বুধবার, ২০শে আগস্ট, ২০১৯ ইং

ধর্ষণ! মানব সৃষ্ট নতুন মহামারি

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মার্চ ২৪, ২০১৯
news-image

মুহা. ফখরুদ্দীন ইমনঃ
ধর্ষণ! বর্তমানে যেন ভয়ংকর এক মহামারির নাম। খবরের পাতা খুললেই আৎকে উঠি সর্বদা। এমন কোন দিন নেই যে, পাঁচ-দশটি ধর্ষণ, গণধর্ষণ বা ধর্ষণের পর হত্যা এমন ঘটনা চোখে পড়েনি। একি হল? ‘ধর্ষণ’ তবে হালের এক ভয়ংকর মহামারি! ঊনবিংশ শতাব্দিতে বা তারও আগে ভারতীয় উপমহাদেশের প্রায় সব দেশেই কিছু মহামারি বিদ্যমান ছিল। যার অন্যতম ছিল, ডায়রিয়া, ম্যালেরিয়া, কলেরা, গুটি বসন্ত প্রভৃতি। এসব মহামারিগুলো আমাদের দেশেও ছিল বলেই ইতিহাস থেকে জানতে পারি। চিকিৎসা বিজ্ঞানের অগ্রগতির অভাবে বিনা চিকিৎসায় অথবা রোগ নির্ণয়ের ব্যর্থতায় কিংবা সঠিক চিকিৎসার অভাবে এসব মহামারিতে ঝরে যেত অসংখ্য তাজা প্রাণ। সময়ের পরিক্রমায় চিকিৎসা বিজ্ঞানের অগ্রযাত্রার ছোঁয়ায় মহামারির কবলে পড়ে মৃত্যুর হার কমেছে বটে।

কিন্তু, বর্তমানেও যে কিছু আধুনিক মহামারি ছড়িয়ে পড়েছে দেশে, যার কারণে প্রতিবছরই অকালে ঝরে যাচ্ছে অগণিত প্রাণ। হিসেবের খাতায় তা একেবারেই নগণ্য নয়। হালের সে প্রাণঘাতি মহামারি গুলোর অন্যতম হলো দেশের সড়ক-মহাসড়কগুলোর নানা দুর্ঘটনা। নানাবিধ অব্যবস্থাপনার ফলেই প্রতিনিয়ত ঘটছে বহু দুর্ঘটনা, সড়কেই ঝরে যাচ্ছে অসংখ্য সতেজ প্রাণ। যার মধ্যে দেশের সম্পদ বলে বিবেচিত শিক্ষিত, সুশীল, জ্ঞানী-গুণিসহ কচি ও কোমলমতি শিক্ষার্থীদের আধিক্যই বেশী। সাধারণ মানুষ তো আছেই, তার হিসেব করা তো বেশ মুশকিলই বটে। রাস্তা পারাপারে অসাধানতা, যানবাহনগুলোর বেপরোয়া গতি, অশিক্ষিত ও অপ্রশিক্ষিত চালকের হাতে স্টিয়ারিং হুইল, নিয়ম বহির্ভূতভাবে পাল্লা দিয়ে অতিরিক্ত গতিতে গাড়ি চালানোসহ ব্যবস্থাপনার প্রচন্ড অভাব ও দুঘর্টনা পরবর্তী সময়ে সঠিক কারণ নির্ণয় করে প্রকৃত অপরাধীদের সাজা না দেওয়াই সড়ক দুর্ঘটনাগুলো না কমার প্রধান অন্তরায় বলেই আমার অভিমত। তারপরও সাম্প্রতিক সময়ে (গত বছর) ঢাকায় সিটি সার্ভিস জাবালে নূর পরিবহন চাপায় স্কুল শিক্ষার্থী নিহতের ঘটনায় শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের মুখে সরকার এই সংক্রান্ত আইনে কিছু পরিবর্তন আনলে এবং দেশের সার্বিক যোগাযোগ ববস্থার উন্নতির ফলে বর্তমানে সড়ক দুর্ঘটনার হার কিছুটা নিয়ন্ত্রণে এসেছে। তারপরও কখনো কখনো দুর্ঘটনা ঘটছে। সরকারী-বেসরকারী নানা সংগঠনের সচেতনামূলক অভিন্ন কর্মসূচি বাস্তবায়নের ফলে তা আরো কমবে বলেই আমার ধারণা।

যাহোক, আমার আজকের লেখার বিষয়বস্তু সড়ক দুর্ঘটনা নয়। বরং সময়ের সাথে পাল্লা দিয়ে সড়ক দুঘর্টনাকেও অতিক্রম করে চলা বর্তমান সময়ের আরেক মহামারি ‘ধর্ষণ’। অবশ্য এ মহামারিতে মানুষ গণহারে মরে না, কিন্তু জীবিত থেকেও মৃত প্রায় হয়েই বেঁচে থাকে। সমাজের অবহেলা, অবজ্ঞা আর ঘৃণা নিয়ে কি আর স্বাভাবিক জীবন-যাপন করা সম্ভব? আমাদের সমাজ ব্যবস্থা এমন উল্টো কেন? প্রশ্ন জাগে বারেবার। পাপিকে ঘৃণা না করে পাপের শিকারকে ঘৃণা করে সবাই। কি আজব কান্ডকারখানা। ধিক জানাই এমন কলুষিত সমাজ ব্যবস্থাকে। যে সমাজ দিতে পারেনা নারীর প্রাপ্য সম্মান, যে সমাজের রন্ধে রন্ধে ঢুকে পড়েছে হিংসা, বিদ্বেষ, কলহসহ হানাহানি-মারামারি। মাদক আর সন্ত্রাসের কথা আর কী বলবো। ওগুলো তো সমাজের শিরা-উপশিরায় পৌঁছে যাওয়ার উপক্রম। যে কথা বলছিলাম, ধর্ষণ! দেশের অর্ধেকেরও বেশী জনগোষ্ঠী নারী সমাজের জীবন-মানের ব্যাপক উন্নয়নে বর্তমান সরকার নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে প্রতিনিয়ত। তারই ধারাবাহিকতায় বিভিন্ন সময় নানা কর্মসূচিও বাস্তবায়ন করেছে এই সরকার। যা নারীদের অগ্রযাত্রায় বিশেষ ভূমিকা রাখছে বলেই আমার অভিমত। তবে, ধর্ষণের মত এত বড় মহামারি রোধে কেন পিছিয়ে থাকবো আমরা। এখনই উপযুক্ত সময় বিষয়টি নিয়ে ভাববার। সময়ের কাজ সময়ে না করতে পারলে দেশের সার্বিক অগ্রগতির মাঝেও একটি পিছুটানই ম্লান করে দিতে পারে সরকারের সকল অর্জন। মাদক ও সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার জিরো টলারেন্স নীতিকে স্যালুট জানাই। সাথে সাথে দেশের একজন সাধারণ নাগরিক হিসেবে ধর্ষণ এর বিরুদ্ধেও এই নীতি অবলম্বনের উদাত্ত আহবান জানাবো। বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ এর একটি বেসরকারী জরিপে ওঠে এসেছে, ২০১৯ সালের জানুয়ারী মাসেই দেশের বিভিন্ন স্থানে ৫২টি ধর্ষণ, ২২টি গণধর্ষণ এবং ধর্ষণের পর পাঁচটি হত্যার ঘটনা ঘটেছে। জরিপে আরো উল্লেখ করা হয়, গত বছর (২০১৮ সালে) সারা বাংলাদেশে সর্বমোট ৯৪২টি ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে। তারমধ্যে, ১৮২ জন নারী গণধর্ষণ এর শিকার, ৬৩ জন নারীকে ধর্ষণের পর হত্যা এবং ৬৯৭টি ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে। এসব ঘটনায় উদ্বেগ জানিয়ে সংগঠনটি আরো বলেছে, রাজনৈতিক প্রভাব, সন্ত্রাস, আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর উদাসীনতার কারণে এসব ঘটনার মূল অপরাধীরা ধরা পড়ছে না অথবা যে কোন ভাবে পার পেয়ে যাচ্ছে। এছাড়া সম্প্রতি ধর্ষণে অভিযুক্ত কয়েকজন ব্যক্তির গলায় চিরকুট ঝোলানো অবস্থায় মরদেহ পাওয়া নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করে সংগঠনটি জানিয়েছে, বিচার বহির্ভূত হত্যা কোনভাবেই কাম্য নয়। অপারাধী যেমনই হোক বিচারিক প্রক্রিয়ার মাধ্যমেই তার সাজা নিশ্চিত করতে হবে। সম্প্রতি আন্তর্জাতিক নারী দিবস-২০১৯ উপলক্ষে আয়োজিত একটি অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগের বিচারপতি জিনাত আরা বলেন ‘নারী মুক্তির প্রধান অন্তরায় যদি হয় পুরুষ, তাহলে নারী মুক্তির পথপ্রর্দশকও পুরুষ’। জাতীয় জীবনের সকল ক্ষেত্রে নারীদের সমান অধকিারের বিষয়টি সংবিধানের ১৯ এবং ২৮ অনুচ্ছেদে নিশ্চিত করা হয়েছে উল্লেখ করে তিনি আরো বলেন, সংবিধানের ২৮ এর ১ অনুচ্ছেদে বলা হয়েছে, কেবল র্ধম, গোষ্ঠী, বর্ণ, নারী-পুরুষভেদ বা জন্ম স্থানের কারণে কোনো নাগরিকের প্রতি রাষ্ট্র বৈষম্য প্রর্দশন করিবেন না এবং ২৯ এর ২ অনুচ্ছেদে বলা হয়েছে- রাষ্ট্র ও গণজীবনের সর্বস্তরে, নারী-পুরুষ সমান অধিকার লাভ করিবেন। এছাড়া বাংলাদেশের বিভিন্ন আইনে নারী সুরক্ষার বিষয়টি প্রাধান্য পেয়েছে এবং নারী নিরাপত্তায় বিশেষ বিশেষ আইন প্রণয়ন করা হয়েছে বলে উল্লেখ করেন তিনি। বর্তমান যুগ গণতান্ত্রিক যুগ, সমতার যুগ। উন্নয়নের গতিধারায় আজকে বাংলাদেশের নারীরা যেভাবে উৎপাদনের অন্যতম হাতিয়ার হিসেবে নিজেদের সমর্পণ করেছে তা যেমন সমৃদ্ধির নিয়ামক আবার তা অর্থনীতির অগ্রযাত্রারও চালিকা শক্তি। তারপরও নারীরা এখনও বিভিন্নভাবে নির্যাতন ও বৈষম্যের শিকার হচ্ছে। নারীরা পরিবারের মধ্যে, কর্মস্থলে, পরিবহন, যাতায়াত ব্যবস্থায় বিভিন্নভাবে নানা রকম হয়রানি ও যৌন হয়রানির শিকার হচ্ছে। এর থেকে নারীদের মুক্তির প্রয়োজন রয়েছে। বাংলাদেশে আজ সর্বত্র নারীর জয় জয়কার শুরু হয়েছে। শিক্ষা-দীক্ষায় সাহসিকতায়, খেলাধুলায় সৃষ্টিশীল কাজে বাংলাদেশের নারীরা আজ সমান কাতারে। নারীরা আজ প্রশাসন, বিচার বিভাগ, শিক্ষা, সশস্ত্র বাহিনী, আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীতে উচ্চপদে সমাসীন। নারীর ক্ষমতায়নে সর্বাগ্রে পুরুষ সমাজকেই এগিয়ে আসতে হবে। যদি আমরা সকলেই যে যার অবস্থান থেকে নারীর ক্ষমতায়ন, নারীর স্বাধীনতা, ধর্ষণসহ যাবতীয় নির্যাতন বন্ধে এবং নিরাপদভাবে অবাধ চলাফেরা নিশ্চিতের লক্ষ্যে কাজ করি। তবেই নারীর অর্থনৈতিক, সামাজিক ও রাজনৈতিক মুক্তির পথ সুগম হবে, পাওয়া যাবে নারী উন্নয়নের স্বার্থকতা। পাশাপাশি, পরিবার থেকেই আদর্শিক শিক্ষা, ছোটবেলা থেকেই ধর্মীয় শিক্ষা আহরণ করে সমাজের নারী-পুরুষের মানবিক উন্নয়ন সাধন অত্যাবশ্যক। শ্রদ্ধাবোধ জাগ্রত করে তাদের প্রতি বিশেষ দায়িত্ব পালন করতে হবে। ধর্ষণসহ সকল নির্যাতন বন্ধে সামাজিক আন্দোলনের পাশাপাশি প্রকৃত অপরাধীদের সাজা দিতে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষসহ সকলকে একযোগে কাজ করতে হবে। সর্বশেষে, ‘পাপকে ঘৃণা কর পাপিকে নয়’ কথাটির সাথে একাত্ত্বতা পোষন করে বলতে চাই, নির্যাতনের শিকার নারীর পাশে থেকে, নির্ভেজাল ও পরম ভালোবাসায় তাদেরকে সঠিক কাউন্সিলিং এর মাধ্যমে বেঁচে থাকার রসদ যুগিয়ে নারীদের প্রাপ্য সম্মান ও মর্যাদা ফিরিয়ে আনতে কাজ করে যেতে হবে। ধরার সকল নারী নিরাপদ ও ভালো থাকুক এই প্রত্যাশা রেখে আজ এই পর্যন্তই।

মুহা. ফখরুদ্দীন ইমন
লেখক, সাংবাদিক ও মানবাধিকার কর্মী