শনিবার, ১৭ই আগস্ট, ২০১৯ ইং

মনোহরগঞ্জে ভুয়া ডাক্তার আটক, ৩ মাসের কারাদণ্ড

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
এপ্রিল ১৬, ২০১৯
news-image

 

শাহাদাত হোসেন :

কুমিল্লার মনোহরগন্জ উপজেলার মিতা ফার্মেসী থেকে মানিক চন্দ্র দেবনাথকে ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে তিন মাসের জেল ও মিতা ফার্মেসীকে ২০০০০ হাজার টাকা জরিমানা করে। মনোহরগন্জ উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা শামীম ভানু শান্তি।

তার প্রতারণার শিকার হয়ে একাধিক রোগী আর্থিক ও শারীরিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, উপজেলার সদরের মনোহরগন্জ বাজারের পশ্চিম পাশে এম মজুমদার মেডিসিন কর্নার।

পরে তার অপচিকিৎসা সাধারন মানুষেমানুষের কাছপ ধরা পড়লে এম মজুমদার মেডিসিন কর্নার থেকে বের করে দেওয়া হয়।
পরে মিতা ফার্মেসীতে গিয়ে পুনরায় তার অপচিকিৎসা চালু করে।
নামের আগে ডাক্তার। নিচে ডিগ্রি চারটি। ডিএমএ, ডিইউএমএস, টিএইচসিএইচ ও ডিএইচএমএস।
একটির সাটিফিকেট দেখাতে পারেননি ডাক্তার মানিক চন্দ্র দেবনাথ।
বিশেষজ্ঞ সেজে চলছে প্রতারণা ব্যবসা। বিভিন্ন শ্রেণি পেশার মানুষ শ্রমিক ও নিম্ন আয়ের লোকজন না বুঝে তার কাছে যাচ্ছেন।

নুর জাহান নামে একজন নারী বলেন;অামার সমস্যা হয়েছিল মাথা ব্যথা। অামি মানিক চন্দ্র দেবনাথের কাছে যাই।তার কাছে যাওয়ার পর একটা মেশিনে অামার হাত রাখতে বলে; এর কিছুক্ষন পর মানিক চন্দ্র দেবনাথ ল্যাপটপ দেখে বলেন অামার কিডনিতে সমস্যা; হার্ডে সমস্যা হয়েছিল। অামার কাছ থেকে ২০০০ হাজার টাকা নিছে।
কিডনির সমস্যার কথা শুনে আমি লাকসাম জেনারেল হাসপাতালে গিয়ে পরিক্ষা করি। সেখানে কোন সমস্যা পাওয়া যায়নি।

আজাদ হোসেন বলেন আমি মানিক চন্দ্র দেবনাথের কাছে যাই, সে ল্যাপটপ ডিভাইসের মাধ্যমে আমার কিডনি, হার্ড, লিভারে সমস্যার কথা বলে।আমার কাছ থেকে ১০০০ হাজার টাকা নেয়। কিন্তু লাকসাম সেন্ট্রাল ল্যাবে পরীক্ষা করে কোন সমস্যা পাওয়া যায়নি

আর পড়তে পারেন