শনিবার, ১৭ই আগস্ট, ২০১৯ ইং

চৌদ্দগ্রামে প্রেমিকার আত্মহত্যা, খবর শুনে বিষপানে প্রেমিকও আত্মহত্যা করলেন

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মার্চ ২৫, ২০১৯
news-image

স্টাফ রিপোর্টারঃ
কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামে প্রেমিকার আত্মহত্যার খবর শুনে নোমান ওরফে রুমন (২২) নামে এক যুবক বিষ পানে আত্মহত্যা করেছে বলে খবর পাওয়া গেছে। সে উপজেলার শুভপুর ইউনিয়নের চাঁন্দপুর পশ্চিম পাড়া মুন্সী বাড়ীর আব্দুল হাকিমের ছেলে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, রবিবার  বিকেলে তার প্রেমিকা উপজেলার একই ইউনিয়নের পাশাকোট গ্রামে রুমা গলায় ওড়না পেঁছিয়ে আত্মহত্যা করেছে শুনে রাতের কোন এক সময় কুমিল্লার কোটবাড়িতে ছাত্রাবাসে বিষ পান করে। সোমবার (২৫ মার্চ) সকালে ঘুম থেকে উঠছেনা দেখে ছাত্রাবাসের অন্য সদস্যরা তাকে জাগাতে গেলে অজ্ঞান অবস্থায় দেখতে পেয়ে দ্রুত স্থানীয় একটি বেসরকারী হাসপাতালে নিয়ে যায়। পরে হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত বলে ঘোষনা করে। এ ঘটনায় এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। এর আগে চৌদ্দগ্রামে রুমা আক্তার (১৮) নামে এক কলেজ ছাত্রীর আত্মহত্যার খবর পাওয়া গেছে। সে উপজেলার শুভপুর ইউনিয়নের পাশাকোট গ্রামের নুরুল ইসলামের মেয়ে এবং পাশ্ববর্তী মুন্সীরহাট প্রকৌশলী ওয়াহিদুর রহমান ডিগ্রী কলেজের দ্বাদশ শ্রেণীর ছাত্রী।

জানা যায়, রবিবার (২৪ মার্চ) দুপুরের কোন এক সময় গলায় ওড়না পেঁছিয়ে ঘরের ভুতুরের সাথে ঝুলে ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করে সে। বিকেল চারটার দিকে ঘরের ভুতুরের সাথে ঝুলন্ত অবস্থায় রুমাকে দেখতে পেয়ে পরিবারের লোকজন তাকে উদ্ধার করে দ্রুত স্থানীয় মুন্সীরহাট নেছারিয়া জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত বলে ঘোষণা করেন। এদিকে কলেজ ছাত্রীর আত্মহত্যার খবর পেয়ে চৌদ্দগ্রাম থানার ওসি (তদন্ত) শুভরঞ্জণ চাকমার নেতৃত্বে পুলিশের একটি টিম ঘটনাস্থলে পৌঁছে সুরতহাল রিপোর্ট শেষে ময়না তদন্তের জন্য থানায় নিয়ে যায়। স্থানীয় সূত্রে আরো জানা যায়, কলেজ ছাত্রী রুমার সাথে রুমন নামে একই কলেজের আরেক ছাত্রের সাথে দীর্ঘদিন ধরে প্রেমের সম্পর্ক চলছিল। সে একই ইউনিয়নের চাঁন্দপুর গ্রামের আব্দুল হাকিমের ছেলে। রুমার পরিবারের দাবি, প্রেমঘটিত কারণেই রুমা আত্মহত্যা করেছে। এ বিষয়ে রুমার মা বলেন, ‘রুমন আমার মেয়ের সাথে প্রায়ই মোবাইলে কল দিয়ে কথা বলত। আট মাস আগে আমার মেয়ের সাথে রাগ করে রুমন বিষও খেয়েছিল। এখন আমার মেয়েই মারা গেল। আমার মেয়ের মৃত্যুর জন্য রুমনই দায়ী।’

এ বিষয়ে চৌদ্দগ্রাম থানার ওসি (তদন্ত) শুভরঞ্জন চাকমা বলেন, মেয়ের মা বলেছে রুমন নামে একটা ছেলে রুমার সাথে কথা বলত। প্রাথমিকভাবে প্রেম ঘটিত আত্মহত্যা বলেই ধারণা করা হচ্ছে। আত্মহত্যার খবর পেয়ে লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসি। রুমার পরিবারের অভিযোগ পেলে তদন্ত সাপেক্ষে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

আর পড়তে পারেন