বুধবার, ২৬শে জুন, ২০১৯ ইং

বনানীর এফ আর টাওয়ারের জমির মালিক ও বিএনপি নেতা গ্রেপ্তার

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মার্চ ৩১, ২০১৯
news-image

 

ডেস্ক রিপোর্ট :

অগ্নিকাণ্ডের শিকার বনানীর এফ আর টাওয়ারের জমির মালিক এস এম এইচ আই ফারুককে (৬৫) গ্রেপ্তার করেছে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশ (উত্তর)।

গতকাল শনিবার দিবাগত রাতে ফারুককে রাজধানীর বসুন্ধরা আবাসিক এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। এর আগে নকশাবহির্ভূত ও বর্ধিত অংশের মালিক তাসভীর উল ইসলামকে রাত ১০টা ৪৫ মিনিটের দিকে বারিধারার নিজ বাসা থেকে গ্রেপ্তার করে ডিবি পুলিশ।

ডিবি পুলিশের অতিরিক্ত উপকমিশনার (এডিসি) গোলাম সাকলাইন সিথিল এনটিভি অনলাইনকে বলেন, ‘শনিবার রাত দেড়টার দিকে ফারুককে গ্রেপ্তার করা হয়। তার আগে পৌনে ১১টার দিকে তাসভীর উল ইসলামকে গ্রেপ্তার করা হয়। তাঁদের দুজনকে ডিবি হেফাজতে রাখা হয়েছে।’

গত বৃহস্পতিবার বনানীর কামাল আতাতুর্ক এভিনিউর পাশের ১৭ নম্বর সড়কে ফারুক রূপায়ণ (এফ আর) টাওয়ারের ভয়াবহ আগুনে ঘটনাস্থলে ২৫ জন এবং হাসপাতালে আরো একজন নিহত হন। এ ঘটনায় আহত হন ৭৩ জন।

ডিবির অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (এডিসি) সাজাহান সাজু জানান, এফ আর টাওয়ারে আগুনের হতাহতের ঘটনায় শনিবার বনানী থানায় অবহেলাজনিত মৃত্যু সংঘটনের অভিযোগে একটি মামলা করা হয়েছে। এতে তাসভীর উল ইসলাম ছাড়াও রূপায়ণ গ্রুপের চেয়ারম্যান লিয়াকত আলী খান মুকুল ও বুয়েটের অবসরপ্রাপ্ত প্রকৌশলী এস এম এইচ আই ফারুককে আসামি করা হয়।

১৯৯৬ সালের ১২ ডিসেম্বরে ভূমি মালিক ইঞ্জিনিয়ার ফারুক ও রূপায়ণ গ্রুপ যৌথভাবে নকশা অনুমোদনের জন্য আবেদন করে। তখন রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (রাজউক) ১৮ তলা ভবন নির্মাণের জন্য নকশা অনুমোদন দেয়। পরে ২০০১ সালে বিএনপি ক্ষমতায় আসার পর ভবনটিকে ২৩ তলা পর্যন্ত বর্ধিত করে নির্মাণ করা হয়। ডেভেলপার কোম্পানি ভবনটির ২০ ও ২১তম তলাটি জাতীয় পার্টির প্রয়াত সাবেক সংসদ সদস্য মাইদুল ইসলামের কাছে বিক্রি করে। মাইদুল ইসলামের কাছ থেকে ফ্লোর দুটি কিনে নেন কাশেম ড্রাইসেলসের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও বিএনপি নেতা তাসভীর উল ইসলাম। এরপর তিনি নকশা পরিবর্তন করে ছাদের ওপর আরো দুটি ফ্লোর নির্মাণ করেন।

ভবনটি অনিরাপদ ছিল কেন—এমন প্রশ্নে ঘুরেফিরে অভিযোগ উঠেছে ভবন মালিক, নির্মাতা প্রতিষ্ঠান ও রাজউকের বিরুদ্ধে। দুর্ঘটনার কিছুক্ষণের মধ্যেই রাজউক জানায়, ভবনটির অনুমোদন ছিল ১৮ তলার, সেটি ২৩ তলা পর্যন্ত উঠে গেছে। তবে কীভাবে তা ২৩ তলা হয়ে গেল, তার সমর্থনে নথিপত্র রাজউকের নথিতে নেই।

পুলিশ মহাপরিদর্শক মোহাম্মদ জাবেদ পাটোয়ারীও প্রশ্ন তুলেছেন, গত ১৪ বছর বিষয়টি জেনেও কেন রাজউক চুপ করে ছিল। ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র আতিকুল ইসলামও বলেছেন, বহুতল ভবনে অনিয়মের ব্যাপারে তাঁরা এখন জিরো টলারেন্স। এখন আর কথা বলার সময় নেই। এখন অ্যাকশনের সময়।

রাজউক জানায়, ভবনটি ১৮ তলা নির্মাণের জন্য প্ল্যান পাস হয় ১৯৯৬ সালে। কিন্তু ২০০৫ সালে এসে ভবন মালিক কর্তৃপক্ষ একটা কপি দাখিল করেন যে ভবনটি ২৩ তলা হয়েছে। সেটাতে সন্দেহ হওয়ার কারণে তদন্ত শুরু করে রাজউক। সেই তদন্তে দেখা যায়, যে কপি তারা দাখিল করেছেন, সে সম্পর্কে রাজউকের রেজিস্ট্রারে কোনো তথ্য নেই। এ ব্যাপারে ২০০৭ সালে রাজউক একটি রিপোর্টও তৈরি করে। তবে ধারণা করা হচ্ছে, রাজউকের কিছু অসাধু কর্মকর্তার কারণে পরে এ বিষয়ে কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়নি।

আর পড়তে পারেন