রবিবার, ২৬শে মে, ২০১৯ ইং

মানবিক উন্নয়ন ও সমাজের হালচাল

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মার্চ ২৬, ২০১৯
news-image
ইমরান মাহফুজঃ
পত্রিকার শ্রেণিবদ্ধ পাতায় ‘পাত্র- পাত্রী’ চাই বিজ্ঞাপন দেখলে সমাজ সম্পর্কে একটা ধারণা পাওয়া যায়, বিয়ের বাজারে কোন ধরনের ছেলেমেয়েদের চাহিদা কেমন। এই চাহিদার পরিবর্তনও হয়- আগে পাত্রীর ক্ষেত্রে দেখা হতো মেয়ের বাবার অর্থনৈতিক অবস্থা, এখন দেখা হয় মেয়ের শিক্ষাগত যোগ্যতা।
সাথে যোগ্য পাত্রী হতে হলে ফর্দটা হয় বেশ লম্বাই। পাত্রী চিকিৎসক, প্রকৌশলী যা-ই হোন না কেন, প্রথমত ‘সুন্দরী’ হতে হবে এই ধারণার খুব একটা বদল ঘটেনি। এরপর লম্বা চুল, ফরসা ত্বক, উচ্চতা, বয়স, মেধা, শিল্পপতির মেয়ে ইত্যাদি চাওয়া হচ্ছে পাত্র পক্ষ থেকে।

খ.
মেয়ের জন্য পাত্র চাই। মেয়ের যোগ্যতা যেমনি হউক ছেলেকে ‘সেরা’ হওয়া চাই। কিছু দিন আগে একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের স্নাতকোত্তর পড়ুয়া পাত্রী লিখেছেন, ‘আমি খুব সুন্দরী নই, তবে দেখতে খারাপ নই।’ আরেক পাত্রী ‘প্রতিষ্ঠিত, সুন্দর, গ্র্যাজুয়েট, ভালো পরিবার, ভালো জব…’ এসব গুণের পাত্র চেয়েছেন। আরেকজন ‘ফ্রেশ মাইন্ডের স্মার্ট’ পাত্র চেয়েছেন।

এহেন ভণ্ডামির বিজ্ঞাপন দেখে ধৈর্য্য রাখা মুশকিল হয়।
খোঁজ নিলে দেখবেন এদের বৈবাহিক অসন্তোষ লেগেই আছে। বিয়েই থাকে হরেক রকমের রঙিন পোশাকী আয়োজন, কিন্তু সংসারে থাকে না রঙিন ভাবনার জীবনবোধ। মাঝেমধ্যে আধুনিক কালেও যোগ্যতার বহর শুনে বোবা হয়ে বসে থাকি। ধর্ম বুঝে না, পালন করে না, কিন্ত পাত্র-পাত্রী চাই বিজ্ঞাপনে ধর্মীয় নিষ্ঠার পরিচয় মিলে। অথচ কেউ দেখে না মানসিকতা, মানবিকতা, সহমর্মিতা মা মাটি মানুষের প্রতি। একমাত্র সুন্দর মন ও জীবন ভাবনায় সুখকে দীর্ঘস্থায়ী করতে পারে।

গ.
অন্য দিকে বিশেষ করে বাংলাদেশ ও ভারতে কথিত বিয়ে নামক আবদ্ধে হয়ে প্রায় ৭০ থেকে ৮০ ভাগ নারী ধর্ষিত হচ্ছে। বেশিরভাগ ঘটনাই ঘটে বাড়িতে চেনাজানা পরিবেশে। এটিও যে ধর্ষণের মতো ঘৃণ্য অপরাধ। উভয়ের জন্যই বিয়ে হচ্ছে এমন একটি প্রথা যা শোষণের অনেক বড় একটা হাতিয়ার । আবার কখনো পুরুষ হওয়া সত্ত্বেও পুরুষতন্ত্রের শিকার হচ্ছে বলে নীরবে খবর বাতাসে উড়ে!

আপন মানুষ জানে না কিংবা মানে না। জীবনের ভেতর বাহির কে কাকে দেখবে… কেউ নেই। এইভাবে শত প্রশ্ন নিয়ে আমরা শুভ সকাল জানাই— অশুভ রাতে বালিশ ধরে রাখি। ঘুমিয়ে পড়ে বালিশ। এটাই একুশ শতক! উত্তরাধনিকতা…
মানুষ হিসেবে নারী বা পুরুষের প্রতি দৃষ্টিভঙ্গিতে মৌলিক কোনো পরিবর্তন আসেনি অভিভাবকদের বা সমাজের।
পণ্য সভ্যতার বিষ এইভাবে ডুকে পড়ছে আমাদের সমাজে। সমাজ চিন্তকদের চোখে আসে না। বলে না কথা এই অন্ধকার নিয়ে।
পুঁজিতন্ত্রের বেড়াজাল থেকে মানুষের মুক্তি মিলবে না, অধরা থাকবে আর কতকাল? ভাবুন জীবন সুন্দর… কিন্ত জীবন সুন্দর রাখতে কী কাজ করি।
মানুষের জন্য মানুষের জীবন এই কথা বইতে না থেকে বাস্তবতা আসুক। সবার জীবন আনন্দের হউক। ভালবাসা যুক্ত হউক প্রতিদিন।
বেচে থাকার জন্য একটা জিনিস খুব দরকার। শুভকামনা 💚

লেখকঃ
ইমরান মাহফুজ
কবি ও সাহিত্যিক,ঢাকা।

আর পড়তে পারেন