সোমবার, ২৪শে মার্চ, ২০১৯ ইং

৪০ বছরেও চালু হয়নি কুমিল্লা বিমান বন্দর

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মার্চ ১৫, ২০১৯
news-image

 

স্টাফ রিপোর্টারঃ
৭৭ একর ভূমির উপর প্রতিষ্ঠিত কুমিল্লা বিমান বন্দর এখন আন্তর্জাতিক রুটের সিগনালিংয়ের কাজ করে। দীর্ঘ ৪০ বছর ধরেই কুমিল্লা বিমান বন্দরে বিমান উঠানামা না করলেও কেবলমাত্র ভারতের কলকাতা-আগরতলা ফ্লাইটসমূহের নেভিগেশন সহায়তার কাজে ব্যবহৃত হচ্ছে। সম্প্রতি বিমান বন্দরে ৮ কোটি টাকা মূল্যের যন্ত্রপাতি সংযোজন করা হয়েছে। এ বিমানবন্দরে জনবল রয়েছে ৩০ জন, এরমধ্যে ১৫ জন স্থায়ী ও ১৫ জন দৈনিক মজুরির ভিত্তিতে কাজ করছেন।

বর্তমানে প্রতি মাসে সিগনালিংয়ে এ বন্দর আয় করছে ২৫/৩০ লাখ টাকা। বর্তমানে ঢাকা-কুমিল্লা দুই/আড়াই ঘন্টার পথ যানজটে আটকা পড়লে পাড়ি দিতে প্রায় ৫/৬ ঘন্টা সময় লেগে যায়। এ বিমানবন্দর চালু হলে ২০ মিনিটেই ঢাকা-কুমিল্লা যাতায়াত করা সম্ভব হবে। এ বিমানবন্দরটি চালু করার লক্ষ্যে ইতিমধ্যে একটি কোম্পানিকে কুমিল্লায় পাইলট ট্রেনিং স্কুল করার জন্য অনুমতি দেয়া হয়েছে বলে জানা গেছে। বিমানবন্দরটি চালু হলে কুমিল্লার অর্থনীতিসহ সার্বিক ক্ষেত্রে যোগ হবে নতুন মাত্রা।

সূত্রে জানা যায়- দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় নির্মাণ করা কুমিল্লা বিমান বন্দর থেকে ১৯৭৬ সালে আগ পর্যন্ত অভ্যন্তরীণ রুটে বিমান চলাচল করেছিল। কুমিল্লার অনেক যাত্রী ঢাকা-চট্টগ্রামসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে যাতায়াত করেছেন বিমানের মাধ্যমেই। কিন্তু ১৯৮৬ সালের পর কুমিল্লা বিমানবন্দর থেকে সব ধরনের বিমান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। বিগত আওয়ামী লীগ সরকার স্টল বিমান সার্ভিস সুবিধাসহ কুমিল্লা বিমানবন্দর এলাকার পাশে রপ্তানি প্রক্রিয়াকরণ অঞ্চল প্রতিষ্ঠা করে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এর উদ্বোধন করেন। সে সময় তিনি শর্ট টেক অব ল্যান্ডিং স্টল বিমান সার্ভিস চালু করার ঘোষণাও দেন। কিন্তু প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ঘোষণার ১০ বছরেও এই বিমানবন্দর চালু হয়নি।

মাঝে মধ্যে কোনো গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি হেলিকপ্টারে এই বিমানবন্দরে অবতরণ করেছেন মাত্র। সব ধরনের সুযোগ-সুবিধা, ব্যবস্থাপনা, যন্ত্রপাতি এবং জনবল থাকার পরও শুধু উদ্যোগের অভাবে দুই যুগ ধরে বন্ধ রয়েছে কুমিল্লা বিমানবন্দর। অন্যদিকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কুমিল্লা ইপিজেড উদ্বোধনের সময় বিমানবন্দটিও চালুর ঘোষণা দেয়ার ২০ বছরেও বাস্তবায়ন না হওয়ায় ইপিজেডের বিনিয়োগকারীসহ কুমিল্লাবাসীদের মধ্যে ক্ষোভ ও অসন্তোষ বিরাজ করছে। সূত্র জানায়, দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় প্রতিষ্ঠিত হয় কুমিল্লা বিমান বন্দর। এখানে ১৯৭৬ সাল পর্যন্ত আভ্যন্তরীণ রুটে বিমান চলাচল করেছে। পরে অজ্ঞাত কারণে বিমান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়।

বিমান বন্দরের সকল যন্ত্রপাতি থাকার পরেও কুমিল্লা বিমান বন্দর থেকে ৩৮ বছর ধরে বিমান চলাচল বন্ধ রয়েছে। ৭৭ একর ভূমির উপর প্রতিষ্ঠিত বিমান বন্দর এখন আন্তর্জাতিক রুটের সিগনালিংয়ের কাজ করে। এ বিমান বন্দর প্রতি মাসে এখন সিগনালিং বাবদ আয় করছে ৩২ লাখ টাকা। বিমান বন্দরে রয়েছে ১৩ জনের জনবল। সম্প্রতি এ বিমান বন্দরে ৮ কোটি টাকা মূল্যের যন্ত্রপাতি সংযোজন করা হয়েছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, কুমিল্লা বিমানবন্দরটি এখনো চালু অবস্থায়ই আছে। শুধু বিমান ওঠে না এবং নামেও না। আন্তর্জাতিক রুটে চলাচলকারী সব বিমানকে আকাশপথের সিগন্যাল দেওয়া হয় এ বিমানবন্দর থেকে। এ কাজ করে প্রতি মাসে বিমানবন্দরটি আয় করে ২০ থেকে ২৫ লাখ টাকা। কুমিল্লা দেশের বিমান পরিচালনা প্রতিষ্ঠানগুলো ফ্লাইট চালাতে রাজি হলেই কুমিল্লা বিমানবন্দর থেকে দেশের বিভিন্ন স্থানে বিমান চলাচল আবার শুরু হবে। ইতিমধ্যে ফ্লাইট পরিচালনা করার ব্যাপারে মতামত চেয়ে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সসহ ৭টি বিমানপ্রতিষ্ঠানকে চিঠি দিয়েছে বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ।

তারপরও চালু হচ্ছে না কুমিল্লা বিমানবন্দরটি। কুমিল্লা বিমানবন্দর চালু হলে কুমিল্লা রপ্তানি প্রক্রিয়াকরণ অঞ্চলে ইপিজেড বিনিয়োগ বাড়ার পাশাপাশি এর জেলা ও আশপাশের এলাকার অর্থনৈতিক উন্নয়ন হবে বলে মনে করছে স্থানীয় লোকজন। সূত্রে আরও জানা যায়-১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় আসার পর স্টল বিমান সার্ভিস সুবিধাসহ কুমিল্লা বিমানবন্দর এলাকার পাশে রপ্তানি প্রক্রিয়াজাতকরণ অঞ্চল (ইপিজেড) প্রতিষ্ঠা করে এতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এর উদ্বোধন করেন।

সে সময় তিনি স্টল বিমান সার্ভিস চালুর ঘোষণাও দেন। একই সময় চালু করা কুমিল্লা ইপিজেডের সঙ্গে সংযোগ রেখে বিমানবন্দর রানওয়ে ব্যবহারের জন্য একটি ব্যবস্থাও রাখা হয়। বিদেশি বিনিয়োগকারীরা এখানে বিনিয়োগ করার আগ্রহ দেখালে বিমান সুবিধা দেওয়া যাবে বলে তাদের মিথ্যা আশ্বাসও দিয়ে আসছে ইপিজেড কর্তৃপক্ষ। অথচ ইপিজেডে ব্যবসা বাণিজ্যের ব্যাপক প্রসার ঘটলেও গত ২০ বছরে একটি মোটামোটি পরিপূর্ণ বিমানবন্দরে কোনো বিমান ওঠানামা করেনি। কুমিল্লা বিমানবন্দরে নেভিগেশন ফ্যাসিলিটিস, কন্ট্রোল টাওয়ার, ভিএইচএফ সেট, এয়ার কমিউনিকেশন যন্ত্রপাতি, ফায়ার স্টেশন, ফায়ার সার্ভিসসহ সব সুযোগ-সুবিধা রয়েছে।

কুমিল্লা বিমানবন্দর ও পোর্টে অবকাঠামো, সরঞ্জাম, প্রয়োজনীয় কর্মকর্তা-কর্মচারী, ফায়ার ব্রিগেড, যানবাহন, নেভিগেশন ব্যবস্থা থাকলেও বছরের পর বছর ব্যবহৃত হচ্ছে না। বিমান উঠানামা না করার কারণেল বিমানবন্দর ও স্টল পোর্টের কর্মকর্তা-কর্মচারী, অবকাঠামো উন্নয়ন, সংস্কার ও রক্ষণাবেক্ষণ, রানওয়ে সংস্কার, বিদ্যুত ও পানির বিল, যানবাহন কেনা, জ্বালানিসহ বিভিন্ন খাতে সরকারি কোষাগার থেকে প্রতি বছর গড়ে প্রায় কোটি টাকা খরচ হচ্ছে বলেও একটি সূত্রে জানা গেছে।

এ ছাড়া আট কোটি টাকা ব্যয়ে কুমিল্লা বিমানবন্দরে সর্বাধুনিক বিমান পথনির্দেশক (ভিউআর) এবং বিমানের দূরত্ব মাপক ডিএনই স্থাপন করা হয়েছে। আর এ আধুনিক যন্ত্রপাতি সরবরাহ করছে দক্ষিণ কোরিয়ার একটি কম্পানি। ইপিজেড এলাকার ব্যবসায়ী রিপন জানান- বর্তমানে ঢাকা-কুমিল্লা দুই/আড়াই ঘন্টার পথ যানজটে আটকা পড়লে পাড়ি দিতে প্রায় ৫/৬ ঘন্টা সময় লেগে যায়। এ বিমানবন্দর চালু হলে ২০ মিনিটেই ঢাকা-কুমিল্লা যাতায়াত করা সম্ভব হবে।

এ বিমানবন্দরটি চালু করার লক্ষ্যে ইতিমধ্যে একটি কোম্পানিকে কুমিল্লায় পাইলট ট্রেনিং স্কুল করার জন্য অনুমতি দেয়া হয়েছে বলে জানা গেছে। বিমানবন্দরটি চালু হলে কুমিল্লার অর্থনীতিসহ সার্বিক ক্ষেত্রে যোগ হবে নতুন মাত্রা। এজন্য বিদেশী বিনিয়োগকারীরা কুমিল্লা আসতে চায়না। বিমান বন্দরটি পুনরায় চালু হলে ইপিজেডে বিনিয়োগের পাশাপাশি রোগীরা জরুরী সেবা পেতো।

এদিকে, বিমানবন্দরের পরিত্যক্ত রানওয়েতে এখন প্রাইভেটকার ও মোটর সাইকেল চালনায় আগ্রহীরা প্রশিক্ষণ নেন। সূত্র জানায়, কুমিল্লার সাথে আভ্যন্তরীণ রুটে বিমান চলাচলের জন্য বেশ কয়েকটি এয়ারলাইন্সের সাথে বেসামরিক বিমান চলাচল ও পর্যটনমন্ত্রীর কথা হয়েছে এবং এসব রুটে ইউনাইটেড এয়ারলাইনস্ থেকে ২০ সিটের ছোট বিমান চালুর বিষয়ে চিন্তাধারা সরকারের রয়েছে। কুমিল্লা ইপিজেডের জি.এম আবদুস সোবহান জানান, ‘বিমানবন্দর চালু হলে কুমিল্লা ইপিজেডে আরো দেশি-বিদেশি বিনিয়োগকারী আসতো, কর্মসংস্থান হতো বিপুলসংখ্যক মানুষের।’

এ ব্যাপারে কুমিল্লা বিমানবন্দরের ঊর্ধ্বতন যোগাযোগ প্রকৌশলী আবদুল গনি জানান, শুধু রানওয়ে মেরামত করলেই কুমিল্লা বিমানবন্দরে ৩০ থেকে ৮০ সিটের যে কোনো বিমানের ওঠানামা করা সম্ভব। জনবলও রয়েছে। আর ১০ থেকে ১৫ জন আনসার নিয়োগ করলেই চলবে। তিনি জানান, আন্তর্জাতিক রুটে চলাচলকারী অনেক বিমান কুমিল্লা বিমানবন্দরের পথনির্দেশক সংকেত নিয়ে ভারতের আগরতলা ও গৌহাটি বিমানবন্দরে চলাচল করে। তিনি আরও বলেন-বিমানবন্দরের সকল যন্ত্রপাতি রয়েছে। শুধু প্রয়োজন রানওয়ের সংস্কার। গত ৩/৪ মাস পূর্বে এ বিমানবন্দরের রানওয়ে সংস্কারের স্টিমিট করাসহ বিমানবন্দরটি চালু করতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য মন্ত্রণালয় থেকে সিভিল এভিয়েশনকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে বলে জেনেছি।

কুমিল্লা ইপিজেডের নাশা কোম্পানীর পাকিস্তানি ইঞ্জিনিয়ার আবদুল হামিদ ও সালাহউদ্দিন জানান, কুমিল্লা বিমানবন্দর চালু হলে কুমিল্লায় ব্যবসায়ীদের জন্য অনেক উপকার হতো। তাঁরা সহজে ঢাকা ও চট্টগ্রামে যেতে পারত। ইপিজেডের ব্যবসায়ীদের অনেক উপকার হতো। বিমানবন্দর চালু করা একান্ত প্রয়োজন। কুমিল্লা ইপিজেড কর্তৃপক্ষ জানায়, ঢাকা ও চট্টগ্রাম ইপিজেডে সব শিল্প প্লট শেষ হয়ে যাওয়ায় বিদেশি বিনিয়োগকারীদের প্রধান আকর্ষণ কুমিল্লা ইপিজেড। বিশ্বব্যাংকের অর্থায়নে আরো ৪০০ কোটি টাকা ব্যয়ে ইপিজেডটিকে সম্প্রসারণের প্রকল্প দ্রুত বাস্তবায়ন করা হবে। ইপিজেডটি পরিপূর্ণ হলে এখানে অন্তত ৫০ হাজার লোকের কর্মসংস্থান হবে।

অপরদিকে বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের সদস্য পরিচালনা ও পরিকল্পনা গ্রুপ ক্যাপ্টেন এম সাঈদুল হাসান খান সম্প্রতি সিএএবি/এ-এ/সঃ/১ ডাব্লিউ-৫৭/৯৩/২৯৩/২৯৩ নম্বর স্মারকে ৭টি বেসরকারি বিমান কর্তৃপক্ষকে চিঠি দিয়েছেন। এর মধ্যে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনস লিমিটেড, জিএমজি এয়ারলাইনস, বিসমিল্লাহ এয়ারলাইনস, সাউথ এশিয়ান এয়ারওয়েজ লিমিটেড, বেস্ট এয়ার, এভিয়েনা এয়ারওয়েজ রয়েছে। ওই চিঠিতে বলা হয়, কুমিল্লাসহ দেশের অন্য বিমানবন্দরগুলোতে ফ্লাইট চলাচল আরম্ভ না হওয়ায় বিদেশি বিনিয়োগ আসছে না এবং রাজধানী ঢাকার সঙ্গে আকাশপথে দ্রুত যাতায়াতব্যবস্থা ব্যাহত হচ্ছে।

চিঠিতে আরো উল্লেখ করা হয়, স্থানীয় জনসাধারণ এ ব্যাপারে সরকারের কাছে অনবরত আবেদন-নিবেদন করে আসছে এবং বিদেশি বিনিয়োগ আসতে পারছে না বিধায় দেশের কোটি কোটি টাকা লোকসান হচ্ছে মর্মে বিভিন্ন পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশিত হচ্ছে। চিঠির ৪ নম্বর অনুচ্ছেদে বলা হয়, বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয় পত্র নম্বর বিপম/সিএ-২/এম-৩/২০০০/২৫৫, তারিখ ০৫/০৬/১১-এর মাধ্যমে কুমিল্লা বিমানবন্দরে দেশীয় এয়ারলাইনস কম্পানিগুলোর ফ্লাইট পরিচালনা করতে সম্মত আছে কি না সে ব্যাপারে মতামত গ্রহণ করে মন্ত্রণালয়কে অবহিত করার জন্য নির্দেশ দিয়েছে। জরুরি ভিত্তিতে বিমান পরিচালনাকারী প্রতিষ্ঠানগুলোকে এ ব্যাপারে তাদের মতামত দিতে অনুরোধ করা হয়েছে।

এদিকে বেক্সিমকো গ্র“পের পরিচালক মি. ওকে চৌধুরী কুমিল্লা এলে জিএমজির ফ্লাইট চালুর ব্যাপারেও দৃষ্টি আকর্ষণ করা হয়। বাংলাদেশে ৩টি আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর, ৫টি অভ্যন্তরীণ বিমান বন্দর এবং ৭টি সট টেক অব ল্যান্ড ল্যান্ডিং (স্টক) বিমান বন্দর রয়েছে। এই ৭টি বিমান বন্দররের মধ্যে কুমিল্লা বিমানবন্দরটি একটি। বিমান সূত্র জানায়- কুমিল্লা ইপিজেড কর্তৃপক্ষ বিমান বন্দর চালু দেখতে চায়, কারণ অনেক বিনিয়োগকারী বিমান বন্দরের ব্যাপারে দৃষ্টি আকর্ষণ করেছে। আর কুমিল্লা বিমান বন্দর চালু হলে কুমিল্লার ঐশ্বর্য বেড়ে যাবে। সিটি কপোরেশনের গুরুত্বও বেড়ে যাবে এবং কুমিল্লা ইপিজেডে নতুন নতুন বিদেশী কোম্পানি বিনিয়োগ করতে আশ্বস্থ হবেন। কুমিল্লার সার্বিক উন্নিতিতে ভূমিকা রাখবে কুমিল্লা বিমান বন্দর। এটাই কুমিল্লাবাসীর আশা ও প্রত্যশা।

এ প্রসঙ্গে কুমিল্লা বেপজার জি.এম আবদুস সোবহান জানান বলেন, বর্তমানে বেশ কতগুলো জুতা, ইলেকট্রনিক্স স্পেয়ার পার্টস ও ফুটবল উৎপাদনকারী বিদেশি কম্পানি কুমিল্লা ইপিজেডে বিনিয়োগে আগ্রহ দেখিয়েছে। এই গ্যাস সংকটের কারণে তারা ননগ্যাসভিত্তিক কম্পানি প্রতিষ্ঠা করতে চায়। তবে তাদের সবচেয়ে বড় দাবি হলো ইপিজেডের পাশের বিমানবন্দরটিকে সচল করা। তিনি বলেন, বিমানবন্দরটিতে একটি বিমান পরিচালনার জন্য সব ধরনের অবকাঠামো রয়েছে।

এখন শুধু রানওয়ে মেরামত করলেই তা চালু করা সম্ভব। তাহলে বিদেশি বিনিয়োগকারীরা আরো বেশি আগ্রহ নিয়ে আসবে। জানা যায়, সব সুযোগ-সুবিধা, ব্যবস্থাপনা, যন্ত্রপাতি, জনবল থাকার পরও শুধু উদ্যোগের অভাবে দুই যুগ ধরে বন্ধ রয়েছে কুমিল্লা বিমানবন্দর। বাংলাদেশের সাতটি স্টল বিমানবন্দরের মধ্যে কুমিল্লা বিমান বন্দর একটি।

আর পড়তে পারেন