শনিবার, ১৭ই আগস্ট, ২০১৯ ইং

সম্পদের জন্য বৃদ্ধা মায়ের ওপর ছেলের নির্মম অত্যাচার, সহ্য করতে না পেরে মায়ের আত্মহত্যা

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
এপ্রিল ৩০, ২০১৯
news-image

 

ডেস্ক রিপোর্টঃ

হতভাগা মা মনোয়ারা (৫০)। সম্পদের জন্য বৃদ্ধা মায়ের ওপর নির্মম অত্যাচার। সহ্য করতে না পেরে অবশেষে আত্মহত্যা করে নিবারণ করলেন নিজের কষ্ট আর দুঃখ। মুক্তি নিলেন ছেলে ও তার পরিবারের সদস্যদের নির্মম নির্যাতন থেকে। শোকাহত করে গেলেন প্রতিবেশীদের। সেই সঙ্গে ছেলেকে মানুষের ঘৃণার সাগরে গেলেন ভাসিয়ে।

ঘটনাটি ঘটেছে গত রবিবার রাত আনুমানিক সাড়ে ১২টার দিকে। যখন তাঁর নিহত দেহ হাজারো বশতিতে গেঁথে তোলা হয় পদ্মা নদীর পানি থেকে। আত্মহত্যাকারী হতভাগা মনোয়ারা ঈশ্বরদীর পাকশী ইউনিয়নের চররুপপুর নওদাপাড়া এলাকার আকমল ফকিরের স্ত্রী।

এলাকাবাসীদের দেওয়া তথ্য মতে, অনেক কষ্ট করে কিছু জমির মালিক হয়েছেন মনোয়ারা-আকমল ফকির দম্পতি। তারা এখন নাতি, নাতনির মানুষ। বয়স শেষের দিকে। এই সময় ছেলে শামসুল মা- বাবার কাছ থেকে সমস্ত সম্পতি লিখে নেওয়ার জন্য চাপ দিতে থাকেন। তাঁরা তা দিতে না চাওয়ায় শুরু করেন শারীরিকভাবে নির্মম নির্যাতন আর ভৎর্সনা।

ঘটনার দিন রবিবার নির্যাতন সহ্য করতে না পেরে সন্ধ্যায় বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান হতভাগা মনোয়ারা বেগম। এরপর খবর আসে তিনি লালন শাহ সেতুর ওপর থেকে পদ্মা নদীতে লাফিয়ে পড়েছেন। খবর পেয়ে পরিবারের অন্যান্য সদস্য মেয়ের জামাই মনোয়ারাকে উদ্ধারের চেষ্টায় নদীতে ফায়ার সার্ভিস এন্ড সিভিল ডিফেন্স সদস্য, স্থানীয়ভাবে জেলে ও আত্মীয়স্বজন নদীতে তল্লাশি শুরু করেন। প্রতিবেশীদের প্রত্যেকেই এই ঘটনায় ছেলে শামসুলের প্রতি তীব্র ঘৃণা প্রকাশ করেন। তার কঠোর শাস্তি হওয়া উচিত বলে মন্তব্য করেন।

সরেজমিনে ঘটনার সময় লালনশাহ সেতুতে গিয়ে দেখা যায়, সেতুর র‌্যালিংয়ের সঙ্গে মনোয়ারার ব্যবহৃত ওড়না বাঁধা রয়েছে। পাশেই পায়ের স্যান্ডেল ও মোবাইল ফোনটি পড়ে আছে। তা অবিরাম বেজে চলেছে।

নিহত মনোয়ারা বেগমের মেয়ে জামাই বরিউল ইসলাম জানান, লাশটি রাত আনুমানিক সাড়ে ১২টার দিকে নদী থেকে উদ্ধার করে বাড়িতে নেওয়া হয়। পরে পুলিশ এসে লাশটি থানায় নিয়ে যায়। আজ (সোমবার) পাবনা থেকে লাশের পোস্টমর্টেম শেষে বিকেলে নিজ বাড়িতে আনা হয়েছে।

এই বিষয়ে থানার দায়িত্ব (ডিউটি অফিসার) উপ-সহকারী পরিদর্শক (এএসআই) আজিজ জানান, এই বিষয়ে মামলার প্রস্তুতি চলছে। নিহতের ছেলে শামসুলকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানা আনা হয়েছে। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত (বিকেল পৌনে ৫টা) থানায় শামসুলের জিজ্ঞাসাবাদ চলছিল।

আর পড়তে পারেন