মঙ্গলবার, ২০শে আগস্ট, ২০১৯ ইং

জনগণ আমাদের পাশে আছে, সুষ্ঠু নির্বাচন হলে জয় সুনিশ্চিত: আনোয়ারুল আজিম

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
ডিসেম্বর ১৭, ২০১৮
news-image

 

শাহ ইমরানঃ
কুমিল্লা ৯ (লাকসাম-মনোহরগন্জ) আসনে ধানের শীষের প্রার্থী  সাবেক সাংসদ ও বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির কুমিল্লা বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক কর্ণেল (অব:) এম আনোয়ারুল আজিম সোমবার নির্বাচনী এলাকায় সাধারণ ভোটারদের সাথে গনসংযোগ করেন। এই সময় সাধারণ ভোটারদের মাঝে বেশ সাড়া পড়ে।

এই সময় তিনি বলেন,সাধারণ ভোটারদের উপর আস্থা রাখুন। তারা সঠিক রায় দিবেন। বিএনপি দলীয় ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী তালিকা গনমাধ্যমে প্রকাশের পর লাকসাম-মনোহরগন্জে বিএনপির তৃণমূল নেতা কর্মীদের উচ্ছ্বাস উদ্দীপনা দেখা দিয়েছে।

এ আসনে ২০০১ সালের অষ্টম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপি থেকে নির্বাচিত হন কর্ণেল (অব:) এম আনোয়ারুল আজিম। ২০০৮ সালের নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে দলীয় কোন্দলের কারনে আনোয়ারুল আজিমকে মাত্র ৪৫৮ ভোটের ব্যবধানে পরাজিত করে বর্তমান ক্ষমতাসীন দল আওয়ামীলীগ।  এরপর ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারী দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশ গ্রহণ করেনি বিএনপি।

কর্ণেল (অব:) এম আনোয়ারুল আজিম দৈনিক আজকের কুমিল্লাকে বলেন, প্রথমে পরম আল্লাহর কাছে শুকরিয়া আদায় করছি। বিরাট দায়িত্ব আমার উপর অর্পণ করা হয়েছে। নির্বাচনের মাধ্যমে আমরা আমাদের নেত্রীকে মুক্ত করব। এলাকায় অত্যাচার – অবিচার চলছে। আমার নেতা কর্মীদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে সরকার দলীয় লোকজন হুমকি-ধমকি দিচ্ছে। আর নেতা কর্মীদের ঘরে ঘরে গিয়ে বলছে ৩০ই ডিসেম্বরের আগে যাতে তারা বাড়িতে না আসে। জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সিদ্ধান্তে আমরা নির্বাচনে নেমেছি। জনগণ আমাদের পাশে আছে। সুস্স্থ নির্বাচন হলে জয় সুনিশ্চিত। বিজয়ী হলে ন্যায় বিচার ও সুশাসনের মাধ্যমে দেশকে সামনের দিকে এগিয়ে নিয়ে যাব ইনশাআল্লাহ। লাকসাম-মনোহরগন্জ উপজেলার বিএনপির নেতা কর্মীসহ সর্বস্তরের জনগণ আমার বা বিএনপির জন্য ঐক্যবদ্ধ হয়েছে। ৩০ ডিসেম্বর সবাই মিলে ধানের শীষ মার্কায় ভোট দিয়ে আমাকে জয়যুক্ত করবে বলে আশা করছি।

এছাড়া আমি এলাকায় নেতা কর্মীদের সঙ্গে নিয়ে উন্নয়ন করেছি। মাঠে কাজ করেছি। মিটিং মিছিল করেছি, দলকে শক্তিশালী করেছি এবং দলের নেতা কর্মীদের জেল থেকে জামিনে মুক্ত করেছি।

এসময় তিনি অভিযোগ করে বলেন, গত শুক্রবার হাসনাবাদ হয়ে সরসপুরের একটি জানাযার উদ্দেশ্য রওনা দিলে মানরা নামক স্থানে আমার গাড়ির গতিরোধ করে সরকার দলীয় ছেলেরা। এসময় তারা নিজেদের ছাত্রলীগ বলে পরিচয় দেয় এবং বলে উপরের নির্দেশ আছে যাতে আপনাকে মাঠে নামতে না দেওয়া হয়।  এই হলো আমার নির্বাচনী এলাকার অবস্থা। তাই ৩০ তারিখ সবাইকে কেন্দ্রে আসতে হবে। কেন্দ্র পাহারা দিতে হবে যাতে করে কেউ ভোট চুরি করতে না পারে।

আর পড়তে পারেন