শনিবার, ২৪শে আগস্ট, ২০১৯ ইং

কুমিল্লায় মেয়ের চিকিৎসার জন্য নিজের কিডনি বিক্রি করতে চান বৃদ্ধা মা

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
ফেব্রুয়ারি ১৮, ২০১৯
news-image

মহিউদ্দিন ভূইয়াঃ

অনেক স্বপ্ন ছিলো দু’চোখে, লেখাপড়া করে বড় ডাক্তার হবে একদিন। কৃষক পিতার ৬ বোন আর ২ ভাইয়ের বড় পরিবার অভাবের সংসারে হাল ধরবে হাছিনা নিজেই। বাবাকে আর এতো কষ্ট করতে দেবে না তখন । বিধবা বোনটাকে আবার নতুন করে বিয়ে দেবে। মায়ের সব কষ্ট দুর করবে সে। আর তাই জীবনে কিছু করতে হবে ভেবেই খুব মনোযোগী লেখাপড়ায়। নিমসার হাই স্কুলের ছাত্রী হাসিনা, শ্রেনীর সকল শিক্ষার্থী আর বান্ধবীদের কাছে যেমন প্রিয় ছিলো তেমনি মেধাবীও ছিলো। কিন্তু সে স্বপ্নের কবর রচিত হয়েছে কয়েক বছর আগেই । এখন আর স্বপ্ন দেখেনা সে, কেবল একটু বেঁচে থাকতে এই সুন্দর পৃথিবীতে আশেপাশের মানুষগুলোকে নিয়ে।।

বলছিলাম ব্রেইন টিউমার আক্রান্ত কুমিল্লার বুড়িচং উপজেলার মোকাম ইউনিয়নের মাধবপুর গ্রামের মৃতঃ আঃ খালেক এর কনিষ্ঠ কন্যা হাছিনা আক্তার(২৩) এর কথা। নবম শ্রেনীতে ওঠার পরই প্রচন্ড মাথা ব্যাথা দেখা দেয় তার। বিভিন্ন চেকআপের ডাক্তাররা জানায় তার ব্রেইন টিউমার হয়েছে। কৃষক খালেক মিয়ার ৬ মেয়ে আর ২ ছেলের বড় পরিবার। বড় ৩ মেয়েদের বিয়ে দিয়েছেন ধার দেনা করে। আরো দুই মেয়ে বাকী তার পর আবার অসুস্থ মেয়ের চিকিৎসা! দুশ্চিন্তায় পৃথিবীর মায়া ছেড়ে পাড়ি জমায় পরোপারে। ছালমার পরিবারে নেমে আসে আরো দুর্ভোগ। শোকে কাতর মা হয়ে পরেন আরো অসহায় , হাসিনার বাবার রেখে যাওয়া জমিটুকুও বিক্রি করে দেন তার অপারেশন করাতে প্রায় ৬ লক্ষ টাকা খরচ করে মেয়ের অপারেশন করান। কিন্তু পুরোপুরি সুস্থ হয় নি সে। আরো কয়েকটি অপারেশন করতে করাতে হবে। দুভাইয়ের একজন বড়, নিজের পরিবার নিয়ে শশুর বাড়িতে থাকেন সেখানে দিনমুজুরের কাজ করেন তিনি। আরেক ভাই ছোট দু বোনের বড়, স্ত্রী ও তিন মেয়ে নিয়ে থাকেন বাড়িতেই। নিমসার কাঁচাবাজারের একটি আরতে মজুরের কাজ করেন তিনি। এছাড়া বাড়িতে বিধবা এক বোন, মা, অসুস্থ হাছিনা সহ পুরো পরিবার এখন তারই দেখতে হয়। নিয়তিকে মেনে নিয়ে বিশাল দায়িত্ব কাঁধে চেপে কোন রকমে দু’এক বেলা খেয়ে না খেয়ে চালাচ্ছেন সকলকে। জমিজমা বলতে এখন কেবল ভিটিটুকুই আছে, বোনের চিকিৎসার জন্য সবই শেষ প্রবাসী বোন জামাই ও গত ৫/৬ বছরে ১০/১২ লক্ষ টাকা দিয়েছেন হাসিনার চিকিৎসার জন্য। এখন তিনিও দেশে, খুব একটা ইনকাম নেই তারও। ডাক্তাররা বলেছেন হাসিনার আরেক টি অপারেশন খুবই জরুরী। আর এজন্য লাগবে সব মিলিয়ে প্রায় ৮/৯ লক্ষ টাকা। জরুরি অপারেশন না করালে হয়তো আর বেশীদিন বাঁচানো যাবে না তাকে। দিশেহারা হাসিনার অসহায় মা তিলে তিলে চোখের সামনে মেয়েকে মৃত্যুর দিকে যেতে দেখে পাগল হয়ে ছুটছেন এখানে ওখানে। নিজের সন্তান চোখের সামনে এভাবে মৃত্যু বরন করবে এ যেন মেনে নিতে পারছেন না তিনি। আর তাই এলাকার কয়েকজনের কাছে খোঁজ নিয়েছেন কোথায় কিডনি বিক্রি করা যায়। তিনি শুনেছেন, কিডনি বিক্রি করলে নাকি অনেক টাকা পাওয়া যায়। নিজের তো বয়স হয়েছে আর কত দিনই বা বাঁচবেন নিজে। তাই নিজের কিডনি দুটো বিক্রি করে তার জীবনের বিনিময়ে হলেও অপারেশন করিয়ে মেয়েকে বাঁচাতে চান তিনি। অভাবের সংসার এতো টাকা কই পাবেন নয়তো কে দেবে। আত্মীয় স্বজন পরিচিতদের কার কাছে হাত পাতেন নি তিনি। বিগত দিনে অনেকে সাহায্য ও করেছে কিছু কিছু করে। অন্যের বাড়িতে কাজ করেও মেয়ের অসুধ কিনেছেন তিনি। একসাথে এতো টাকা কোনদিন দেখেও নি কে দেবে এতো টাকা, কোথায় পাবে? তাই বলে নিজের আদরের সবার ছোট মেয়েটাকে তো আর বিনাচিকিৎসায় চোখের সামনে মরতে দিতে পারেন না। সিদ্ধান্ত নিয়েছেন নিজের কিডনি বিক্রি করেই টাকা জোগার করবেন মেয়ের অপারেশনের।

নিমসার মাধবপুর এলাকায় আমার কাছের এক বড় ভাইয়ের স্ত্রী বিষয়টা জানলেন, এক অসহায় দরিদ্র মা তার মেয়ের ব্রেইন টিউমারের অপারেশন ও চিকিৎসার জন্য নিজের কিডনি বিক্রি করতে চাইছেন। কারন মেয়ের অপারেশন করাতে ৮/৯ লাখ টাকা জোগাড় করার মত সামর্থ্য তাদের পরিবারের নেই।

বললেন ভাই তুমি তো সাংবাদিকতা করো অনেকের সাথেই যোগাযোগ আছে যদি কিছু একটা করতে পারো। মেয়ের চিকিৎসার জন্য বৃদ্ধা মা তার কিডনি বিক্রি করতে খরিদদার খুজছে.? আরে কোটি কোটি মানুষের এই দেশে সবাই তো আর গরিব নয়। এমন অনেক মানুষই পৃথিবীতে আছে, যাদের হৃদয় অনেক বড় । এই কোটি মানুষের ভীরে নিশ্চই এমন অনেক মানুষ রয়েছে যাদের কয়েকজন একটু সহানুভূতি সামান্য সহায়তায় বেঁচে যাবে একটি হাসিনার জীবন। অসহায় এক মায়ের দোয়ার বিনিময়ে হয়তো বা পরপারে শান্তির টিকিট টাও পেয়ে যাবেন। হাসিনার অপারেশন ও হবে সে আবার হাসবে ফিরে পাবে নতুন জীবন। বুক ভারা আশা দিয়ে এসেছি অসহায় সেই অসুস্থ বিনা চিকিৎসায় মরতে বসা বোন টাকে চিন্তা করো না বোন খুব তাড়াতাড়ি তোমার অপারেশন হবে তুমি সুস্থ হয়ে উঠবে সুন্দর নতুন জীবন সুখের সংসার হবে তোমারো। ” আর এসব বলেছি এই সাহস বুকে নিয়ে, বিগত দিনে আপনাদের সাড়া পেয়েছি বলে। কারন আমিতো জানি যে সেই বৃহৎ হৃদয়ের মানুষগুলোর অনেকেই রয়েছেন দেশে এবং প্রবাসে আমার ফেসবুক বন্ধুদের তালিকায়।। আসুন না আরেক বার এগিয়ে এক অসহায় মায়ের সাহারা জোগাতে, সকলে বাড়িয়ে দেই মানবতার হাত। আপনার আমার আমাদের সকলের ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র ত্যাগ সামান্য একটু সহায়তা আবার হেসে উঠুক নতুন উদ্যমে জীবনে সব স্বপ্ন ভুলে বেঁচে থাকার থাকার আকুতি জানানো হাসিনা আক্তার। সুস্থ হয়ে আবারো নতুন করে স্বপ্ন দেখুক এটাই কেবল প্রত্যাশা। জাগ্রত হোক মানবতা প্রতিটি মানুষের অন্তরে অন্তরে। জয় হোক মানবতার।

সাহায্যের ঠিকানা ঃ
মন্জুয়ারা বেগম (বড় বোন) হিসাব নং – ৩৪১১১৬৪৬ অগ্রণী ব্যাংক, নিমসার শাখা, বুড়িচং কুমিল্লা ০১৬৪৩০৯১৯২১

আর পড়তে পারেন