রবিবার, ২৫শে মে, ২০১৯ ইং

পুষ্টি, অপুষ্টি ও খাদ্য

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
এপ্রিল ২২, ২০১৯
news-image

মোঃ আবদুল আউয়াল সরকার :

পুষ্টি : যে শরীরবৃত্তীয় প্রক্রিয়ায় জীব খাদ্যবস্তু গ্রহণ, পরিপাক, পরিশোধন ও আত্তীকরণের মাধ্যমে দেহের ক্ষয় পূরণ, বৃদ্ধি সাধন ও শক্তি উৎপাদিত হয় তাকে পুষ্টি বলে।
অপুষ্টি : প্রয়োজনের তুলনায় কম বা বেশি খাবার খেলে তা শরীরকে অসুস্থ করে তুলে একেই বলে অপুষ্টি।
খাদ্য : যেসব জৈব উপাদান জীবের দেহ গঠন, ক্ষয়পূরণ এবং শক্তি উৎপাদনে ব্যবহৃত হয় সেগুলোকে খাদ্য বলে।

অতিরিক্ত ওজনের শিশুদের ৮৩ শতাংশই হলো উন্নয়নশীল দেশের। এর একটি বড়ো অংশ বাংলাদেশে। বর্তমান সমস্যার বৃদ্ধি রোধে শিশুদের বাবা ও মায়েদের প্রতি গবেষকবৃন্দের পরামর্শ হোল, পরিবারের সবার জন্য পরিমিত, কম ক্যালরিযুক্ত ও সুষম পুষ্টিকর খাদ্য গ্রহণের অভ্যাস গড়ে তোলা। ফাস্টফুড নির্ভরতা পরিহার করা। শিশুদের স্কুলে ও বাড়িতে খেলাধুলায় অংশগ্রহণ এবং অবসর সময়ে শারীরিকভাবে পরিশ্রমে সক্রিয় রাখে এমন বিনোদনমূলক কাজে ব্যস্ত থাকতে উদ্বুদ্ধ করা।

এদেশের সাতটি প্রধান শহরের বিত্তবান পরিবারগুলোর ৪৪ শতাংশ শিশু অতিরিক্ত ওজন বৃদ্ধি ও স্থুলতায় আক্রান্ত হয়ে চলেছে। এটি একটি জরিপের তথ্য, যা অতিশয় গুরুত্ববহ। এর ফলে তাদের মধ্যে নানা ধরনের রোগের বহিঃপ্রকাশ ঘটতে দেখা যাচ্ছে। এটি বিত্তবান শ্রেণীর শিশু ও কিশোর-কিশোরীদের চিত্র, যা দুর্ভাবনার বিষয়। অর্থাৎ আমরা সুস্থ সদস্যের প্রজন্ম পাওয়া থেকে বঞ্চিত হওয়ার একটি পরিস্থিতির মুখোমুখি হতে চলেছি আমাদের ভবিষ্যতের দিনগুলো। বড়ো বিষয় এই যে, সুস্থ-সবল সক্ষম প্রজন্মের সদস্যদের নিয়ে জাতি গঠনের প্রয়োজনীয়তার বিষয়ে যে সচেতনতা আমাদের পরিবারগুলোর ভেতরে থাকা দরকার, বাস্তবে তা নেই।

স্বাস্থ্যবস্থা বিশেষজ্ঞরা জানাচ্ছেন, সম্পন্ন ঘরের সচ্ছল পরিবারগুলোতে শিশুদের পাশাপাশি তাদের মায়েদেরও মোটা হয়ে যাওয়ার ধারা প্রকট হয়ে উঠেছে।
এই সময়ের শহর এলাকার স্কুলগামী শিশুদের মধ্যে অপুষ্টি ও অতিপুষ্টি এই ধরনের দুটি সঙ্কটই বিদ্যমান। দরিদ্র ও স্বল্প আয়ের পরিবারে পরিস্থিতিগত কারণেই অপুষ্টির সমস্যা থাকে। পরিবারগুলোকে তাদের অর্থনৈতিক সীমিত ও দুর্বল সামর্থ্যকে সঙ্গী করে নিরন্তর অপুষ্টিকে জয় করার সংগ্রাম করে। তাদেরকে চেষ্টা করে যেতে হয় অভাবকে অতিক্রম করার মাধ্যমে সন্তানের মুখে খাদ্যের স্বাভাবিক যোগান সচল রাখার। কিন্তু বিত্তবান শ্রেণীর কাছে রয়েছে সন্তানের জন্যে পুষ্টির খাদ্য সরবরাহের অঢেল সুযোগ।

এই অঢেল সুযোগের যে অপব্যবহার সিংহভাগ ক্ষেত্রে হয়, তা আমরা জরিপের ফলাফল থেকেই উপলব্ধি করতে পারি। পাশাপাশি তাদের মায়েদেরও মোটা হয়ে যাওয়ার প্রবণতাই বলে দেয় বিত্তবানের গৃহে অভিভাবকেরা নিজেরাই সচেতন নয়। অতিরিক্ত ওজন ও স্থুলতার কারণে শিশুর শৈশবে তো বটেই, পরিণত বয়সেও ডায়াবেটিস, উচ্চ রক্তচাপ, ক্যান্সার, হার্টের অসুখ ও অন্যান্য প্রাসঙ্গিক রোগ জটিলতার শিকার হতে পারে।

অতিরিক্ত ওজন ও স্থ~ল শিশুদের ৭০ শতাংশের বয়স ৫ থেকে ১২ বছরের মধ্যে। অন্যদের ১৩ থেকে ১৮ বছরের মধ্যে। অতিরিক্ত ওজন ও স্থুলতার হার ছেলেমেয়েদের মধ্যে সমান। শিক্ষিত পরিবারে অতিরিক্ত ওজন ও স্থুল শিশুর সংখ্যা বেশি। আয়ের উপর ভিত্তি করে পরিচালিত জরিপেও দেখা যায়, সর্বোচ্চ আয়ের স্তরে থাকা ২০ শতাংশ পরিবারের ৪৪ শতাংশ শিশু অতিরিক্ত ওজন ও স্থুলতায় আক্রান্ত।

আর ২২ শতাংশ শিশুর ওজন স্বাভাবিক। জরিপে দেখা গেছে, ৭০ শতাংশ শিশুর স্কুলে কিংবা বাড়ির আশেপাশে খেলার মাঠে যাওয়ার সুযোগ আছে, কিন্তু ৪৫ শতাংশ শিশুরা মাঠে যায়। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ৯৪ শতাংশ শিশুর শারীরিক প্রশিক্ষণের ক্লাশ থাকলেও অংশ নেয় ৬২ শতাংশ। জরিপে অন্তর্ভুক্ত অর্ধেকের বেশি শিশু সপ্তাহে তিন-চারবার শিঙারা, সমুচা, চপ, বেগুনি ও পিঁয়াজু খায়। ২০ শতাংশ শিশু সপ্তাহে গড়ে একবার পিৎজা, বার্গার, ফ্রাইড চিকেন বা এই ধরনের অন্যান্য ফাস্ট ফুড খায়। এই জাতীয় খাবারের ধরনেই বোঝা যায় এসব শিশুর অতিপুষ্টির শিকার হওয়া থেকে রেহাই পাওয়ার সম্ভাবনা কম।

আর পড়তে পারেন