মঙ্গলবার, ২০শে আগস্ট, ২০১৯ ইং

কুমিল্লায় স্কুল কমিটির নির্বাচন নিয়ে সংঘর্ষ, আহত ১১

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
ফেব্রুয়ারি ১৯, ২০১৯
news-image

 

স্টাফ রিপোর্টারঃ
কুমিল্লা জেলার ব্রাহ্মনপাড়া উপজেলার সাহেবাবাদ ইউনিয়নের জিরুইন বহুমুখি উচ্চ বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির নির্বাচন নিয়ে সংঘর্ষে উভয় পক্ষের ১১ জন আহত হয়েছে। ৪৫-৫০টি ঘর ও দোকান-পাট ভাংচুর এবং লুটপাট করেছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, গত ১৮ ফেব্রুয়ারী ব্রাহ্মনপাড়া উপজেলার জিরুইন বহুমুখি উচ্চ বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। এতে জহিরুল ইসলাম ভুইয়া ও আশ্রাফ আলী মেম্বারের নেতৃত্বে দুটি প্যানেল থেকে ১০ জন প্রার্থী অংশগ্রহন করে। সারা দিন ভোট গ্রহণ শেষে বিকালে নির্বাচনের প্রিজাইডিং অফিসার উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোঃ মতিউল আলম আলী আশ্রাফ মেম্বারের প্যানেলকে বিজয়ী ঘোষনা করে। এতে জহিরুল ইসলাম ভুইয়ার প্যানেল ফলাফলকে মেনে না নিয়ে পুনরায় ভোট গণনা করার দাবি জানায়।

এই নিয়ে উভয় প্যানেলের সমর্থকদের মধ্যে উত্তেজনার সৃষ্টি হয়। পরবর্তীতে তা সংর্ঘষে রুপ নেয়। এতে উভয় পক্ষের ১১ জন আহত হয়ে বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে। আহতরা হলো জিরুইন গ্রামের আঃ রহমানের ছেলে অলি (২৫), জুনাব আলীর ছেলে মাইনুদ্দিন (৩০),মৃত আবদুল হাকিমের ছেলে কাদের মাষ্টার (৬০) ও ডাঃ খোরশেদ আলম (৪৫), আমির হোসেন (৭০),মৃত হাকিমের ছেলে আঃ সামাদ (৭০), ছামাদের ছেলে বাবুল মিয়া (৩৪), ফরিদ মেম্বারের ছেলে সাগর (২৪), আবুল কাশেমের ছেলে তারেক (৩২),বজলু ভ্ইুয়ার ছেলে আঃ হান্নান(৬০), মহসিন (৪০)। এছাড়া জিরুইন উত্তর বাজারে হামলা চালিয়ে প্রায় ৪৫/৫০টি বশত ঘর ও দোকান পাটে ব্যাপক ভাংচুর এবং লুট-পাট করে।

এতে প্রায় ১ কোটি টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। এই ব্যাপারে জহিরুল ইসলাম ভুইয়া প্যানেলে প্রার্থী জিরুইন গ্রামের মৃত হাজী ডাঃ শফিকুল ইসলামের ছেলে ডাঃ মাহাবুবুর রহমান স্বপন বলেন,অত্যন্ত সুন্দর ভাবে ভোট গ্রহন শেষে প্রিজাইডিং অফিসার কৃষিকর্মকর্তা মোঃ মতিউল আলম তড়িঘরি করে ফলাফল ঘোষণা করেন। এতে আমরা ফলাফল প্রত্যাক্ষান করে পুনরায় ভোট গণনা করার জন্য বহু অনুরোধ করার করি কিন্ত তিনি তা না করে মোঃ আলী আশ্রাফ মেম্বারের প্যানেলকে বিজয়ী ঘোষনা করে। এতে বাহির থেকে আমাদের সমর্থকরা ভূয়া ভূয়া বলে মিছিল শুরু করলে আলী আশ্রাফ মেম্বারের লোকজন হামলা করে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দপ্তরী মোঃ বিল্লাল হোসেনের বাড়ী ভাংচুর করে।

পরবর্তীতে সাহেবাববাদ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ মোস্তফা সারোয়ার খান ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে উভয় পক্ষকে শান্ত করেন এবং এটার একটা সুষ্ঠ সমাধান করার আশ্বাস প্রদান করেন। কিন্ত গত ১৮ ফেব্রæয়ারী সকাল ৮টা আলী আশ্রাফ মেম্বারের নেতৃত্বে ৪/৫শত লোকজন দেশি অস্ত্র দা,ছেনী, লাঠি নিয়ে হামলা করে এলোপাথারি কোপানো শুরু করে। এতে প্রায় ৪৫/৫০ঘর ও দোকান পাট ভাংচুর এবং লুটপাট করে। এতে বিভিন্ন মালামালসহ প্রায় ১কোটি টাকার ক্ষতিসাধন হয়।

জিরুইন গ্রামের আবুল বাশার বলেন, স্কুলের শিক্ষকরা জহিরুল ইসলাম ভুইয়ার প্যানেলকে সমর্থ করেন এবং ছাত্রছাত্রী ও অভিভাবকরা মিলে মোঃ আলী আশ্রাফ মেম্বারের প্যানেলকে সমর্থন করে। এতে ২৪টি ভোট বেশি পেয়ে ছাত্রছাত্রী সমর্থীত প্যানেলকে প্রিজাইডিং অফিসার বিজয়ী ঘোষনা করে। শিক্ষকদের সমর্থীত জহিরুল ইসলাম ভুইয়া প্যানেল পরাজয়কে মেনে নিতে না পেরে পূর্বে সভাপতি মোঃ জয়দল হোসেনের ভাই আঃ কাদের মাস্টারকে মারধর করে।

তারপর ১৯ ফেব্রুয়ারী সকালে ডাঃ খোরশেদ আলম তার ব্যবসায় প্রতিষ্ঠানে যাওয়ার সময় তাকে ব্যাপক মারধর করে। এতে আলী আশ্রাফ মেম্বারের লোকজন উত্তেজিত হয়ে হামলা করে।

এই ব্যাপারে সাহেবাবাদ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ মোস্তফা সারোয়ার খানের সাথে যোগযোগ করা হলে তিনি ঘটনার কথা স্বীকার করে বলেন এই বিষয়ে পরে কথা বলবেন।

ব্রাহ্মনপাড়া থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ শাহজাহান কবির বলেন, এখন পর্যন্ত কোন পক্ষ মামলা দায়ের করে নি। মামলা দায়ের করলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে। থানার পুলিশ অফিসাররা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে এবং পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রেখেছে।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার ফৌজিয়া সিদ্দিক কুমিল্লায় প্রশাসনিক মিটিংয়ে থাকায় এই বিষয়ে কোন মন্তব্য করতে পারেনি।

আর পড়তে পারেন