মঙ্গলবার, ১৮ই মার্চ, ২০১৯ ইং

স্ত্রীকে ভালবাসা ইবাদতের অংশ

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মার্চ ৪, ২০১৯
news-image

 

নিউজ ডেস্ক.

দুনিয়ার জীবনে স্ত্রীকে ভালোবাসাও ইবাদত বিশেষ। তবে শর্ত হলো, ওই ভালোবাসা যেন স্বামীকে ইবাদত-বন্দেগি থেকে ভুলিয়ে না রাখে। বুজুর্গরা বলেছেন, স্ত্রীর প্রতি ভালোবাসা গভীর হওয়া কাম্য। স্ত্রীর প্রতি ভালোবাসা প্রদশর্নের কথা শরীয়তে বলা হয়েছে। এর সূত্র হচ্ছে কোরআনে কারিমের একটি আয়াত, যাতে বলা হয়েছে, ‘আল্লাহতায়ালা তোমাদের মাঝে প্রীতি ও করুণা সৃষ্টি করেছেন।’এই ভালোবাসা মূলত আল্লাহতায়ালার দান।

স্ত্রীকে ভালোবাসা প্রসঙ্গে হাদিসে হজরত রাসূলুল্লাহ (সা.) ইরশাদ করেন, ‘তোমাদের মধ্যে তারাই উত্তম যারা তাদের স্ত্রীদের জন্য উত্তম। আর আমি আমার স্ত্রীদের জন্য তোমাদের মধ্যে সর্বোত্তম ব্যক্তি।’ -তিরমিজি

অন্য হাদিসে আরও ইরশাদ হয়েছে, ‘স্ত্রীদের সঙ্গে ভালো ব্যবহারের অসিয়ত আমার কাছ থেকে গ্রহণ করো।’ এই আদেশ পালনের উদ্দেশ্য কেউ যখন স্ত্রীকে ভালোবাসে তখন তা আর দুনিয়া থাকে না; বরং সরাসরি দ্বীন হয়ে যায়, ইবাদতভুক্ত কাজ হয়ে যায়।

আমাদের পূর্ববর্তী অলি-আউলিয়ারা তাদের স্ত্রী-সন্তানের প্রতি গভীর ভালোবাসা পোষণ করতেন। এটা দোষের কিছু নয়। আমরাও আমাদের স্ত্রী-সন্তানদের ভালোবাসি, তবে তাদের মতো গভীর ভালোবাসা আমাদের মধ্যে নেই। এখানে বড় পার্থক্য রয়েছে। পার্থক্যটা হলো, আমরা স্ত্রীদের ভালোবাসি আনন্দ লাভের জন্য। স্ত্রীর সঙ্গে দাম্পত্য সম্পর্ক এজন্য যে, এতে আনন্দের বিষয় আছে। কিন্তু অলি-আউলিয়ারা এজন্য ভালোবাসেন যে, আল্লাহতায়ালা স্ত্রীদের দায়-দায়িত্ব তাদের ওপর অর্পণ করেছেন। এজন্য আমাদের ভালোবাসা ও তাদের ভালোবাসায় আকাশ-পাতালের ব্যবধান।

হজরত নবী করিম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম পুণ্যাত্মা স্ত্রীদের প্রতি অত্যন্ত হৃদ্যতাপূর্ণ আচরণ করতেন, তাদের প্রচণ্ড ভালোবাসতেন। যা বিভিন্ন হাদিসের বর্ণনায় এসেছে। যেমন হজরত আয়েশা (রা.)-এর সঙ্গে দৌঁড় প্রতিযোগিতা করছেন, কাঁধের পিছনে তাকে দাঁড় করিয়ে হাবশিদের লাঠিখেলা দেখিয়েছেন, রাতের বেলায় এগারো মহিলার কাহিনী শুনিয়েছেন।

আমরা মুসলামান। আমাদের প্রত্যেকটি কাজ সুন্নতের অনুসরণে হওয়া দরকার। জীবনের যে পর্যায়ের বিষয় হোক না কেন, নবী করিম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের সুন্নতে তার সূত্র পাওয়া যাবে। তাই প্রত্যেক কাজ সুন্নতের নিয়তে করা জরুরি। তাহলে দুনিয়ার সব কাজ দ্বীনের কাজে পরিণত হবে, এর দ্বারা সওয়াব হাসিল হবে। তবে এ জন্য দরকার অনুশীলন। ধরুন, আপনি ঘরে প্রবেশ করলেন, বাচ্চাকে খেলতে দেখে আনন্দ হলো, ইচ্ছা হলো তাকে কোলে নিয়ে আদর করবেন, কিন্তু এক মুহূর্তের জন্য থেমে গেলেন এবং ভাবলেন যে, ইচ্ছে হচ্ছে এজন্য এ কাজ করব না, পর মুহূর্তেই ভাবলেন, হজরত রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম শিশুদেরকে আদর করতেন, তারই অনুসরণে আমি তাকে কোলে নিয়ে আদর করবো। এরপর তাকে কোলে নিয়ে আদর করলেন; তো এই কাজটাও সুন্নতের অনুসরণের কারণে ‘দ্বীন’ হিসেবে গণ্য হবে।

হাকিমুল উম্মত হজরত আশরাফ আলী থানভি (রহ.) বলেছেন, মানুষের তাকওয়া ও খোদাভীতি বৃদ্ধি পাওয়ার দ্বারা স্ত্রীর প্রতি ভালোবাসাও বৃদ্ধি পায়। কেননা, সে জানে যে, আল্লাহতায়ালার পক্ষ থেকে তার দায়-দায়িত্ব আমার ওপর অর্পিত হয়েছে। আমি তা আদায় করতে বাধ্য। এই নিয়তে যখন সে তা আদায় করে তখন সওয়াবের অধিকারী হয়।

ইসলামি শরিয়ত মনে করে, যদি পার্থিব কারণে মানুষ আল্লাহকে ভুলে যায়, আখেরাতকে ভুলে যায় তাহলে তা নিন্দনীয় ও অশুভ। তা না হলে সহায়-সম্পদের প্রাচুর্য নিন্দিত নয়। তাই তো ইসলাম সংসার বিরাগী হওয়াকে সমর্থন করে না, ইসলাম এর অনুমতিও দেয় না।

আর পড়তে পারেন