সোমবার, ২৪শে মার্চ, ২০১৯ ইং

পরাজিত ভিপি প্রার্থী ৩১ মার্চের মধ্যে পুনর্র্নিবাচন চাইলে, তিন দিনের মধ্যে পুনঃতফসিল দাবি বাম ছাত্রজোটের

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মার্চ ১৪, ২০১৯
news-image

 

ডেস্ক রিপোর্ট :

সদ্য সমাপ্ত ডাকসুতে পুনর্র্নিবাচনের দাবি জানিয়েছে ছাত্রলীগ বাদে অন্য প্যানেলগুলো। এর মধ্যে ডাকসুর নবনির্বাচিত ভিপি নুরুল হক আগামী ৩১ মার্চের মধ্যে পুনর্র্নিবাচন চাইলেও ছাত্রজোটের পরাজিত ভিপি প্রার্থী লিটন নন্দী ৩ দিনের মধ্যে পুনঃতফসিল দাবি করেছেন। তা না হলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অচল করে দেয়ার হুমকি দিয়েছেন তিনি।

ভোট বর্জনকারী ডাকসুর পাঁচটি প্যানেল পুনর্র্নিবাচন চেয়ে বুধবার দুপুরে উপাচার্যের কার্যালয়ে কাছে স্মারকলিপি নিয়ে যায়। স্মারকলিপি প্রদানের পর উপাচার্যের প্রতিক্রিয়া নিয়ে সাংবাদিকদের সামনে কথা বলেন লিটন নন্দী। এ সময় তিনি বলেন, ‘আগামী তিনদিনের মধ্যে যদি ডাকসু নির্বাচন বাতিল করে পুনঃতফসিল দেয়া না হয়, একই সঙ্গে এ নির্বাচন পরিচালনার সঙ্গে যারা যুক্ত ছিলেন তারা যদি পদত্যাগ না করেন এবং মামলা প্রত্যাহার না করা হয় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গৌরব রক্ষার্থে তারা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অচল করে দিতে বাধ্য হবেন। তারা উপাচার্যকে বলেছেন, তাদের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দেয়া হয়েছে সেগুলো প্রত্যাহার করতে হবে। যারা বিশ্ববিদ্যালয়ে অস্থিতিশীল পরিবেশ করে তাদের ছাড় দেয়া হবে না। বরং তাদের বিরুদ্ধে ক্রিমিনাল অ্যাক্টের মামলা দেয়া হবে। তারা বলেছেন, বিশ্ববিদ্যালয়ে এতদিন যারা ক্রিমিনাল অ্যাক্ট করলেন তাদের বিরুদ্ধে কী পদক্ষেপ নেয়া হবে। তিনি কোনো উত্তর দেননি।

এদিকে গত সোমবারের নির্বাচনে অনিয়মের অভিযোগ এনে ডাকসুর সব পদে পুনর্র্নিবাচনের দাবি জানিয়েছেন নবর্র্নিবাচিত ভিপি নুরুল হক নুর। বুধবার বিকেলে হাজী মুহম্মদ মুহসীন হলে সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে এ দাবি জানান তিনি।

নুর বলেন, ‘শত কারচুপির পরও আমাকে এবং আখতার হোসেন আমার প্যানেল থেকে হারাতে পারেনি। তবে নীলনকশা করে অন্যদের হারিয়ে দিতে পেরেছে। ছাত্রলীগ বাদে অন্য সব সংগঠন পুনর্র্নিবাচন চাইছে এবং সে লক্ষ্যে তারা আন্দোলন করছে। ভিসি স্যারকে তিন দিনের আল্টিমেটাম দিয়েছে। আমি তাদের নির্বাচিত প্রতিনিধি হিসেবে তাদের দাবির সঙ্গে একমত পোষণ করছি। আমিও চাই, প্রশ্নবিদ্ধ নির্বাচন বাতিল করে ৩১ মার্চের মধ্যেই পুনরায় নির্বাচন দিতে হবে। এবং এই কারচুপির সাথে যারা জড়িত ছিল তাদের বহিষ্কার করে, অন্যদের নিয়োগ দিয়ে সুষ্ঠু নির্বাচন করতে হবে।’

নির্বাচনের দিন রোকেয়া হলে ছাত্রলীগ সভাপতি শোভনের নেতৃত্বে তার ওপর হামলা হয়েছিল জানিয়ে তিনি আরও বলেন, রোকেয়া হলের সামনে কিছু ব্যালট রাখা হয়েছিল, তাদের দেখতে দেয়া হয়নি। বরং তাদের মারর জন্য রোকেয়া হলের প্রাধ্যক্ষ জিনাত হুদা ছাত্রলীগের প্রেসিডেন্ট সেক্রেটারিকে ফোন দেন। এবং তারা তার ওপর হামলা চালিয়েছিল। তাদের লেডি মাস্টার বাহিনী রয়েছে, শোভন ভাইয়ের নেতৃত্বে তারা তার ওপর হামলা চালিয়েছিল।’

নুরুল হক বলেন, ‘ছেলেদের হলগুলোতে, প্রথম ও দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থীদের জোর করে লাইনে দাঁড় করিয়ে রেখেছিলেন তারা, যারা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের হলগুলো অলিখিতভাবে ইজারা নিয়েছেন, সেই ক্ষমতাসীন দলের ছাত্রসংগঠন। তাদের বলেছে, তারা প্রত্যেকে যেন ভোট দিতে গিয়ে ১০ থেকে ১৫ মিনিট সময় নষ্ট করে। ভোট দিয়ে যেন আবার লাইনে দাঁড়ায়। এ ধরনের অনিয়ম আমরা দেখেছি।’

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘এত কারচুপির মধ্যেও আমি নির্বাচিত হয়েছি। সুষ্ঠু নির্বাচন হলে আমি আরও পাঁচ হাজার ভোট বেশি পেতাম। আমি আমাকে বড় মনে করিনা। যেহেতু সব শিক্ষার্থীর দাবি পুনর্র্নিবাচন। তাই সব পদেই পুনর্র্নিবাচন দিতে হবে। দায়িত্ব গ্রহণের প্রশ্নে নুর বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কাছে দাবি-দাওয়া জানিয়েছি। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন কী সিদ্ধান্ত দেয়, সেটা দেখেই আমাদের সিদ্ধান্ত জানাব। শিক্ষার্থীরা যেহেতু আমাকে নির্বাচিত করেছে। তাই তারা চাইলে শপথ নেব। তারা না চাইলে শপথ নেব না।’

অন্যদিকে আন্দোলনকারীদের সঙ্গে আলোচনা শেষে এক সংবাদ সম্মেলনে পুনর্র্নিবাচনের বিষয়ে উপাচার্য মো. আখতারুজ্জামান বলেন, ‘সকলের কর্ম প্রয়াস, আন্তরিকতা, সময় শ্রম সেগুলোকে নস্যাৎ করার এখতিয়ার, সেটি আমার নেই। প্রত্যেকটি প্রক্রিয়া, প্রত্যেকটি কার্যক্রম রীতিনীতি মেনে হবে।’

এর আগে দুপুর ১২টা থেকে মঙ্গলবারের ঘোষিত কর্মসূচি অনুযায়ী বিশ্ববিদ্যালয়ের রাজু ভাস্কর্যের সামনে বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে উপাচার্যের কার্যালয়ের সামনে যান প্রার্থী ও সমর্থকরা। বিক্ষোভ মিছিলে, ‘প্রহসনের নির্বাচন মানি না মানব না, ‘এক দুই তিন চার, দালাল ভিসি গদি ছাড়’, ‘আমার ভাই অনশনে, প্রশাসন নীরব কেন’, ‘জালিয়াতির নির্বাচন, মানি না মানব না’, ‘জ্বালো জ্বালো, আগুন জ্বালো’, ‘ভাইয়ের নামে মামলা কেন, প্রশাসন জবাব চাই’, ‘আমাদের সংগ্রাম, চলছে চলবে’ এ ধরনের স্স্নোগান দেয় শিক্ষার্থীরা।

ঢাবি উপাচার্যের কার্যালয়ের সামনে অনুষ্ঠিত এই বিক্ষোভে জিএস প্রার্থী উম্মে হাবিবা বেনজীর বলেন, ‘আমরা আগেই বলেছিলাম ৩০ ডিসেম্বরের মতো নির্বাচন আমরা মেনে নেব না। ১১ মার্চ ডাকসুতে ৩০ ডিসেম্বরের মতো আরেকটি নির্বাচন হয়েছে। আমরা অবিলম্বে এ নির্বাচন বাতিল চাই।’

এর আগে রাজু ভাস্কর্যের সামনে কোটা সংস্কার আন্দোলনের নেতা ও ডাকসু নির্বাচনে জিএস প্রার্থী মুহাম্মদ রাশেদ খান বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে শনিবারের মধ্যে বিতর্কিত নির্বাচন বাতিল ঘোষণা করতে হবে। এ নির্বাচনের সঙ্গে জড়িত সব শিক্ষককে অবিলম্বে পদত্যাগ করতে হবে। একই সঙ্গে দলনিরপেক্ষ ও গ্রহণযোগ্য শিক্ষকদের দ্বারা নির্বাচন কমিশন গঠন করে পুনঃতফসিল ঘোষণা করতে হবে।

প্রসঙ্গত, সেমবার অনুষ্ঠিত ডাকসু নির্বাচনে ভিপি নির্বাচিত হন কোটা আন্দোলনের নেতা নুরুল হক। সমাজসেবা সম্পাদক বাদে বাকি ২৩টি পদে জয়লাভ করে ছাত্রলীগের নেতারা। এরপর থেকে পুনর্র্নিবাচনের দাবিতে নানা কর্মসূচি ও পাল্টা কর্মসূচি পালন করে আসছে ছাত্র সংগঠনগুলো। নির্বাচনের পরদিন ছাত্রলীগ নির্বাচন বাতিলের দাবি জানালেও সংগঠনের শীর্ষ নেতাদের হস্তক্ষেপে তা থেকে সরে আসে তারা।

৬ শিক্ষার্থীর অনশন

এদিকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ-ডাকসু এবং হল সংসদের নির্বাচনের ফল বাতিল করে পুনঃতফসিলের দাবিতে ছয় শিক্ষার্থীর আমরণ অনশন গড়িয়েছে দ্বিতীয় দিনে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসি এলাকার রাজু ভাস্কর্যের পাদদেশে মঙ্গলবার রাতে অনশন শুরু করেন চার শিক্ষার্থী। পরে তাদের সঙ্গে যোগ দেন আরও দুজন।

অনশনরত আল মাহমুদ ত্বাহা সাংবাদিকদের বলেন, ‘পুনঃতফসিল চাই আমরা। যারা হলে হলে শিক্ষার্থীদের ভোট দিতে বাধা দিয়েছে, যারা ব্যালটে সিল মেরে আগের রাতে বস্তাবন্দি করতে সাহায্য করেছে, যারা যারা ভন্ডামির সঙ্গে জড়িত, তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার পর আমরা অনশন ভাঙব।’

অনশনে ভূতত্ত্ব বিভাগের ত্বাহার সঙ্গে রয়েছেন দর্শন বিভাগের তৃতীয় বর্ষের অনিন্দ্য মন্ডল, পদার্থবিজ্ঞান বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শোয়েব মাহমুদ, পপুলেশন সায়েন্সের দ্বিতীয় বর্ষের মাঈন উদ্দীন, কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের তাওহীদ তানজিম এবং গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের তৃতীয় বর্ষের রাফিয়া তামান্না।

তাদের মধ্যে তাওহীদ স্বতন্ত্র জোটের প্যানেল থেকে ডাকসুর পরিবহন সম্পাদক পদে এবং অনিন্দ্য, শোয়েব ও মাঈন উদ্দিন হল সংসদের বিভিন্ন পদে প্রার্থী ছিলেন।

পুনর্র্র্নিবাচনের দাবি জানানোর পাশাপাশি ১১ মার্চের ভোটে দায়িত্ব পালনকারী সবাইকে সরিয়ে দেয়ারও দাবি তুলেছেন তারা।

আর পড়তে পারেন