বুধবার, ২২শে মে, ২০১৯ ইং

কুমিল্লায় মহাসড়কের পাশে মৌসুমী ফলের ভ্রাম্যমাণ হাট

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মার্চ ৮, ২০১৯
news-image

 

ডেস্ক রিপোর্টঃ
ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের কুমিল্লা অংশে মৌসুমী ফলের পসরা সাজিয়ে বসেছেন ভ্রাম্যমাণ বিক্রেতারা। কাক ডাকা ভোর থেকে শুরু করে সন্ধ্যা অবধি মহাসড়কের পাশে গড়ে উঠা এসব ‘ভ্রাম্যমাণ হাটে’ চলে বেচা-কেনা। বাঙ্গি, তরমুজের মতো মৌসুমী ফলের পাশাপাশি ভ্রাম্যমাণ এ হাটে মেলে লাল টুকটুকে টমেটো, মিষ্টি কুমড়া ছাড়াও হরেক রকম সবজি। দূর-দূরান্তের বাস যাত্রীরা ছাড়াও প্রাইভেট পরিবহনে চলাচলরত অধিকাংশ যাত্রীই সখে অথবা কৌতুহলী হয়ে ওই স্থানে গাড়ি থামিয়ে কিনছেন তরতাজা এসব ফল ও সবজি।

সরেজমিন ঘুরে দেখা যায়, ঢাকা থেকে কুমিল্লা আসতেই মহাসড়কের কুমিল্লা অংশের দাউদকান্দির দৌলতপুর, ইলিয়টগঞ্জসহ এর আশপাশের এলাকাজুড়ে বসেছে মৌসুমী ফলের ভ্রাম্যমাণ হাট। প্রায় অর্ধশত মৌসুমী ব্যবসায়ী মৌসুমী ফল ছাড়াও বিক্রি করছেন নানা জাতের সাক সবজি। তবে কুমিল্লার ঐতিহ্যবাহী সুস্বাদু বাঙ্গির চাহিদাই এ হাটে বেশি বলে জানালেন ক্ষুদে ব্যবসায়ীরা।

মহাসড়কের যে পাশে তারা ফল-সবজির পসরা সাজিয়ে বসে থাকেন- তার পেছনে বিস্তৃত বিশাল ফসলী মাঠ। যে মাঠেই চাষ হচ্ছে বাঙ্গি, খিরা, শসা, টমেটো, মিষ্টি কুমড়াসহ হরেক রকমের ফল ও সবজি। যদিও ওই মাঠে নেই কোনো তরমুজের চাষাবাদ; তারপরও ক্রেতাদের আকর্ষণ করতে পশ্চিম ও উত্তরবঙ্গ থেকে আমদানি করা তরমুজও সাজিয়ে রাখছেন ব্যবসায়ীরা।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ভ্রাম্যমাণ এসব হাটে প্রতিদিন অন্তত দুই/তিন লাখ টাকার বিকিকিনি হয়। তবে ওই স্থান থেকে টাটকা বাঙ্গি, টমেটো, খিরা বা শসা পাওয়া গেলেও তরমুজে রয়েছে যথেষ্ট প্রতারণা। দূর-দূরান্তের মানুষ তরমুজ ও বাঙ্গি ফলানো জমির পাশ থেকে কিনে নেওয়ার স্বাদ গ্রহণ করলেও তরমুজের সেই স্বাদ পাওয়া যায় না। বাজার থেকে কেনা তরমুজ ও মহাসড়কের উপর জমির পাশ থেকে কেনা তরমুজ এর মধ্যে কোনো পার্থক্য নেই।

মহাসড়কের দৌলতপুর এলাকায় এমন ভ্রাম্যমাণ হাটের পাশে দাঁড়াতেই বিক্রেতারা ডাকাডাকি শুরু করেন। কেউ বলছেন- ‘ভাই, এই মাত্র পাইরা আনছি। এদিকে আসেন’। আবার কেউ বলছেন- ‘আমার নিজের জমির মাল, দাম কমাইয়া রাখমু।’ সকলের মুখে একই কথা ‘টাটকা’, ‘ক্ষেতের পাকা…’ ইত্যাদি-ইত্যাদি।

জানতে চাইলে ভ্রাম্যমাণ এ হাটের বিক্রেতা আবুল হাশেম বলেন, এখন মানুষ টাটকা ফল ও শাক-সবজি খোঁজে। যাত্রীরা যখন গাড়ি দিয়ে যাতায়াত করেন অনেকে আমাদেরকে দেখে গাড়ি থামান। ফসলী জমি থেকে সদ্য সংগ্রহ করা ফল ও সবজি দেখে আকৃষ্ট হন। তাই অনেকেই গাড়ি থামিয়ে কিনে নেন।

তবে তরমুজে ঘাপলার বিষয়টি জানা গেলো কিছুটা ঘনিষ্ঠতা বাড়ানোর পর। নাম প্রকাশ না করা শর্তে এক বিক্রেতা বলেন, ‘বাঙ্গি-টমেটো আমাদের এখানকার জমির হলেও তরমুজ এখানকার না। আমরা বাজারের আড়ত থেকে তরমুজ এনে এখানে বিক্রি করি। এ এলাকায় আগে তরমুজের চাষাবাদ হতো, এখন আর তেমন হয় না।’

নিজের জমিতে চাষ করা টমেটো বিক্রি করতে এসেছেন অনীল চন্দ্র সরকার।

তিনি বলেন, ‘আমার টমেটো ক্ষেত আছে। বাজারে টমেটো ৫-৭ টাকা কেজি দরে বিক্রি করতে পারি। আর এখানে প্রতিটি ঝুলিতে থাকা ৪-৫ কেজি টমেটো বিক্রি করি ৪০-৬০ টাকা পর্যন্ত। টমেটোর পাশাপাশি অন্যের জমি থেকে বাঙ্গি এবং আড়ত থেকে তরমুজ কিনে আনি। প্রতিদিন প্রায় ৫-৭ হাজার টাকা বিক্রি করতে পারি।’

ভ্রাম্যমাণ এ হাটের মৌসুমী বিক্রেতারা জানান, এ ব্যবসা সব সময় হয় না। প্রতি বছরের এক থেকে দেড় মাস ব্যবসা করার সুযোগ হয়। টমেটো ও বাঙ্গির মৌসুম শেষ হলে আমাদেরও বিক্রি বন্ধ হয়ে যাবে।

আর পড়তে পারেন