মঙ্গলবার, ২০শে আগস্ট, ২০১৯ ইং

কুমিল্লা টাউন হলের ১৩৪ বছর

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
এপ্রিল ২২, ২০১৯
news-image

 

স্টাফ রিপোর্টারঃ
সময়টা ছিল ১৮৮৫ সাল। তখন শহরের শিক্ষার্থীদের সহশিক্ষা কার্যক্রমের সুযোগ ছিল সীমিত। জ্ঞান অন্বেষণের জন্য ছিল না পাঠাগার। বিষয়টি আঁচ করতে পেরে শিক্ষানুরাগী বেশ কজন ব্যক্তি উদ্যোগী হলেন পাঠাগার করার জন্য। তাঁরা শরণাপন্ন হলেন তৎকালীন জেলা প্রশাসক এফ এইচ স্ক্রাইনের। জেলা প্রশাসক ওই দাবির সঙ্গে একাত্মতা প্রকাশ করেন। তিনি তৎকালীন ত্রিপুরা জেলার চাকলা রোশনাবাদের জমিদার নরেশ মহারাজ ‘বীরচন্দ্র মানিক্য বাহাদুর’-এর কাছে জমি চান। মহারাজ কুমিল্লা শহরের প্রাণকেন্দ্র কান্দিরপাড়ে ১০ বিঘা জমির ওপর একটি ভবন নিজস্ব অর্থায়নে করে দেন। ওই ভবনই কুমিল্লার গণপাঠাগার ও নগর মিলনায়তন, যা কুমিল্লা টাউন হল নামে পরিচিত।

এখন কুমিল্লাবাসীর সব কর্মযজ্ঞের কালের সাক্ষী কুমিল্লা টাউন হল। শহরের প্রাণকেন্দ্র কান্দিরপাড়ে মনোরম স্থাপত্যশৈলীটি ছোট-বড় সবারই দেখা। একে কেন্দ্র করেই বিকশিত হচ্ছে কুমিল্লার শিক্ষা, সংস্কৃতি, রাজনীতি, আর্থসামাজিক ও কল্যাণমুখী নানা কর্মকাণ্ড। এ বছর প্রতিষ্ঠানটির ১২৫ বছর পূর্তি। ঐতিহ্য আর গৌরবের এমন মাহেন্দ্রক্ষণকে স্মরণীয় করে রাখতে কর্তৃপক্ষ ২১ ডিসেম্বর আয়োজন করছে নানা কর্মসূচি। এ জেলার সব সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ডের কেন্দ্রবিন্দুও এ টাউন হল। এখান থেকেই কুমিল্লায় বায়ান্নর ভাষা আন্দোলন পরিচালিত হয়েছে। টাউন হলের মাঠেই একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধের সময় কুমিল্লার প্রশাসকের দায়িত্ব নেন প্রবীণ আইনজীবী আহমদ আলী। এই টাউন হলেরই সাধারণ সম্পাদক ছিলেন ভাষাসৈনিক শহীদ ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত।

জানা গেছে, ১৮৮৫ সালের ৬ মে প্রতিষ্ঠিত কুমিল্লা টাউন হলের সংস্কারকাজ হয়েছে দুই দফায়। ১৯৩৩ সালে একবার এবং দ্বিতীয় দফা ২০০২ সালে। এর পরও টাউন হলের মূল মিলনায়তনের ভেতরে পানি ওঠে। পুরোনো ভবনের পলেস্তারা খসে পড়েছে। স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় এক কোটি ১৭ লাখ টাকায় সংস্কারকাজ করলেও এটি আগের অবস্থাতেই রয়েছে। রয়েছে সাউন্ড সিস্টেমের সমস্যা। দীর্ঘ সময়েও বাড়েনি এর আসন।

কুমিল্লা টাউন হলের রয়েছে একটি শক্তিশালী পরিচালনা পর্ষদ। জেলা প্রশাসক পদাধিকারবলে এর সভাপতি। অন্য পদগুলোতে দুই বছর অন্তর নির্বাচন হয়। প্রথমে ১৫ জন কাউন্সিলর সাধারণ সদস্যদের ভোটে নির্বাচিত হন। তাঁদের মধ্য থেকে একজন সহসভাপতি, একজন সাধারণ সম্পাদক, দুজন সহসাধারণ সম্পাদক নিযুক্ত হন। বাকি ১১ জন কাউন্সিলর হিসেবে কার্যনির্বাহী কমিটিতে থাকেন। মূলত কাউন্সিলরদের মাধ্যমে এর সার্বিক কার্যক্রম পরিচালিত হয়ে থাকে।

কুমিল্লা টাউন হলের সাধারণ সদস্যসংখ্যা এক হাজার। প্রতিবছর নতুন করে সদস্য নেওয়া হয়। সাধারণ সদস্যদের নিয়ে সাধারণ সভা হয়। কেবল দ্বিতীয় মহাযুদ্ধ ও ১৯৭১ সালে সাধারণ সভা হয়নি। টাউন হলের দুটি বিভাগ রয়েছে। একটি গণপাঠাগার, অন্যটি নগর মিলনায়তন। এর মধ্যে পাঠাগারের নিয়মিত সদস্যসংখ্যা ৬০০।

আজীবন সদস্য ১৪ জন। পাঠাগারে এনসাইক্লোপিডিয়া ব্রিটানিকা, রাজমালা থেকে শুরু করে পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের কবি, সাহিত্যিক, রাজনৈতিক ও ধর্মীয় মনীষীদের রচনাসমগ্র রয়েছে। এখানে বাংলা ভাষার ২৪ হাজার বই ও ইংরেজি ভাষার ছয় হাজার বই রয়েছে। ৩০ হাজার বই দিয়ে ৬৩টি আলমারি সজ্জিত। সদস্যরা একসঙ্গে এক সপ্তাহের জন্য তিনটি বই নিতে পারেন। তা ছাড়া সংরক্ষিত গ্রন্থগুলো পাঠাগারে বসে পাঠ করা যায়। টাউন হল ভবনের দ্বিতীয় তলায় যে কেউ গেলে সেখানে অধ্যয়ন করতে পারবেন। টাউন হলের নিচতলায় সর্বসাধারণের জন্য উন্মুক্ত রাখা হয়েছে ৪৪টি জাতীয়, আঞ্চলিক, স্থানীয় দৈনিক পত্রিকা ও সাময়িকী। যে কেউ চাইলে পুরোনো পত্রিকার কপি দেখতে পারেন।
কুমিল্লা টাউন হলের রয়েছে দৃষ্টিনন্দন সৌন্দর্য। এখানকার নগর মিলনায়তনটি শহরের কান্দিরপাড়ের প্রধান সড়কের উত্তর পাশে অবস্থিত। প্রধান সড়কের পাশে জনসভার জন্য বিস্তৃত মাঠের পর দক্ষিণমুখী ভবনটি নগর মিলনায়তন এবং পাশে রয়েছে সর্বসাধারণের জন্য উন্মুক্ত পাঠাগার। মাঠের দিকে মুখ করে ভবনের সামনের ভাগে রয়েছে প্রশস্ত বারান্দা, দ্বিতলে, যা জনসভার মঞ্চ হিসেবে ব্যবহূত হয়। প্রধান হলঘরে রয়েছে মনোরম মঞ্চ ও দ্বিতলে ব্যালকনিসহ মোট দর্শক আসনসংখ্যা ৪৭২। এখানে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, সেমিনারসহ রাজনৈতিক, সামাজিক ও ধর্মীয় অনুষ্ঠান আয়োজনের ব্যবস্থা রয়েছে, আছে আলোকবিন্যাসের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা।
কুমিল্লার সামাজিক ও সাংস্কৃতিক অঙ্গনে সেবা দেওয়ার জন্য এ প্রতিষ্ঠানের জুড়ি নেই। নামমাত্র মূল্যে যে কেউ টাউন হলের মাঠ ও হল ভাড়া নিতে পারেন।

এ টাউন হলে পদধূলি দিয়েছেন মহাত্মা গান্ধী, বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, বিদ্রোহী কবি কাজী নজরুল ইসলাম, দেশবন্ধু চিত্তরঞ্জন দাস, মওলানা ভাসানী, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, জিয়াউর রহমান, রাষ্ট্রপতি মো. জিল্লুর রহমান, বর্তমান ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী যথাক্রমে শেখ হাসিনা ও খালেদা জিয়া। এর মধ্যে বর্তমান রাষ্ট্রপ

সেলিম সজীব / আজকের কুমিল্লা

আর পড়তে পারেন