সোমবার, ২২শে জুলাই, ২০১৯ ইং

মাদকের গডফাদার ধরতে ‘নেক্সট লেভেল মিশন’ শুরু হচ্ছে

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
এপ্রিল ২৬, ২০১৯
news-image

 

ডেক্স রিপোর্টঃ

দেশব্যাপী চলমান মাদকবিরোধী অভিযান এবার ভিন্নমাত্রায় আরও কঠোরভাবে আসছে। দ্বিতীয় পর্যায়ের এ অভিযানকে বলা হচ্ছে ‘নেক্সট লেভেল মিশন’।

এ পর্যায়ে মূলত এতদিন ধরাছোঁয়ার বাইরে থাকা মুখোশধারী মাদক গডফাদারদের আইনের আওতায় আনতে সাঁড়াশি অভিযান চালানো হবে। গডফাদারদের ধরতে এরই মধ্যে আইনে সংশোধনী আনা হয়েছে।

সূত্র জানিয়েছে, পরবর্তী বিশেষ অভিযান পরিচালনা করতে কৌশলগত কিছু প্রস্তুতি সেরে নেয়ার পালা চলছে। তবে অভিযানের প্রস্তুতি এখন এমন পর্যায়ে রয়েছে যে কারও পালানোর সুযোগ নেই। সবাই বিশেষ নজরদারির মধ্যে আছেন।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতরের মহাপরিচালক জামাল উদ্দিন আহমেদ  বলেন, আগের আইনে মাদক ব্যবসার নেপথ্য কারিগরদের গ্রেফতারের ক্ষেত্রে সীমাবদ্ধতা ছিল। এখন আইনটি যুগোপযোগী হয়েছে। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, মাদকের অভিশাপ থেকে দেশকে মুক্ত করতে যা যা করা প্রয়োজন, তার সবই করা হবে। এক্ষেত্রে সরকারপ্রধানের স্পষ্ট নির্দেশনা রয়েছে। ফলে যতই প্রভাবশালী হোক না কেন, মাদকের একজন গডফাদরকেও ছাড়া হবে না।’

সূত্র বলছে, মাদক গডফাদারদের কার্যক্রম ও প্রভাবশালী বলয়ে তাদের ঘনিষ্ঠ যোগাযোগের ‘হট লাইন’ শুরুতেই ভেঙে দিতে চায় আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। এজন্য তাদের ফোনালাপের ওপর নিবিড় পর্যবেক্ষণ ব্যবস্থা (আড়ি পাতা) আরও জোরদার করা হয়েছে। এরই মধ্যে ন্যাশনাল টেলিকমিউনিকেশন মনিটরিং সেন্টারে (এনটিএমসি) এ সংক্রান্ত অফিসিয়াল কার্যক্রম শুরু হয়েছে। সবকিছু ঠিক থাকলে জুনের প্রথম সপ্তাহ থেকেই মাদকবিরোধী অভিযানের এই বিশেষ পর্ব শুরু হবে।

সংশ্লিষ্ট একাধিক সূত্র বলছে, কক্সবাজার ও টেকনাফকেন্দ্রিক কতিপয় মাদক গডফাদার আত্মসমর্পণ করলেও ইয়াবা ব্যবসা বন্ধ হয়নি। কৌশল বদলে সড়কপথের পাশাপাশি ইয়াবা আসছে নৌপথে। এমনকি বিশেষ ব্যবস্থায় আকাশপথেও ইয়াবা আসছে। এতদিন মিয়ানমার থেকে মূলত টেকনাফ সীমান্ত দিয়ে ইয়াবার চালান এলেও এখন ভারতীয় সীমান্ত দিয়েও ইয়াবা আসছে। ফেব্রুয়ারিতে রাজশাহী ও চাঁপাইনবাবগঞ্জ সীমান্তে পর পর তিনটি চালান ধরা পড়ার পর ইয়াবার রুট পরির্তনের এ তথ্য জানা যায়। রাজশাহী বিভাগীয় কমিশনার স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে লেখা এক চিঠিতে ইয়াবা পাচারের নতুন রুটের তথ্য তুলে ধরেন। একই সঙ্গে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতরের রাজশাহী বিভাগীয় কার্যালয় থেকেও ঢাকার প্রধান কার্যালয়ে একই তথ্য সংবলিত প্রতিবেদন পাঠানো হয়। এছাড়া গত মাসে র‌্যাবের হাতে ধরা পড়া একাধিক মাদক ব্যবসায়ী উপকূলীয় এলাকা ব্যবহার করে ইয়াবা চোরাচালানের তথ্য স্বীকার করে।

জানা যায়, র‌্যাব, পুলিশ, বিজিবি ও মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতরের পক্ষ থেকে মাদক গডফাদারদের গোয়েন্দা তথ্য সংগ্রহ প্রায় শেষ পর্যায়ে রয়েছে। এরই মধ্যে বেশ কয়েকটি তালিকা বিভিন্ন বাহিনীর তরফ থেকে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে জমাও দেয়া হয়েছে। এসব তালিকায় মাদকের গডফাদার বা পৃষ্ঠপোষক হিসেবে এমন অনেকের নাম এসেছে যা এতদিন সাধারণ মানুষের কল্পনায়ও ছিল না। এতে সমাজের হাইপ্রোফাইল শ্রেণীর বেশকিছু ব্যক্তির তথ্যপ্রমাণসহ নাম রয়েছে।

তালিকা পর্যালোচনার সঙ্গে যুক্ত একজন গোয়েন্দা কর্মকর্তা  বলেন, সমাজে বিত্তবান ও প্রভাবশালী বলে পরিচিত এমন অনেক ব্যক্তি আসলে মাদকের কারবারি। ভালো মানুষের মুখোশের আড়ালে তারা ইয়াবার বড় বড় চালান এনে গোপন নেটওয়ার্কের মাধ্যমে স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীদের কাছেও বিক্রি করছেন। এবার তারাই হবেন মূল টার্গেট। কোনো তদবিরেই তাদের শেষ রক্ষা হবে না। কেননা এ বিষয়ে জিরো টলারেন্স দেখাতে প্রধানমন্ত্রীর কঠোর নির্দেশনা রয়েছে।

মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতরের অপারেশন শাখার একজন কর্মকর্তা  বলেন, অবিশ্বাস্য হলেও সত্য যে ঢাকায় এখন ইয়াবা আসছে হেলিকপ্টারে করে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর নজরদারি এড়িয়ে নিরাপদে ইয়াবার চালান নামছে নারায়ণগঞ্জ ও রূপগঞ্জে। এজন্য নারায়ণগঞ্জের বেশ কয়েকটি বাড়ির ছাদে হেলিপ্যাডও বানানো হয়েছে। গার্মেন্ট ভিজিটের কথা বলে ভাড়া নেয়া হেলিকপ্টারে নিরাপদে ঢাকায় ঢুকে পড়ছে ইয়াবার বড় বড় চালান। কিন্তু এসব চালান আনার নেপথ্যের কুশীলবরা সমাজের প্রভাবশালী ব্যক্তি হওয়ায় তারা থেকে যাচ্ছেন ধরাছোঁয়ার বাইরে।

এদিকে মাদক গডফাদারদের মোবাইল ফোনে আড়ি পাতার এখতিয়ার চেয়েছে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতর। সম্প্রতি এক চিঠিতে বিষয়টি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে জানানো হয়েছে। এতে বলা হয়, ‘মাদক পাচার, মানি লন্ডারিং ও জঙ্গিবাদের মতো স্পর্শকাতর সামাজিক সমস্যাগুলো একই সূত্রে গাঁথা। অবৈধ মাদক ব্যবসার মূল হোতারা তথ্যপ্রযুক্তির বদৌলতে অনেক ক্ষেত্রে ধরাছোঁয়ার বাইরে থেকে যায়। জাতিকে মাদকের অভিশাপ থেকে রক্ষা করতে হলে এ ব্যবসার সঙ্গে জড়িত রাঘববোয়ালদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দেয়া প্রয়োজন। কিন্তু বেশির ভাগ ক্ষেত্রে মাদকসম্রাটরা অধরা থেকে যাচ্ছে।’

এ সংক্রান্ত চিঠিতে গডফাদারদের ফোনে আড়ি পেতে অভিযানে সফলতার উদাহরণ টেনে আরও বলা হয়, ‘২০১৭ সালে এনটিএমসির (ন্যাশনাল টেলিকমিউনিকেশন মনিটরিং সেন্টার) সহায়তায় একটি বড় কোকেনের চালান সফলভাবে জব্দ করা সম্ভব হয়। এ অবস্থায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতর এনটিএমসির সদস্য হলে দেশের মাদক সিন্ডিকেটের বিরুদ্ধে দৃশ্যমান ও কার্যকর ব্যবস্থা নিতে পারবে।’ মাদক গডফাদারদের ফোনে আড়ি পাতা সংক্রান্ত নারকোটিক্সের এ প্রস্তাবে প্রাথমিক সম্মতি দিয়েছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সূত্র বলছে, মুখোশধারী অনেক মাদক গডফাদার ধরাছোঁয়ার বাইরে রয়ে গেছে। এখন তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার সময় এসেছে। দেশকে মাদকের অভিশাপ থেকে মুক্ত করতে এবার ‘বিশেষ অ্যাসাইনমেন্ট নিয়ে মাঠে নামবে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। কর্মকর্তারা বলছেন, আগে মাদকবিরোধী অভিযানের ক্ষেত্রে কিছু আইনগত সীমাবদ্ধতা ছিল। মাদকসহ আসামি গ্রেফতার না হলে মামলায় কাউকে আসামি করা যেত না। কিন্তু সম্প্রতি মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন-২০১৮ এর সংশোধনীতে মাদক ব্যবসার মদদদাতা ও গডফাদারদেরও আইনের আওতায় আনার বিধান রাখা হয়েছে। আইনের ৪০ নম্বর ধারায় বলা হয়েছে, ‘কোনো ব্যক্তি কোনো মাদকদ্রব্য অপরাধ সংঘটনে অর্থ বিনিয়োগ করিলে অথবা অর্থ সরবরাহ করিলে অথবা সহযোগিতা প্রদান করিলে অথবা পৃষ্ঠপোষকতা করিলে তিনি সংশ্লিষ্ট ধারায় নির্ধারিত দণ্ডের অনুরূপ দণ্ডে দণ্ডিত হইবেন।’

আর পড়তে পারেন