বুধবার, ২২শে মে, ২০১৯ ইং

নিউজিল্যান্ডের ঘটনায় রুবেলের অবিশ্বাস্য বেঁচে যাওয়া

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মার্চ ১৫, ২০১৯
news-image

ডেস্ক রিপোর্ট :

ছবির মতো ছোট্ট শহর নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চ। সবুজে ঘেরা শহর। চারদিকে সাজানো–গোছানো বাড়ি আর ঝকঝকে সড়ক। শহরের অধিবাসী বেশি নয়। অপরাধের ঘটনা ঘটে না বললেই চলে। অথচ শান্তিপূর্ণ এই শহরের মসজিদে আজ বন্দুকধারীরা হামলা করেছে। বর্বরোচিত এই হামলায় মৃতের সংখ্যা পঞ্চাশ ছুঁয়েছে। মৃতের সংখ্যা হয়তো আরও কম হতো। কিন্তু আহতদের ওপর বন্দুকধারীর দ্বিতীয় দফা গুলিতে মৃতের সংখ্যা বেড়েই চলেছে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা বলছেন, আহতদের অনেকে পানি চেয়ে বাঁচার আকুতি জানিয়েও বাঁচতে পারেননি। তবে সৌভাগ্যক্রমে বেঁচে যান এক আহত বাংলাদেশি। নাম তাঁর রুবেল। আল নূর মসজিদের ভেতরে আজ শুক্রবার বন্দুকধারীর গুলিতে আহত হয়ে তিনি ছটফট করছিলেন। এমন সময় মো. দিদার নামে আরেক বাংলাদেশি তাঁর ভাইয়ের খোঁজে মসজিদের ভেতরে এসেছিলেন। তাঁর কাছেই পানি চেয়েছিলেন গুলিবিদ্ধ রুবেল। দিদার তাঁকে পানি পান করান। আহত রুবেলকে উদ্ধার করে নেওয়া হয় ক্রাইস্টচার্চ হাসপাতালে। সেখানে আজ বাংলাদেশ সময় বিকেলে তাঁর শরীরে অস্ত্রোপচার করা হয়।

দিদারের কাছ থেকে এই লোমহর্ষক ঘটনা শোনেন তাঁর বন্ধু এহসানুল বাশার। তিনি নিউজিল্যান্ডের এক প্রবাসী বাংলাদেশি। এহসানুল বাশার বলেন, ‘আরও অনেকের মতো আমার বন্ধু দিদারকেও হয়তো আজ হারাতে হতো। কিন্তু তিনি অল্পের জন্য প্রাণে বেঁচে যান। আল নূর মসজিদে ঢোকার সময়ই গুলির শব্দ শুনতে পান দিদার। গুলির শব্দ কানে আসতেই মসজিদের মূল ভবনের পাশের দরজা দিয়ে বাইরে চলে আসেন দিদার। বাইরে এসে সোজা চলে যান মসজিদের গাড়ি রাখার জায়গায়। বিরামহীন গুলির শব্দে একটি ব্যক্তিগত গাড়ির নিচে লুকিয়ে পড়েন দিদার। কিছু সময় পর গুলির শব্দ থেমে গেলে দিদার মসজিদের ভেতরে যান ভাই মিনারকে খুঁজতে। মিনারও পালিয়ে বের হয়েছিলেন। পরে দিদার মসজিদের ভেতরে ঢোকার পর দেখেন নারকীয় দৃশ্য।’

দিদারের বরাতে এহসানুল বাশার বলেন, আল নূর মসজিদের ভেতরে রক্তাক্ত অসংখ্য নিস্তেজ দেহ ছড়িয়ে–ছিটিয়ে ছিল। গুলিবিদ্ধ অনেকে ছটফট করছিলেন। কেউ আবার এক ফোঁটা পানির জন্য কাকুতি মিনতি করছিলেন। দিদারকে দেখে রুবেল নামের গুলিবিদ্ধ এক বাংলাদেশি পানি চেয়েছিলেন। তাঁকে পানি দিয়ে দিদার বাইরে চলে যান। ঠিক এই সময় বন্দুকধারী আবারও বন্দুকে গুলি ভরে মসজিদের ভেতরে আসে। আহত যাঁরা ছিলেন, বেছে বেছে তাঁদের দিকে আবারও গুলি চালায় বন্দুকধারী। এই দফায় রুবেল মৃত হওয়ার ভান করে নিজের প্রাণ রক্ষা করেন।

এহসানুল বাশার বলেন, ‘১৪ বছরের বেশি সময় ধরে নিউজিল্যান্ডে বসবাস করছি। কিন্তু অকারণে কাউকে একটুও চিৎকার করতে দেখেনি। আর উগ্রবাদী চিন্তা তো দূরের কথা। শ্রেণিভেদেও কারো মধ্যে নাক সিঁটকানো ভাব নেই। বিশ্বের সবচেয়ে নিরাপদ শহর ক্রাইস্টচার্চ। সেই শহরেই এই নৃশংস হামলা! এটা কোনোভাবেই গ্রহণযোগ্য, বিশ্বাসযোগ্য হচ্ছে না।’

আর পড়তে পারেন