রবিবার, ১৮ই আগস্ট, ২০১৯ ইং

স্কুল ছাত্রীকে যৌন হয়রানী, কুমিল্লায় বখাটের ১মাসের সাজা

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
ফেব্রুয়ারি ২৮, ২০১৯
news-image

 

মহিউদ্দিন ভূইয়া.

গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে কুমিল্লার বুড়িচং উপজেলা নির্বহী ম্যাজিস্ট্রেট ইমরুল হাসান এর নেতৃত্বে ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযানে, স্কুল ছাত্রীকে উত্যক্তকারী বখাটে যুবক কে হাতেনাতে গ্রেপ্তার করে ১মাসের সাজা প্রদাণ করা হয়।

জানা যায়, ময়নামতির ঘোষনগর এলাকার বাসীন্দা আলঙ্গীর হোসেনের স্কুল পড়ুয়া কন্যা মিনা কে দীর্ঘদিন ধরে উত্যক্ত করে আসছিলো সোলামান নামের বখাটে যুবক। কালাকচুয়া কাজিমুদ্দিন খন্দকার উচ্চ বিদ্যালয়ের ৯ম শ্রেনীর ছাত্রী মিনা আক্তার এর মা পূর্বেও এবিষয়ে থানায় লিখিত অভিযোগ করেছেন বলেও জানা গেছে। বৃহস্পতিবার সকালে স্কুলে যাওয়ার পথে নাজিরা বাজার লাকি মার্কেটের সামনের সড়কে পথ রোধ করে অশালীন আচরণ শুরু করে। এসময় ঐ ছাত্রীর শ্লীলতাহনীর চেষ্টা চালায় বখাটে সোলায়মান (২৬)। ফোনে বিষয়টি তার পিতাকে অবহিত করলে পিতা আলঙ্গির হোসেন ইউএনও কে অবহিত করেন। ইভটিজিংয়ের খবর পেয়ে তাৎক্ষণিক বুড়িচং থানা পুলিশের সঙ্গীয় ফোর্স সহ ঘটনাস্থল আসেন। এসময় সোলায়মান কে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করলে নিজের অপরাধ স্বীকার করে সোলামান। স্কুল ছাত্রী মিনা অভিযোগ করে বলেন প্রায়শই সোলেমান কয়েকজন বখাটে কে নিয়ে স্কুলে আসা যাওয়ার পথে তাকে প্রেম সহ নানা কুপ্রস্তাব দিয়ে আসছে। এছাড়াও কয়েকবার শরিরে হাত দিয়ে শ্লীলতাহানীর চেষ্টা করে। বিষয়টি এলাকার কয়েকজন গণ্যমান্য ব্যাক্তিবর্গ সহ অভিভাবক কে জানিয়েছেন।
পরে ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে স্কুল ছাত্রীকে উত্যক্ত করার দায়ে অভিযুক্ত সোলায়মান কে ১মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড প্রদাণ করেন উপজেলা নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ইমরুল হাসান।

বুড়িচং থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা অকুল চন্দ্র বিশ্বাস ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে বখাটে সোলায়মান কে একমাসের সাজা প্রদাণ করা হয়েছে। আসামীর পূর্বের বাড়ি ঘোষনগর হলেও সে সদর উপজেলার কালির বাজার কামারবাগ (কমলাপুর) গ্রামের বাসীন্দা এবং সেলিম মিয়ার ছেলে। আসামীকে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।
কালির বাজার কমলাপুর এলাকায় বসবাসকারী সোলেমান এলাকায় সোর্স হিসেবে পরিচিত। ইভটিজিং ছাড়াও সোলেমানের বিরুদ্ধে ডিবি পুলিশ ও র‍্যাব এর ভয় দেখিয়ে চাঁদাবাজি, মাদক মামলায় ফাঁসিয়ে হয়রানী, টাকা আদায় ও মাদক বেচাকেনার একাধিক অভিযোগ রয়েছে।
ভুক্তভোগীদের একজন ময়নামতির ভাঙ্গারী ব্যাবসায়ী দেলোয়ার হোসেন অভিযোগ করে বলেন, গত কিছুদিন আগে রাতের আধারে ময়নামতি ফরিজপুর এলাকার ব্যাবসায়ী দেলোয়ার হোসেনের দোকানের শাটার বক্সের ভেতরে ইয়াবা রেখে ডিবি পুলিশ দিয়ে ফাঁসানোর চেষ্টা করে। সোলেমানের দেয়া তথ্য অনুযায়ী দেলোয়ারের দোকানে গিয়ে ডিবি পুলিশ বিষয়টি বুঝতে পেরে মাদকগুলো উদ্ধার করে স্থান ত্যাগ করে। এবিষয়ে দেলোয়ার আরো বলেন, পূর্বেই থানায় জিডি করে রাখায় তিনি এ চক্রান্ত থেকে রক্ষা পেয়েছেন।

সোর্স সোলেমানের হয়রানীর শিকার ময়নামতির ঘোষনগর উদয়নবাগ এলাকার প্রবাস ফেরত আরেকজন ব্যাবসায়ী জহির মিয়া জানান, গত ৫ দিন আগে ঘোষনগর উউত্তরপাড়ার একটি দোকানের সামনে দাড়িয়ে থাকা অবস্থায় সোলায়মান তার কাছে এসে দাড়ায়। এর কিছুক্ষণ পরই ডিবি একটি টিম হইএক্স গাড়ি থেকে নেমে তাকে তল্লাশি শুরু করে। পাশে পরে থাকে ছোট কিছু টেবলেট কুড়িয়ে পায় যা সোলেমান নিজে পকেট থেকে ফেলেছে বলে জানায় জহির। এবিষয়ে অনেক হেনস্থা ও হয়রানীর শিকার হতে হয় তাকেও। এসময় সোলেমান তার কাছে একলক্ষ টাকা দাবী করে ছাড়িয়ে নেয়ার কথা, অভিযোগ করেন জহির মিয়া।

স্থানীয় কয়েকজন মাদক ব্যাবসায়ীর সাথে সোলেমান ওঠাবসা রয়েছে। নাম প্রকাশ না করার শর্তে স্থানীয় মাদক কারবারিদের কয়েকজন জানায়, সোর্স সোলেমান কে মাসিক চাঁদার (মান্তি) টাকা না দিলেই গ্রেপ্তারের ভয় দেখায় সে। মাদকের বিরুদ্ধে অভিযান শুরুর পর থেকে ব্যাবসা ছেড়ে ভালো কাজে যুক্ত হয়েছেন এমন কয়েকজন হয়রানীর শিকার হয়েছেন বলেও জানা যায়। সে নিজেই মাঝে মাঝে মাদক বিক্রি করে করতে আসে বলেও জানায় তারা। অনেকেই ব্যাবসা ছেড়ে ভালো পথে ফিরে আসতে পারছে না তার কারনে।

সোলেমানের গ্রেপ্তার ও সাজার খবরে ভুক্তভোগী ও হয়ারানীর শিকার অনেকেই এলাকায় মিষ্টি বিতরণ করেছে বলেও জানা যায়।
খোঁজ নিয়ে জানা যায় নাজিরা বাজার থেকে বাড়ি ঘর বিক্র করে কালির বাজার এলাকার দৈয়ারা গ্রামে বসবাসকারী সেলিম মিয়ার ছেলে সোলেমান, পেশায় গাড়ি চালাক হলেও এখন আর গাড়ি চালায় না সোলায়মান। এলকার মাদক ব্যাবসায়ী ও মাদকসেবী সহ স্থানীয় সহজ সাধারণ মানুষকে হয়রানী করে জীবিকা নির্বাহ করার পাশাপাশি জমি এবং গাড়িও কিনেছে।

এবিষয়ে এলাকার সচেতন ব্যাক্তিদের কয়েকজন জানান, নিঃস্বন্দেহে মাদক নির্মূলের উদ্দেশ্যে সঠিক ভাবে সোর্স এর কাজ করা প্রশংসনীয় সাহসী কাজ। তবে সে যা করছে তা খুবই গর্হিত কর্ম। যে নিজেই মাদকের কারবারে জড়িত আর ভালো মানুষকে হয়রানী করে চাঁদাবাজিতে লিপ্ত হয় তার কঠোর শাস্তি হওয়া দরকার।

আর পড়তে পারেন