  পেল কিন্তু তার জীবনের গুনাহ গুলো ক্ষমা করে নিতে পারলো না তার জীবন ধ্বংস হোক (সহী আল  বুখারী)  আল্লাহ তায়ালা বলেন ‘হে ইমানদারগন তোমাদের  উপর মাহে রমাদানের রোযা গুলো ফরজ করা হয়েছে যে ভাবে ফরজ করা হয়েছিল তোমাদের পূর্ববর্তী নবীদের উম্মতদের উপর।(সুরা বাকারা ১৮৩) তাহলে আমরা বুজতে পারি রোযা শুধু আমরা রাখছি তা নয় বরং আমাদের পূর্বে যে সকল নবীরা এসেছিল তাদের প্রত্যেক উম্মতের উপর ফরজ ছিল। আর আল্লাহ তায়ালা রোযা ফরজ করার উদ্দেশ্যে  হলো  যাতে আমরা তাক্বওয়া অর্জন করতে পারি। তাইতো আল্লাহ তায়ালা  সুরা বাকারার ১৮৩ আয়াতে “সিয়াম ” শদটি ব্যবহার করেছেন যার অর্থ হচ্ছে -বিরত থাকা ‘ আর ইসলামী শরিয়তের পরিভাষায়  রোযার সংঙ্গা হচ্ছে,  আল্লাহর সন্তুষ্টির  উদ্দেশ্যে  সুবহে সাদিক থেকে সূর্যাস্ত পর্যন্ত যাবতীয় পানাহার ও ইন্দ্রিয় তৃপ্তি ‘ হতে বিরত থাকার নামই হচ্ছে রোযা বা সিয়াম। আর প্রত্যেক   মুসলিম প্রাপ্ত বয়স্ক  স্বাধীন ‘ সুস্থ’বুদ্ধিমান -নর  নারীর উপর রোযা রাখা ফরজে আইন। কারন আল্লাহ তায়ালা হাদিসে কুদসিতে বলেছেন রোযা আমার জন্য আর আমিই এর প্রতিদান দিব( বুখারি)   তাহলে আজ আমাদের ভাবা উচিত যেহেতু আল্লাহ নিজেই বান্দাকে প্রতিদান দেওয়ার স্বীকৃতি দিয়েছেন সে ক্ষেত্রে বান্দার দায়িত্ব ও কর্তব্য হলো পবিত্র রমাদান মাসকে গনিমত মনে আত্নগঠনের সিদ্বান্ত নিয়ে বেশী বেশী  দান ‘সদকা’ দোয়া ‘ যিকির  ও কুরআন তেলোয়াত করার মধ্যে  দিয়ে নিজেকে আল্লাহর কাছে সপে দেওয়া। তাই পাঠকের প্রতি আমার আকুল আবেদন হলো আমরা যেভাবে মোবাইলের নেট শেষ হওয়ার আগেই তা সঠিক কাজে লাগানোর চেষ্ঠা করি তেমনি পবিত্র মাহে রমাদান আমাদের মাঝ থেকে চলে যাওয়ার আগেই বেশী বেশী  ভালো  কাজ করে  আমল নামা নামক “একাউন্টে” নেকি জমা করি তাহলে হয়তো দুনিয়ার  পরবর্তী জীবনে আমল নামা দিয়ে চির সুখের ঠিকানা জান্নাতে যাওয়ার সুযোগ লাভ করতে পারবো। আমরা মুমিনগন বিশ্বাস করি মৃত্যুর পর জান্নাতে যাবো কারন রাসুল (সা) বলেছেন যার অন্তরে এক  শস্য পরিমান ইমান আছে সে জান্নাতে যাবে( আল হাদিস) মনে রাখা দরকার একজন ছাত্র যেভাবে ভালো প্রস্তুতি না নিয়ে গোল্ডেন এ+ পেতে পারে না তেমনি একজন মুমিন দুনিয়াতে ভালো নেক আমল না করে জান্মাতুল ফিরদাউস পেতে পারে না। তাই আমাদেরকে দুনিয়াতে যশ’ ক্ষ্যাতি অর্জনের সাথে সাথে আখেরাতে সফলতা অর্জনের জন্য প্রস্তুতি নেয়া দরকার । কারন দুনিয়া হচ্ছে আখেরাতের শষ্যক্ষেত্র ( আল হাদিস) রাসুল (সা) বলেছেন যে ব্যক্তি মৃত্য আশার আগে দুনিয়ার হায়াতকে গনিমত মনে করে নেক আমল করবে সে সফলতা লাভ করবে (আল হাদিস) আল্লাহ রাব্বুল আলামিন বান্দার আত্নগঠনের জন্যই পবিত্র  মাহে রমাদান মাসকে রহমত’ মাগফেরাত ‘ নাজাত দিয়ে পরিপূর্ন করে দিয়েছেন।রমাদান মাস মুসলমানদের কাছে প্রশিক্ষণের মাস হিসাবে ও পরিচিত ‘ কারন দির্ঘ একটি মাস দিনের বেলায় সকল হালাল’ হারাম ‘ খাবার  গ্রহন এবং যাবতীয় অশালিন কাজ থেকে নিজেকে বিরত রাখার অন্যতম মাধ্যম হলো রোযা রাখা। আর যেভাবে আত্মগঠনের প্রস্তুতি নিতে পারে নিম্নে তুলে ধরা হলো।

১ তাক্বওয়া সৃষ্টি  

রোযা রাখার মাধ্যমে বান্দার হ্নদয়ে আল্লাহর ভয় এবং ভালোবাসা সৃষ্টি হয় যেমন প্রচন্ড খাবার গ্রহনের চাহিদা  ‘  পানি পান করার তৃষ্ণা ‘ও যৌন চাহিদা থাকার পরে ও কেবল মাত্র আল্লাহর প্রতি ভালোবাসা থাকার কারনে বান্দা এসকল কাজ থেকে নিজেকে বিরত রাখতে সক্ষম হয় আর এটাই হচ্ছে তাক্বওয়া তথা আল্লাহর ভয়। আল্লাহ  তায়ালা বলেন আমি তোমাদের উপর মাহে রমাদানের রোযাকে ফরজ করেছি যাতে তোমরা তাকওয়া অর্জন করতে পার ( আল কুরআন)  প্রিয় পাঠক যার অন্তরে আল্লাহর ভয় আছে সে কোনদিন মাতা – পিতা ‘ আত্বীয় স্বজন’ এবং পাঠা প্রতিবেশীর সাথে খারাফ ব্যবহার করতে পারেনা।আত্নগঠন তারাই করতে পারে যারা বেশী বেশী আল্লাহকে ভয় করে চলে আল্লাহ তায়ালা  বলেন    তোমাদের মধ্যে আমার কাছে ঐ ব্যক্তি সম্মানিত যে বেশী আল্লাহকে ভয় করে। (সুরা হুজরাত ১৩)

২ রোযাদার ব্যক্তির প্রতি আল্লাহর ভালোবাসা।

রাসুল (সা) বলেছেন  যে ব্যক্তি মাহে রমাদানের রোযা গুলো ইমান ও ইহতেছাবের সহিত রাখবে আল্লাহ তার পূর্বের সকল গুনা ক্ষমা করে দিবেন।

৩ চরিত্র গঠন

রোযা রাখার মাধ্যমে মানুষ তার নৈতিক চরিত্রের গুনা বলি অর্জন করতে পারে। মনে রাখা দরকার চরিত্র মানুষের অমূল্য সম্পদ ‘ প্রবাদ আছে যার চরিত্র ধ্বংস হয়ে যায় তার সব শেষ হয়ে যায়। অথচ আজকে আমাদের সমাজে নারী পুরুষের   অবাদ মেলামেশায় এবং অপসাংস্কৃতিতে নিজেদেরকে বিলিয়ে দিয়ে চরিত্রকে ধ্বংস করে দিচ্ছে তাই আমাদের বিবেকে জাগ্রত করে কোমল মতি সন্তানদের ভবিষ্যতের কথা চিন্তা করে তাদেরকে ইসলামি শরীয়তের বিধিবিধান নামাজ’ রোযা ‘ রাখার অভ্যস্ত করে তুলতে হবে। কারন রোযা এমন একটি ইবাদত যা মানুষের অন্তরে আল্লাহ ভীতি জাগ্রত করে তোলে এবং আত্নগঠনে উদ্ভুদ্ধ করে  ফলো সে আত্নগঠনে কঠোর স্বাধনায় অভ্যস্ত হয়ে উঠে।

#সংযম ও আত্মনিয়ন্ত্রণ#

একটি মানুষের জীবনে সফলতা ও বিভিন্ন৷ গুনাবলি অর্জনের জন্য অন্যতম হাতিয়ার হলো সংযম ও আত্মনিয়ন্ত্রণ । ব্যক্তি গঠনের জন্য সংযমের গুরুত্ব অপরিসীম। আর যে ব্যক্তি  নিজেকে নিয়ন্ত্রণ করতে পারে না সে কোনদিন বলিষ্ঠ ব্যক্তিতের অধিকারি হতে পারে না । তাই বলা চলে রোযা মানুষের কাংখিত সংযম ও আত্মনিয়ন্ত্রণ করতে অন্যতম ভুমিকা পালন করে ।

# সবর বা ধৈর্যশীলতা#

পবিত্র মাহে রমাধান আত্নগঠনের মাস যে মাসে সবর ও ধৈর্য্যর ট্রেনিং দেওয়া হয়। আর সবর ও ধৈর্যশীলতা মানব জীবনের অপরিহার্য গুন আর এ গুনটি থাকলে মানুষ যে কোন বাঁধা’ প্রতিবন্ধকতা’ ও বিপদ আপদের মোকাবেলায় নিজেকে সফলতার দারপ্রান্তে পৌঁছেদিতে পারে। আর সবরের গুনাবী অর্জিত হয় পবিত্র সিয়াম স্বাধনায়। যেমন একজন মানুষের প্রচন্ড খোদা লেগেছে এবং খাদ্য ও রয়েছে  এমতাবস্থায় সে না খেয়ে থাকার জন্য প্রচন্ড ধৈর্য্যর প্রয়োজন ‘ ভীষণ পানির পিপাসা লেগেছে হাতের নাগালে ফ্রিজের ঠান্ডা পানি থাকার পরেও পান করা যাবেনা সুর্যাস্থ পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে। জৈবিক চাহিদা মেঠানোর প্রবল আকাঙ্খা অন্তরে জেগেছে সামনে প্রিয়তমা স্ত্রী ওআছে কিন্তু এখনি তা করা যাবে না অপেক্ষা করতে হবে রাত্র পর্যন্ত’আসলে  ধৈর্য্যর গুন না থাকলে তা অসম্ভব। সারাদিন পানাহার থেকে বিরত থাকার পর  ইফতার করার পর একটু বিশ্রাম করার আকাংখা জাগে কিন্তু তা না করে চলে যেতে হবে দীর্ঘ  সময়ের নামাজ ‘ কিয়ামুল লাইল ও কোরআন তেলোয়াতের জন্য। তার পর ঘুম’ কিন্তু সকাল পর্যন্ত  আরামে ঘুমানো যাবে না উঠতে শেষ রাত্রে সাহরি খাওয়ার জন্য। সারা রাত তেমন ঘুম তথা বিশ্রাম হয়নি তাই বলে সারাদিন ঘুমিয়ে অলস ভাবে সময় কাঠানোর সুযোগ নেই। দিনের বেলায় চলে যেতে হবে সকলের নিজ নিজ কর্মস্থলে এতে করে অন্য মাসের চেয়ে রমাদান মাসে একটু বেশী পরিশ্রমের নজরানা পেশ করতে হয়। আবার এটা একদিন দুইদিন নয় প্রায়  ত্রিশ দিন। আর মাস ব্যাপী বান্দা ট্রেনিং করার মাধ্যমে অর্জন  করে প্রচন্ড সবরের গুন।এজন্যই  মহানবী( সা)  বলেছেন এই মাস সবরে মাস আর সবরের বিনিময় হচ্ছে জান্নাত (মিশকাত)   শুধু তাই নয় আল্লাহ তায়ালা বলেন  আমি সবরকৃত বাদাদের সাথেই আছি( সুরা বাকারা১৫৩)

* সাম্য প্রতিষ্ঠা করে *

পৃথিবীতে আল্লাহ তায়ালা মানুষকে সৃষ্টি করে কাউকে ধনী’ আবার কাউকে গরিব করেছেন এবং বিভিন্ন পেশায় বিভিন্ন মানুষকে নিযুক্ত করেছেন এতে করে ধনী ‘ গরিব’ ফকির ‘ মিসকিন কুলি’ মজুর ‘ একে অপরের উপর নির্ভরশীল  তাইতো রাসুল (সা)    বলেছেন  কেউ কাউকে হিংসা করবেনা (আল হাদিস)  এ রোযা রাখার মধ্য দিয়ে ধনীরা গরিবদের ক্ষুদার যন্ত্রণার কথা বুঝতে সক্ষম হয়ে উঠে।

# মানষিক প্রশান্তি ও দৈহিক সুস্থতা #

রোযা রাখার মাধ্যমে রোযাদার ব্যক্তি মানষিকভাবে প্রশান্তি লাভ করে থাকে  কারন রোযা ব্যক্তিকে জাবতীয় খারাফ আচার’ আচরন ও অশালিন কাজ থেকে বিরত রাখে। তাইতো রাসুল( সা) বলেছেন যে ব্যক্তি মিথ্যা কথা ও খারাফ কাজ থেকে  নিজেকে বিরত রাখতে পারলো না তার সারাদিন পানার থেকে বিরত থেকে উপবাস থাকাতে আল্লাহর কোন প্রয়োজন নেই ।( বুখারি মসলিম) । আজকে আধুনিক বিজ্ঞানী মেডিকেল  সাইন্সের গবেষনায় বলা হয়েছে যে, রোযাদার ব্যক্তি  গ্যস্টিক নামক রোগ থেকে মুক্ত থেকে সুস্থতা লাভ করে এতে বুজা যায় শুসাস্থ জীবন গঠনে রোযার ভূমিকা অপরিসীম।

# সুন্দর পরিবেশ গড়ে তোলে #

রমাদানের চাঁদ উদিত হলেই চুতুর দিকে ফুলের ঘ্রানের ন্যায় মানুষের হ্নদয়ে আনন্দের জোয়ার বহিতে থাকে। কারন রমাদান মাস মুমিনদের জন্য একটি সুন্দর পরিবেশ নিয়ে আসে।পূর্ণম্যয় জীবন  যাপনের অনুকুল পরিবেশ তৈরি হয় রমাদানে। পুন্যেরদিকে দাবিত হয়ে পাপ থেকে  দুরে থাকার শক্তি পায়। ‘ কারন এই  মাসের ২৪ ঘন্টা রহমতের ফল্গুধারা আছন্ন হয়ে থাকে। রাসুল (সা)বলেছেন   যখন রমাদান মাস আসে তখন আসমানের সকল রহমতের দরজা খুলে দেয়া হয় এবং জাহান্নামের দরজা বন্ধ করে দিয়ে  জান্নাতের দরজা গুলো খুলে দেওয়া হয়। (সহী আল বুখারি)

###ভ্রাতৃত্ববোধ তৈরি  ##

রাসুল (সাঃ)  বলেছেন প্রত্যেক মুসলমান পরস্পর ভাই ভাই আর রোযা পরস্পরের মধ্যে ভ্রাতৃত্ববোধ জাগ্রত করার ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে  কেন না রোযার মাধ্যমেই মানুষ একই আল্লাহর একই নিয়ম পালন করে থাকে। যেহেতু সমাজের প্রতিটি মানুষ একই সুত্রে গাথা  তাই ধনী ‘ গরিব’ ফকির ‘ মিসকিন  সকলে কাঁদে কাদঁ মিলিয়ে মস্তক অবনত করে মনিবের দরবারে সিজদা দিতে থাকে তাই রাসুল (সাঃ) বলেছেন প্রতিটি মুসলমান একটি দেহের নেয় ‘ যে দেহের চোখে ব্যথা হলে সমস্ত শরীরে ব্যাথা   অনুভব হয়  তেমনিভাবে সমাজে যারা কষ্ট করে জীবন যুদ্বে সংগ্রাম করছে তাদেরকে দেখে মুমিন বান্দা কোনদিন বসে থাকতে পারে না তাদের সহযোগিতায়  এগিয়ে যায়। আর  এজন্যই বলা হয়  রোযা   মানুষের হ্নদয়ে সহানুভূতি জাগ্রত করে  ভ্রাতৃত্ববোধ সৃষ্টি করে তোলে ।

# ইবাদতে আত্মনিয়োগ##

আল্লাহ তায়ালা মানুষ ও জ্বিন জাতিকে  সৃষ্টি করেছেন একমাত্র তার ইবাদত করার জন্য( সুরা আয যারিয়াত) মুমিনগন সার্বক্ষনিক ভাবে ইবাদতে থাকবে এটাই  স্বাভাবিক কিন্তু আত্নিক ও দৈহিকভাবে অন্য মাসের চেয়েও রমাদান মাসে বেশী ইবাদত  করবে এটাই স্বাভাবিক কারন রাসুল( সাঃ) নিজেই অন্য মাসের চেয়ে রমাদান মাসে অনেক বেশী ইবাদতে মশগুল থাকতেন  যেহেতু আল্লাহ তায়ালা হাদিসে কুদসীতে বলেছেন  রোযা আমার জন্য আর আমিই এর প্রতিদান দিব (বুখারি)  ।

##রোযা সাস্থ উন্নয়নের মাস ##

রমাদান মাস আসলে অনেকে অসুস্থের কথা বলে  রোযা রাখে না অথচ  রোযার সাস্থগত উপকারিতা নিয়ে বিশ্বের অমুসলিম অনেক ডাক্তারগন গবেষনা চালিয়ে যাচ্ছে ‘ বিশ্বের অনেক গুলো দেশে রোযার মাধ্যমে চিকিৎসা ক্লিনিক খোলা হয়েছে। যেমন ডাক্তার ওয়ালারের ক্লিনিক উল্লেখযোগ্য (সাপ্তাহিক আদ দাওয়া ১৫ জানুয়ারি ১৯৮৮ সৌদি আরব)

# রোযার মাধ্যমে যে সকল রোগ থেকে মুক্তি পাওয়া যায় #

রোযা মরনব্যাধি ক্যান্সার প্রতিরোধ করে ‘ ওযন ও মেদ কমায় ‘ কিডনিতে পাথর সৃস্টিতে  বাঁধা দেয় ‘ চর্ম রোগ থেকে   মুক্তি পাওয়া যায় ‘ হজম শক্তি বাড়ায় ‘ রক্তের কোলষ্ঠোর কমায় ‘ ডায়বেটিস রোগ নিয়ন্ত্রন রাখে ‘পুরুষের হরমন বৃদ্বি পায় ” যৌনরোগ থেকে মুক্তি পায়   রাসুল (সাঃ)  বলেছেন তোমাদের মধ্যে যদি কারো বিবাহ  করার সামর্থ না থাকে তা হলে সে যেন বেশী বেশী নফল রোযা রাখে। তাহলে সে ব্যাবিচার  থেকে নিজেকে বিরত রাখতে পারবে প্রখ্যাত চিকিৎসা বিজ্ঞানী  ইবনে সিনা যে কোন পুরাতন রোগ থেকে মুক্তির জন্য রোযা রাখার নির্দেশ দিতেন।

*** মানষিক স্বাস্থ্যের উন্নতি**

রমাদান মাস আত্মগঠনের মাস মিশরের হাওয়ান বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষিকা ডাঃ সানওয়া রুশদী তিনি৷ গবেষনা করে  বলেছেন যে  কেউ যদি বিভিন্ন কারনে দুশ্চিন্তার সম্মুখিন হয় এবং তাতে যদি মানষিক স্বাস্থ্যের বেঘাত ঘটে তাহলে সে যেন পুরো একমাস তারাবির নামায আদায় করে এবং অনেক  বেশী  কুরআন তেলোয়াত করে। তাহলে সাস্থ্যের উন্নতি ঘটবে। চিকিৎসা বিজ্ঞানীীরা  নামাযকে সর্বোত্তম ব্যায়ামের সাথে তুলনা করেছেন। সুতরাং বুজা যায়  রোযা   আত্মশুদ্ধি ও সংযমের অন্যতম মাধ্যম। তাই প্রত্যেক মুসলমানের দায়িত্ব ও কর্তব্য হলো  আত্নগঠনের জন্য পবিত্র রমাদান মাসকে গনিমত মনেকরে  কুরআন ও হাদিসের আলোকে যথাযথ ভাবে নেক আমল করে আল্লাহর সন্তুষ্টি অর্জন করা।

 

-মাওলানা মোবারক বিন নুরুল আলম,

বিশিষ্ট ইসলামি চিন্তাবিদ|

খতিব  বায়তুর রহমান জামে মসজিদ, কুমিল্লা|

আর পড়তে পারেন