সোমবার, ২৪শে মার্চ, ২০১৯ ইং

নিজ বাবার কাছে ধর্ষণের শিকার সপ্তম শ্রেণির ছাত্রী: অভিযুক্তকে আটক

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মার্চ ১২, ২০১৯
news-image

 

মাসুদ হোসেন:

নিজ মেয়েকে ধর্ষণের অভিযোগে ঢাকার আগারগাঁও বস্তিতে সফিকুল ইসলাম টুটুল (৪০) নামের এক পাষণ্ড বাবাকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

বাবার বাড়ি থেকে লাল শাড়ি পড়ে বাবা-মায়ের আশীর্বাদ নিয়ে বধূবেশে স্বামীর বাড়িতে যাবেন নতুন জীবনের আশায়। অধিকাংশ মেয়েরই এমন একটি স্বপ্ন থাকে। অন্যান্য অনেক মেয়ের মতো ছদ্মনাম সুমনাও রূপকথার মতো সেই স্বপ্নের মতো বধূবেশে স্বামীর বাড়ি যেতে চেয়েছিলেন। কিন্তু তার এই স্বপ্নে খলনায়ক বনে যান নিজের লম্পট বাবা; যিনি নিজের কিশোরী মেয়েকে ধর্ষণ করেন। মাত্র ১৩ বছর বয়সেই নিজের বাবার কাছে কয়েকবার ধর্ষণের শিকার হয়েছিলেন সুমনা। ঘটনার বিবরনে জানা যায়, গত ৮ বছর আগে পারিবারিক কলহের জের ধরে অভিযুক্ত সফিকুল ইসলাম টুটুল তার স্ত্রীকে ছেড়ে দেন। অভিযুক্ত ব্যক্তি পেশায় একজন রাজমিস্ত্রির ঠিকাদার। সে একাধিক বিয়ে করার পরও কোন স্ত্রী তার সংসারে বেশী দিন টিকেনি। তার প্রথম সংসারে এক মেয়ে ও এক ছেলে। ভুক্তভোগী কিশোরী স্থানীয় একটি প্রতিষ্ঠানের সপ্তম শ্রেণির শিক্ষার্থী এবং ছেলেটিকে এলাকার একটি এতিমখানায় ভর্তি করানো হয়। এরই মধ্যে গত কয়েক মাস ধরে কিশোরী সুমনাকে তার জন্মদাতা বাবা পালাক্রমে ধর্ষন করে যাচ্ছে বলে অভিযোগ উঠে এসেছে। এমন ঘটনা এলাকায় জানাজানি হলে স্থানীয় একজন সমাজকর্মী থানায় অভিযোগ করলে অভিযুক্ত বাবাকে সোমবার (১১ মার্চ) গ্রেফতার করে পুলিশ। ১৩ বছরের এই কিশোরী বাদী হয়ে তার বাবার বিরুদ্ধে শেরে-ই বাংলা থানায় মামলা দায়ের করেন।

মামলার প্রধান স্বাক্ষী সমাজকর্মী জানান, গত ৪-৫ দিন আগে এমন নৃশংস একটি ঘটনা জানতে পেরে আমি কয়েকজনকে সাথে নিয়ে উপজেলা সমাজসেবা অফিসের সহায়তায় থানায় অভিযোগ করি। পরে অভিযোগ পেয়ে থানা পুলিশ তাৎক্ষণিক অভিযান চালিয়ে ওই ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করা হয়। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তিনি ধর্ষণের বিষয়টি স্বীকার করেছেন। এবং এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত ধর্ষণের শিকার ওই মেয়ে পুলিশ হেফাজতে রয়েছে। মঙ্গলবার (১২ মার্চ) আদালতের মাধ্যমে অভিযুক্তকে জেলহাজতে পাঠানো হবে।

আর পড়তে পারেন