সোমবার, ২৪শে মার্চ, ২০১৯ ইং

দৈনিক আজকের কুমিল্লা সাংবাদিকতার পদচলার প্রত্যয়

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মার্চ ১৩, ২০১৯
news-image

মো: মনির হোসেনঃ
আমি শুরুতেই বলতে চাই, দৈনিক আজকের কুমিল্লার সম্পাদক ইমতিয়াজ আহমেদ জিতু ভাই গত ১২ ফেব্রুয়ারি কুমিল্লা জেলা প্রশাসক সম্মেলন কক্ষে কুমিল্লা আঞ্চলিক এসএমই পন্য মেলা সংবাদ সম্মেলনের সভার শেষে আমাকে বলে মনির ভাই দৈনিক আজকের কুমিল্লার প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীর সংখ্যায় আপনার লেখা চাই। আমি বলেছি লেখা পাবেন। প্রথম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীতে আমার লেখা ছাপা হয়েছে। আমাকে আবার লেখার জন্য আহবান করেছে দৈনিক আজকের কুমিল্লার সম্পাদক ইমতিয়াজ আহমেদ জিতু ভাইকে অনেক ধন্যবাদ জানাই।

দৈনিক আজকের কুমিল্লা হচ্ছে এমন একটি সংবাদপত্র যা সত্যি সাংবাদিকতার পদচলার প্রত্যয়। পত্রিকাটি ২ বছর যেমন আজকের কুমিল্লা হয়ে সবার মাঝে বেঁচে আছে, তেমনি ২শ’ বছর এভাবেই বেঁচে থাকবে এটা আশা করি। বৃহত্তর কুমিল্লার গণমাধ্যমের জগতে আজকের কুমিল্লা এক উজ্জ্বল সংযোজন। এই উজ্জ্বলতার বহিঃপ্রকাশ ঘটে পত্রিকাটির খবর পরিবেশনা ও বিভিন্ন মতপ্রকাশের মাধ্যমে।

দৈনিক আজকের কুমিল্লা ৩ বছরে পদার্পণ করছে জেনে আমি সংবাদকর্মী হিসেবে অত্যন্ত আনন্দিত। দৈনিক আজকের কুমিল্লা বৃহত্তর কুমিল্লার সাধারণ মানুষের তথ্য চাহিদা, বিনোদন চাহিদা, শিক্ষা চাহিদাসহ সামাজিক-সাংস্কৃতিক বিভিন্ন ক্ষেত্রে মানুষের চাহিদা পূরণে যেভাবে দায়িত্ব পালন করে চলেছে তা অত্যন্ত প্রশংসনীয়। আমি আশা করি আগামী দিনগুলোতেও কুমিল্লা একইরকম বস্তুনিষ্ঠভাবে সাংবাদিকতার দায়িত্ব পালনে এ দেশে গণমাধ্যমগুলোর নেতৃত্ব দেবে।
আজ গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র ব্যবস্থাপনার অপরিহার্য অঙ্গ হচ্ছে স্বাধীন সংবাদপত্র ও দায়িত্বশীল সাংবাদিকতা। তাই কোথাও গণতন্ত্রের ঘাটতি থাকার অর্থ গণঅধিকারের অভাব থাকা। যার সহজ অর্থ হচ্ছে সাংবাদিকদের অধিকার ও স্বাধীনতা সংকোচন। আর যেখানে সরকারি চাপ থাকে, সেখানে সৃজনশীল সাংবাদিকতার বিকাশ ঘটে না। সংবাদপত্রের কাছে পাঠকের প্রত্যাশা থাকে খবরের পেছনের খবর পাঠ করার। সে প্রত্যাশা পূরণ না হলে পাঠক সংবাদপত্রবিমুখ হয়ে পড়ে অথবা পত্রিকায় হালকা, চটুল খবর খোঁজে। তখন সমাজ ও রাষ্ট্রের চিন্তাভাবনা এবং নীতিনির্ধারণে স্বাধীন ও নিরপেক্ষ সাংবাদিকদের আর গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা থাকে না। ফলে সরকার স্বাধীন ও নিরপেক্ষ মতামত থেকে বঞ্চিত হয়। এরকম বাস্তবতায় অনাকাক্সিক্ষত চাপ এবং শংকামুক্ত সাংবাদিকতার জন্য সাংবাদিকদের লড়তে হয়। দলীয়করণের প্রভাব বলয়ের বাইরে সাংবাদিকদের অবস্থান নিতে হয়। আশার কথা, অনেক সীমাবদ্ধতার মধ্যেও দৈনিক আজকের কুমিল্লা শুরু থেকে জনস্বার্থ রক্ষায় ইতিবাচক ভূমিকা রাখার চেষ্টা করে যাচ্ছে। দৈনিক আজকের কুমিল্লা বলিষ্ঠতা ও নিরপেক্ষতার সঙ্গে জাতীয় ও আন্তর্জাতিকভাবে গুরুত্বপূর্ণ সব সংবাদ, ফিচার এবং সম্পাদকীয় বিশ্লেষণ প্রকাশ করে চলেছে। পত্রিকাটির এই বস্তুনিষ্ঠতা অব্যাহত থাকলে আগামী দিনে দৈনিক আজকের কুমিল্লা আরও হাজার পাঠকের মন জয় করবে। বাংলাদেশে সাংবাদিকতা পেশা ঝুঁকিমুক্ত নয়। তা সত্ত্বেও দৈনিক আজকের কুমিল্লা সুশাসনের অনুপস্থিতি, দুর্নীতি এবং বিভিন্ন সরকারি দফতরের নিয়মবহির্ভূত কার্যকলাপের তথ্য উদঘাটন করে চলেছে। পত্রিকাটির এ সাফল্য একনিষ্ঠ কর্মীদের পেশাদারিত্বের কারণেই সম্ভব হয়েছে। আমি বিশ্বাস করি, দৈনিক আজকের কুমিল্লা এতদিন যে ধারায় চলেছে, আগামী দিনে সেই ধারা আরও প্রাঞ্জল ও শক্তিশালী হবে। দৈনিক আজকের কুমিল্লার সম্পাদক ও প্রকাশক ইমতিয়াজ আহমেদ জিতু নবপ্রজন্মের সম্পাদক। কিন্তু দৈনিক আজকের কুমিল্লার সাংবাদিকতার মান তিনি শুধু ধরে রাখেননি, উন্নত করেছেন। সমাজ ও রাষ্ট্রের দর্পণ সংবাদপত্র। কারণ, দর্পণে যেমন কোনো বস্তুর প্রকৃত রূপ ফুটে উঠে-তেমনি সমকালীন বিশ্ব চরাচরের চলমান গতি-প্রকৃতি, ঘটনাপ্রবাহ, জীবনচিত্র ও দিকনির্দেশনা পাওয়া যায় সংবাদপত্রে। সামাজিক ও রাষ্ট্রিক উন্নয়ন-অগ্রগতি, সত্য-সুন্দর এবং ন্যায়-নীতি প্রতিষ্ঠায় সংবাদপত্রের ভূমিকা অপরিসীম। সাংবাদিকতা হচ্ছে পৃথিবীর অন্যতম শ্রেষ্ঠ জ্ঞান-বিজ্ঞান চর্চা ও মানবিক চেতনা বিকাশের কেন্দ্র এবং নীতি-নৈতিকতা, দায়-দায়িত্ব ও বুদ্ধি-বিবেকের আধার। তাই সৃজনশীল গণমাধ্যম ও সম্মানজনক পেশা হিসেবে সংবাদপত্র অগ্রগণ্য। তবে সবচে’ ঝুঁকিপূর্ণ এবং সাহসী, সংবেদনশীল ও নির্মোহ, নিরপেক্ষ ও বস্তুনিষ্ঠ, সত্যনিষ্ঠ ও গণসম্পৃক্ত সার্বক্ষণিক পেশা সাংবাদিকতা। সংবাদপত্রের লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য হল দল নিরপেক্ষ সত্যনিষ্ঠ সংবাদ পরিবেশন করা। সংবাদপত্র যতবেশি নিরপেক্ষ হবে এবং সাংবাদিকরা যত বেশি নির্ভীক ও সৎ হবে দেশ ও জাতির তত বেশি মঙ্গল হবে। আর সেজন্যই তো সাংবাদিকদের সমাজের অতন্দ্র প্রহরী বা ‘গেট কিপারস’ বলা হয়। তবে আভিধানিকভাবে সংবাদপত্রের এসব বৈশিষ্ট্য হলেও, অনেক সংবাদপত্র ও সাংবাদিক নানা স্বার্থে উল্টাপথে হাঁটেন বা অপসাংবাদিকতায় মেতে ওঠেন, এমন প্রমাণও ভূরিভূরি। অনেকে মনে করেন বেতার, টেলিভিশন ও অনলাইন মিডিয়ার কারণে এখন প্রিন্ট মিডিয়ার গুরুত্ব ও প্রাধান্য কমে যাচ্ছে। তবে এটা কেউ কেউ মানতে রাজি নন। কারণ, সংবাদের গ্রহণযোগ্যতা ও নেপথ্য কারণ এবং সংবাদের পেছনের সংবাদ খুঁজতে সংবাদপত্রের বিকল্প নেই। তারা মনে করেন, সাংবাদিকের জন্য সংবাদপত্রই উৎকৃষ্ট স্থান।

তবে সংবাদপত্র একটি দেশ ও জাতিকে যেমন এগিয়ে নিয়ে যেতে পারে, আবার জাতির সর্বনাশও করতে পারে। এ ক্ষেত্রে সংবাদ পরিবেশনই হচ্ছে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। নিরপেক্ষ বস্তুনিষ্ঠ খবর সমাজে শান্তি আনে, আর খারাপ খবর কখনো সমাজকে বিষিয়ে তোলে, অশান্তি ও বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করে। সেহেতু সংবাদপত্র ও সাংবাদিকদের সতর্ক হয়েই লিখতে হয়। সংবাদপত্রে যে সংবাদ সেখানে বিধৃত হবে, সে সংবাদের নানাবিদ উপাদান পাওয়া যাবে সমসাময়িক সমাজ ও সমাজভূমি থেকে। রাষ্ট্রের রাষ্ট্রীয় চরিত্র, যা সেই রাষ্ট্রের সমাজ অর্থনীতি ও জীবন ব্যবস্থার প্রকৃতিকে নিয়ন্ত্রণ করে অনিবায়ুরুপে, তার অপ্রতিরোধ্য প্রভাব সংবাদপত্রের ওপরও বর্তায়।
সংবাদপত্র এমন একটি দলিল যা যুগ যুগ ধরে সংরক্ষণ করে রাখা যায়। সংবাদপত্রকে গণতান্ত্রিক আশা-আকাক্সক্ষার বিকল্পহীন প্রতীক হিসেবে গণ্য করা হয়। এ কারণেই গণতন্ত্র বিপন্ন হলে সংবাদপত্রের স্বাধীনতার বিপর্যয় ঘটে আবার সংবাদপত্রের স্বাধীনতা খর্ব হলে গণতন্ত্রও বিপর্যয়ের সম্মুখীন হয়। সংবাদপত্র মূলত পাঠকের জন্য এবং সে পাঠক অবশ্যই সমাজমনষ্ক পাঠক। সংবাদপত্র যখন সমাজের অবিকৃত নানা ঘটনার একটি নিরপেক্ষ সংবাদচিত্র পাঠকদের উপহার দিতে পারে, তখন সে সংবাদপত্র শুধু পাঠকের খোরাক জোগায় না, একজন সাধারণ পাঠককেও সপ্রতিভ নাগরিক করে তোলে।

শেষ করতে চাই এই বলে, যারা সাংবাদিকতাকে একটি মিশন বা মহান পেশা হিসেবে বিবেচনা করেন, তাদের কাছে দলীয় সঙ্কীর্ণতার ওপর পেশাগত সততা এবং আদর্শ বড় বলে বিবেচিত হয়। দল ও দলীয় নেতা ভুল করলে তারা তাও তুলে ধরেন। দলীয় আনুগত্যের চেয়ে দেশপ্রেমকে বড় করে দেখেন। সংবাদপত্র প্রকাশের ক্ষেত্রে বড় ভূমিকা হলো সাংবাদিকদের। সেজন্যই সাংবাদিকদের সমাজের অতন্দ্র প্রহরী বলা হয়। সাংবাদিক সমাজ জাতির বিবেক হিসেবে চিহ্নিত; যারা রাষ্ট্র, সমাজ ও মানুষকে নিঃস্বার্থ ও নিরলসভাবে সেবা করা উচিত। কিন্তু আজকাল সাংবাদিক পেশায় নয়ছয় ঢুকে গেছে বলে বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন ধরনের নেতিবাচক খবর প্রকাশিত হয়। সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে দলবাজীর অভিযোগ উঠছে। বিভিন্ন ঘরানার সাংবাদিক হিসেবে সাংবাদিকরা দ্বি-বিভক্ত হয়ে পড়েছেন। তা ছাড়া অনেক সাংবাদিকের বিরুদ্ধে হলুদ সাংবাদিকতার অভিযোগ উঠছে। অনেকেই পক্ষপাতদুষ্ট। যা কারো কাছে কাম্য নয়।

পরিশেষে দৈনিক আজকের কুমিল্লা সাংবাদিকতা পেশার গুরুত্ব ও মহত্ত্ব সম্পর্কে সচেতন থাকার জন্য এই পত্রিকাটির বিভিন্ন স্তরের সাংবাদিক ও অন্যান্য বিভাগের কর্মীদের আমি শুভেচ্ছা জানাচ্ছি। তাদের সাহস, আন্তরিকতা এবং জনগণের প্রতি মমত্ববোধকে সাধুবাদ জানাচ্ছি। সেই সঙ্গে পত্রিকাটির উজ্জ্বল থেকে উজ্জ্বলতর ভবিষ্যৎ কামনা করছি।

লেখক : সাংবাদিক,কবি ও কলামিস্ট
সভাপতি,লেখক সাংবাদিক ফোরাম কুমিল্লা।

আর পড়তে পারেন