শনিবার, ২৪শে আগস্ট, ২০১৯ ইং

আমরা হাই তুলি কেন ?

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মার্চ ১১, ২০১৯
news-image

 

ডেস্ক রিপোর্টঃ

ঘুম থেকে ওঠার পর প্রায়ই আমরা হাই তুলি। আবার খুব বেশি ঘুম পেলেও হাই তুলি। যদি প্রশ্ন করা হয় এখন অব্দি জীবনে কতবার হাই তুলেছেন আপনি? নিশ্চিয়ই উত্তর দিতে পারবেন না। হাই তোলার হিসাব করাও কঠিন ব্যাপার।

হাই তোলার বিষয়ে মূলত দুটি তত্ত্ব কাজ করে। প্রথমটি হলো দেহের একরকম এয়ার কন্ডিশনিং। আর দ্বিতীয় তত্ত্বটি হলো আমাদের যৌথ আচরণের বহিঃপ্রকাশ।
প্রথম তত্ত্ব অনুযায়ী, আমরা যখন ক্লান্ত বা বিরক্ত থাকি, তখন মস্তিষ্কের তাপমাত্রা বেড়ে যায়। বিশেষত সভা কিংবা বৈঠকের সময়। সেসময় আমরা বাতাস থেকে হা করে ঠান্ডা হাওয়া ভেতরে টেনে নিই। এটি মস্তিষ্ককে ঠান্ডা ও চাঙ্গা করতে সাহায্য করে। পাশাপাশি আমাদের ক্লান্তি কমিয়ে দেহকে জাগ্রত করে তোলে।

দ্বিতীয় তত্ত্ব অনুযায়ী, হাই তোলা একটি ছোঁয়াচে ব্যাপার। একজন হাই তুললে অন্যরাও হাই তোলে। গবেষকদের মতে, এটি একধরণের যোগাযোগ। যার উদ্দেশ্য হলো একটি সামাজিক গোষ্ঠীর দেহঘড়িগুলোকে একসঙ্গে মিলিয়ে নেওয়া। যখন সবাই হাই তোলে তখন সবার সচেতনতার স্তর এক হয়।

কিছু কিছু বিজ্ঞানী মনে করেন, পারস্পরিক এই হাই তোলার ব্যাপারটি সহমর্মিতার বহিঃপ্রকাশ। কুকুর যখন দেখে তার প্রভু হাই তুলছে, তখন সেও হাই তোলে।