রবিবার, ১৮ই আগস্ট, ২০১৯ ইং

আমি বুঝতে পেরেছিলাম সে সুস্থ কোনো মানুষ না

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
ফেব্রুয়ারি ২৭, ২০১৯
news-image

 

ডেস্ক রিপোর্ট :

চট্টগ্রামে বাংলাদেশ বিমানের একটি উড়োজাহাজ ছিনতাইয়ের ঘটনায় বুধবারই নাম উঠে এসেছিল চিত্রনায়িকা শিমলার। ছিনতাইকারী মাহবুব পলাশের সঙ্গে এই নায়িকার বিয়ে হয়েছিল। ময়ূরপঙ্খী বিমানটির ক্রুদের বরাত দিয়ে বলা হচ্ছে, শিমলার ওপর রাগ করেই নাকি বিমান ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটিয়েছিলেন পলাশ। এ প্রসঙ্গসহ তিনি নানা বিষয়ে কথা বললেন মিডিয়ার সঙ্গে—

বিমান ছিনতাইকারী মাহমুদ পলাশের দ্বিতীয় স্ত্রী আপনি। আপনার সম্পর্কের শুরু থেকে বিস্তারিত জানতে চাই—

একটা জন্মদিনের অনুষ্ঠানে তার সঙ্গে আমার পরিচয় হয়। এটা ২০১৭ সালের ঘটনা। এরপর বিভিন্ন মাধ্যমে আমাদের দেখা হয়। গতবছরের ৩ মার্চ আমাদের বিয়ে হয়। ডিভোর্স হয় একই বছরের ৬ নভেম্বর। আমার সাথে কোরবানির ঈদের ১৫ দিন আগে দেখা হয়, সেদিনই শেষ কথা হয়। এরপর আমাদের আর কোনো যোগাযোগ হয়নি।

কিন্তু মাহিবি জাহান নামে তিনি কেন পরিচয় দিতেন সবসময়?

তার সঙ্গে আমার যেদিন প্রথম দেখা হয় সেদিন থেকেই আমি মাহিবি জামান নামে চিনতাম। মিডিয়াতে এই নামেই তাকে চেনে। কোন উদ্দেশ্যে এই পরিচয় দিতেন তা আমি ঠিক জানি না। তার একেক নামের সঙ্গে যে একেক চরিত্র ছিল সেটা আমিও বুঝতে পারিনি। এটা নিয়ে আমি নিজেও বিব্রত ছিলাম।

তাকে চেনেন এমন মানুষের সংখ্যা খুবই কম। মিডিয়াতে তার অবস্থান কেমন ছিল? একটু খোলাসা করুন—

আমি তাকে প্রডিউসার হিসেবেই জানি।

কিন্তু তার পরিবার বলছে, তারা মধ্যবিত্ত পরিবার। তাহলে তার এই টাকার উত্স কী?

আসলে আমি তাকে নিয়ে বেশিকিছু জানি না। স্বামী-স্ত্রী যেভাবে সাধারণত সংসার করে আমরা সেভাবে করিনি। তার আর্থিক অবস্থা কি ছিল বা টাকার কোথা থেকে আসতো আমি কিছুই জানি না। কারণ আমি মিডিয়াতে কাজ করি। তার থেকে টাকা নিয়ে চলবো এই মনোভাব কখনোই ছিল না। সেদিক থেকে আমার কোনো আগ্রহ ছিল না এ ব্যাপারে।

‘সে সবকিছু গোপন রাখার চেষ্টা করতো’

আপনাদের বিচ্ছেদের কারণ কী ছিল?

সে যে আগে একটা বিয়ে করেছিল সেটা আমি জেনেছি বহুপরে। তার একটা ছেলেও আছে, তারা বগুড়ায় থাকে। যত দিন যেতে শুরু করলো তার কথার সঙ্গে কাজের কোনো মিল খুঁজে পাচ্ছিলাম না। এমনকি প্রায়ই বলতো বিদেশ যাবে, কিন্তু আমি তার পাসপোর্টে কোনো ভিসাই দেখতাম না। সবকিছু গোপন রাখার চেষ্টা করতো। আমি বুঝতে পেরেছিলাম সে সুস্থ কোনো মানুষ না। এ কারণেই সম্পর্কের ইতি টানা হয়েছে।

কিন্তু স্বামীর আয়ের উত্স তো আপনার জানার কথা…

আমি যেহেতু তার টাকায় কখনো চলিনি সেহেতু এ ব্যাপারে আমার কোনো আগ্রহ ছিল না। শুধু জানতাম সে বিদেশে একটা জব করতো।

অর্থের ব্যপারে আপনার আগ্রহ না-ই থাকতে পারে। কিন্তু তার সম্পর্কে তো সব তথ্যই আপনার জানার কথা। তিনি কোনো উগ্রপন্থী সংগঠনের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন?

না, আমি এমন কোনোকিছু দেখিনি। এমনকি বাংলাদেশের তেমন কোনো ভালো বন্ধুই দেখিনি তার। উনি আমাকে বলতেন, উনি বাংলাদেশেই থাকেন না।

কিন্তু আপনার প্রেমে ব্যর্থ হয়ে উনি বিমান ছিনতাইয়ের চেষ্টা করেছেন। ঘটনাটির সঙ্গে আপনার যোগসূত্র কী?

এটা ভীষণ হাস্যকর ব্যাপার।

আর পড়তে পারেন