বুধবার, ২৫শে জুন, ২০১৯ ইং

নবীনগরে উপজেলা নির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন নিয়ে আওয়ামী লীগে দ্বিধাবিভক্তি

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
মার্চ ৪, ২০১৯
news-image

মো. দেলোয়ার হোসেনঃ
চতুর্থ ধাপে আগামী ৩১ মার্চ অনুষ্ঠিতব্য নবীনগর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় উপ-কমিটির সহ-সম্পাদক কাজী জহির উদ্দিন সিদ্দিক টিটুকে দলের মনোনয়ন দেয়া হয়েছে। যদিও উপজেলা আওয়ামী লীগের একক প্রার্থী ছিলেন হাবিবুর রহমান স্টিফেন কিন্তু শেষ পর্যন্ত দলের মনোনয়ন ধরে রাখতে পারেনি।

উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে নবীনগর উপজেলা আওয়ামী লীগের চূড়ান্ত করা এই প্রার্থীকে বাদ দিয়ে শুক্রবার ১লা মার্চ রাতে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় মনোনয়ন বোর্ডের সভায় আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় উপ-কমিটির সহ-সম্পাদক কাজী জহির উদ্দিন সিদ্দিক টিটুকে দলের মনোনয়ন দেয়া হয়। এ নিয়ে নবীনগর আওয়ামীলীগে দ্বিধাবিভক্তি দেখা দিয়েছে। আগামীকাল ৫ মার্চ উপজেলা আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত হবে। এই সভায় সকল সমস্যা সমাধান হবে এমনটি জানিয়েছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের উর্ধ্বতন নেতৃবৃন্দ।

তবে হাবিবুর রহমান স্টিফেন ‘ভুয়া মুক্তিযোদ্ধা’ ও শীর্ষ যুদ্ধাপরাধী গোলাম আযমের ‘নিকট আত্মীয়’ অভিযোগ করে তাকে দলের মনোনয়ন না দেয়ার দাবি জানান কাজী জহির উদ্দিন সিদ্দিক টিটু, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাবেক যুগ্ম সম্পাদক এইচ.এম আল-আমিন আহমেদ ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম ফেরদৌস।

গত ২৮ জানুয়ারি নবীনগর উপজেলা আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভায় উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে দলীয় প্রার্থী চূড়ান্ত করতে স্থানীয় সংসদ সদস্য মোহাম্মদ এবাদুল করিমকে দায়িত্ব দেন দলীয় নেতারা। পরবর্তীতে উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি হাবিবুর রহমান স্টিফেনকে দলের একক প্রার্থী হিসেবে চূড়ান্ত করে কেন্দ্রে পাঠানো হয় তার নাম। এরপর থেকেই স্টিফেনকে নিয়ে বিতর্ক শুরু হয়। তিনি ‘ভুয়া মুক্তিযোদ্ধা’ ও যুদ্ধাপরাধী গোলাম আযমের ‘নিকট আত্মীয়’ বলে অভিযোগ ওঠে। এ নিয়ে স্টিফেনের বিরুদ্ধে ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করেন জহির উদ্দিন সিদ্দিক টিটু, আল-আমিন আহমেদ ও সিরাজুল ইসলাম ফেরদৌস। অপর দিকে হাবিবুর রহমান স্টিফেনও নবীনগরে পাল্টা সংবাদ সম্মেলন করে নিজের বিরুদ্ধে আনা সব অভিযোগ মিথ্যা দাবি করেন এবং ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলায় নিহত আওয়ামী লীগ নেত্রী আইভি রহমানের আত্মীয় বলে জানান। সংবাদ সম্মেলনের আগে স্টিফেন এর সমর্থকরা মনোনয়ন প্রত্যাশী কাজী জহির উদ্দিন সিদ্দিক টিটু, এইচ.এম আল-আমিন আহমেদ ও সিরাজুল ইসলাম ফেরদৌস এর বিরুদ্ধে নবীনগরে মিছিল করে ব্যানার, ফেস্টুন ও পোস্টার ছিড়ে ফেলে। এ ঘটনায় ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় দ্রুত বিচার আইনে হাবিবুর রহমান স্টিফেনকে প্রধান আসামী করে ছাত্রলীগের ৮ জন সহ অজ্ঞাতনামা আরো ৩০জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়। মিছিল করে ব্যানার, ফেস্টুন ও পোস্টার ছিড়ে ফেলার ঘটনায় জেলা ছাত্রলীগ নবীনগর উপজেলার ৬ ছাত্রলীগ নেতাকে শোকজ করেছে। এ নিয়ে ছাত্রলীগ সহ আওয়ামীলীগে বিভক্তি দেখা দিয়েছে।

এ বিষয়ে উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক এম এ হালিম বলেন,‘আমরা একক প্রার্থী দিয়েছিলাম। কিন্তু কেন্দ্র সেটি বাদ দিয়ে নতুন প্রার্থী দিয়েছে। আমরা তাঁকে স্বাগত জানিয়েছি। আমরা এখন নতুন প্রার্থী নিয়ে কাজ করবো। আশা করছি, মঙ্গলবারের বর্ধিত সভায় দলের সভাপতি সাবেক সাংসদ ফয়জুর রহমান এবং বর্তমান সাংসদ এবাদুল করিমের উপস্থিতিতে সাংগঠনিক বিষয়াদি নিয়ে আমরা সম্মিলিতভাবে আমাদের পরবর্তী করণীয় নির্ধারণ করতে পারবো।’

আর পড়তে পারেন