সোমবার, ২২শে জুলাই, ২০১৯ ইং

সত্যি সত্যিই কি সৎ মা…?

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মে ১০, ২০১৯
news-image

 

শেখ সুরভী বীথিঃ

কখনো কখনো মনে হয় যেনো সত্যিটা কেন সামনে এসে দাড়ালো আর কেনোইবা অদৃশ্যে আঁকড়ে ধরলো..!! ২৫ বছরের সত্যি টা কিছুক্ষণ আগেও জানা ছিলো না। তিনি আমার ‘সৎ মা’ কিন্তুু বিয়ের একদিন আগেও জানতাম না,যে মানুষটা আমাকে জীবনের চেয়েও বেশি ভালোবাসেন তিনি আমার গর্ভধারিণী নন। যার কাছ থেকে মা ডাক শেখা তিনি আমার মা নন। যে ভাইবোনেরা এতো ভালোবাসে, শ্রদ্ধা করে তারা আমার আপন ভাইবোন না, সৎ ভাইবোন।

আমার বিয়ের দিন পাড়ার একজন চাচা এসে বললো, তোমার মার কবর টা জিয়ারত করে আসো,, আমিও অনেকটা অবাক হয়ে বললাম মায়ের কবর জিয়ারত মানে? মা তো আমার ঘরেই আছে। বরং আমি চাচার ওপর রেগে গিয়েছিলাম কেনো আমার জীবিত মাকে নিয়ে এই ধরণের মন্তব্য করলেন। উনার সাথে রাগারাগি করে চলে আসলাম। খুব মন খারাপ হয়ে গেলো,, এমন সময় মা এসে বলল.. কিরে মন খারাপ করে আছিস কেনো? বিয়ের দিন কেউ মন খারাপ করে নাকি? আর তোর পছন্দ করা মেয়েকেই তো ঘরের বউ করতে যাচ্ছি। – আমি মার সব কথা এড়িয়ে মাকে বললাম – মা তুমিই তো আমার মা, কাদির চাচা এসব কি বলছে যে মায়ের কবর জিয়ারত করে আসতাম..!! উনার সাথে খুব রাগারাগি করে এসেছি মা। মা কিছুক্ষণ চুপ করে রইলেন আর অজান্তেই কান্না করলেন অনেকক্ষণ, তারপর মা গা টুকু হেলিয়ে দিলেন তার নরম বিছানায়। আর বলতে লাগলো… তোর চাচা ঠিকই বলেছে। তোর বাবা যখন আমাকে বিয়ে করে নিয়ে এসেছিলো তখন তোর বয়স মাত্র  দশ মাস,এর এক মাস আগেই তোর মা মারা যায়। আমি বিয়ের পরেই মাতৃত্বের কষ্ট ছাড়াই মা হয়ে যায়।

তোর বাবার বিয়ের রাতে একটাই কথা বলেছিলো- – আমাকে ভালোবাসতে হবে না। আমার ছেলেটাকে মায়ের স্নেহ ভালোবাসা দিও। তোমার প্রতি আমার কোনো ভালোবাসা, যত্নের কম হলে আমাকে অভিযোগ করো,আমি কোনো অভিযোগ করবো না, কিন্তু প্লিজ আমার ছেলেটা যেনো কোনো অভিযোগ না করে। মনে রেখো  ওর মা মারা গেছে বলে সৎ মায়ের হাতে পরেছে, কাল যদি তোমার অনাগত সন্তানের জন্য তুমি না থাকো তারাও সৎ মায়ের হাতেই পরবে। মানুষের হায়াত মওতের কোন বিশ্বাস নেই। কাল যদি তোমার অনাগত সন্তানের জন্য আমাকে বিয়ে করতে হয়? কারণ আমার সন্তানের লালন পালনের জন্য আমার আপন কেউ নেই। বিয়েই আমার একমাত্র ভরসা। আমি চুপ করে রইলাম আর ভাবলাম উনি কি বুঝাতে চাচ্ছেন। গরিব ঘরের মেয়ে আমি। ঘরে ছোট দুইটা অবিবাহিত বোন আছে, তাই পরিবারের বড় সমস্যা ছিলাম আমি। তাই মুক্তি পাওয়ার জন্য আমাকে এক বাচ্চার বাবার কাছে বিয়ে দেওয়া হয়।গরিব ছিলাম,তবে স্বপ্ন আমিও দেখেছিলাম। সুন্দর বর হবে, আমি গর্ভধারণ করবো,, একটা ফুটফুটে বাচ্চা হবে, সোনার একটা সংসার হবে আমার..!! কিন্তুু গরিবের যে স্বপ্ন দেখা মানা তাই ছেড়েই দিলাম। কিন্তুু তবু মেনে নিতে পারছিলাম না যে এমন একজনের সাথে বিয়ে যার রিদয়ে কিনা অলরেডি আরেকজনের বিচরন আর তাদের নিশানা হলো তুই। তোকেও মেনে নিতে কষ্ট হচ্ছিল। কিন্তু কেনো জানি এইভাবে বলতে চায়নি তবুও মুখ ফসকে বেরিয়ে গেলো যে, আপনি টেনশন করবেন না ও আমার পরিচয়ে বড় হবে।ও কখনো জানতেও পারবে না যে আমি ওর গর্ভধারিণী নই।সে আমাকেই মা হিসেবে ডাকবে। তারপর ধীরে বেড়ে ওঠছিস তুই, আর মনে এক অবাধ বিচরণ করতে লাগলি,, তোর বেড়ে ওঠা, তোর দুষ্টুমি তোর,, তোর আকুল চাহনি, তোর গাল ভড়া খিল খিল হাসি সব কিছুই যেনো আমাকে গভীর ভাবে ছুঁয়ে যাচ্ছিল। তোর ছোট ছোট পায়ে প্রথম হাটা,, তোর প্রথম মা ডাক এই সবকিছুতেই যেনো আমি গর্ভধারণের সুখ খুঁজে পেয়েছি। তোর মা ডাকে যেনো এক মন ভরানো তৃপ্তি পেতাম আমি। তুই আমাকেই তোর মা হিসেবে চিনিস, আমার মাঝেই তোর সুখ আর তোর মাঝেই আমার পূর্ণতা। আমি আবার ছেলের মা হলাম। তোর ছোট ভাইবোন দুনিয়াতে আসলো। তোর ছোট ভাইয়ের বয়স যখন তিন বছর তোর বয়স তখন সাত,সেদিন কোনো কারণে আমি তোকে মেরেছিলাম। এতে কেউ একজন বলে ওঠলো সৎ মা বলে মেরেছি, আপন মা হলে তা করতাম না। সেদিন খুব কষ্ট পেয়েছিলাম, তুই খুব কাছের খুব আপন ছিলি বলে কষ্টটা হয়তো বেশিই পেয়েছিলাম। সেদিন তোর বাবার সাথে কথা বলে সিদ্ধান্ত নিলাম যে আমরা শহরে চলে যাবো যেন কেউ তোকে এইটা বলতে না পারে তোর নিজের মা নেই। সব আত্মীয়স্বজন কে বলে দিলাম কেউ যেনো কখনোই তোর মায়ের ব্যপারে তোকে কিছু না বলে। তারপর তোর আরেকটা বোন আসে,আমি সবসময় চাইতাম তোর ছোট ভাই বোন যেনো খুব শ্রদ্ধা করে,, খুব ভালোবাসে।

যেদিন তোর অনার্সের রেজাল্ট দেয়, তুই যখন বললি যে তুই ৪.০৬ পেয়েছিস আমি এর মানেই বুঝতাম না কিন্তুু তোর খুশি দেখে বুঝেছিলাম তুই অনেক ভালো কিছু অর্জন করেছিস। জানিস বাবা সেদিন খুব স্বার্থপর হয়ে গিয়েছিলাম, ইচ্ছে হয়েছিল তোকে বলি তোর মার কবর জিয়ারত করে আসতি। অন্য দিকে মন বলছে আমিই তোর মা। বুকের ওপর পাথর রেখে সিদ্ধান্ত নিলাম বলবো কিন্তুু তোর বাবা নিষেধ করলো। আমি জানি না সেদিন খুশি হয়েছিলাম নাকি প্রচন্ড অপরাধবোধে কষ্ট পাচ্ছিলাম। তবে সবকিছু ছাড়িয়ে এক অন্যরকম তৃপ্তি পাচ্ছিলাম। তোর বিয়ে ঠিক হলো।

আমার বড় ছেলের বিয়ে। আমি খুশিতে আর কিছুই চোখে দেখি না। আমি আর স্বার্থপর হতে পারিনি। নিজে বলার সাহস পাইনি,তাই তোর চাচাকে বললাম তোকে বলতে তুই যেনো আপার কবর জিয়ারত করে বিয়ে করতে যাস। এসব বলতে বলতে মা অঝোর ধারায় কান্না করতে লাগলো আর বার বার বলতে লাগলো – আমাকে ক্ষমা করে দিস বাবা,আমি তোর অপরাধী, আমি যে তোর সৎ মা। আপা অনেক ভাগ্যবতী যে তোর মতো ছেলে গর্ভে ধারণ করেছে। আমি প্রচন্ড কান্নায় মাকে জড়িয়ে ধরে বললাম, মাগো ও মা,, আমি তোমারই বড় ছেলে, তুমিই আমার মা। তুমি আমাকে এতো বেশি ভালোবেসেছ যে আমাকে কিছু বুঝার সুযোগ দাওনি। সেই মা আমাকে গর্ভে ধারণ করেছে কিন্তু তুমি আমাকে গড়ে তুলেছো।আল্লাহর কাছে অপরিসীম শুকরিয়া তিনি তোমাকেই আমার মা হিসেবে দিয়েছেন। আমার কাছে মায়ের ভালোবাসার চেয়ে মহান কিছু নেই। সেই ভালোবাসা আমি তোমার কাছেই দেখেছি,, শিখেছি। মা ছেলের এক অপূর্ব মিলন। ঘৃণা করতে চায় সেই “সৎ মা” শব্দটাকে।

লেখকঃ

শেখ সুরভী বীথি

আর পড়তে পারেন