শনিবার, ২৪শে আগস্ট, ২০১৯ ইং

মুরাদনগরে বিএনপি প্রার্থীর নথি গায়েব করে মনোনয়ন বাতিলের অভিযোগ

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
ডিসেম্বর ২, ২০১৮
news-image

 

স্টাফ রিপোর্টারঃ
কুমিল্লার মুরাদনগরে বিএনপি মনোনিত এক প্রার্থীর নথি গায়েব করে মনোনয়ন বাতিলের অভিযোগ ওঠেছে।ভুক্তভোগী ওই প্রার্থীর নাম কেএম মুজিবুল হক। তিনি কুমিল্লা-৩ (মুরাদনগর) আসনে বিএনপি মনোনিত প্রার্থী।

রোববার প্রার্থীদের মনোনয়নপত্র যাচাই বাছাইকালে আয়কর সনদ না থাকার অভিযোগে ওই প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বাতিল করেন রিটার্নিং কর্মকর্তা ও জেলা প্রশাসক মো. আবুল ফজল মীর।

এ সময় বিএনপির ওই প্রার্থী কেএম মুজিবুল হক ক্ষোভ ও বিস্ময় প্রকাশ করে অভিযোগ করেন মনোনয়নপত্র দাখিলের সময় আয়কর সনদসহ যাবতীয় সকল কাগজপত্র দাখিল করা হলেও পরিকল্পিতভাবে তা গায়েব করার মাধ্যমে তার মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে।

অভিযোগে জানা গেছে, কুমিল্লা-৩ মুরাদনগর সংসদীয় আসনে বিএনপি দলীয় প্রার্থী কেএম মুজিবুল হক গত ২৮ নভেম্বর জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তা ও জেলা প্রশাসকের নিকট আয়কর সনদসহ সব প্রকার বৈধ কাগজপত্র সংযুক্ত করে মনোনয়নপত্র দাখিল করেন। মনোনয়নপত্র দাখিলের সময় ওই প্রার্থীর কর্মী-সমর্থকরা কাগজপত্র গায়েব করার আশঙ্কায় সব কাগজপত্রের স্থিরচিত্র এবং ভিডিও ফুটেজ ধারণ করে রাখে রাখেন।

এছাড়াও এ সময় মনোনয়নপত্র জমাদান গ্রহণের কপিও দেয়া হয়। সব কাগজপত্র সঠিকভাবে জমা দেয়া হলেও পরে রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয় থেকে আয়কর সংক্রান্ত কাগজপত্র গায়েব করে দেয়ার অভিযোগ উঠেছে।

রোববার যাচাই বাছাইকালে কেএম মুজিবুল হকের ফাইলে আয়কর সংক্রান্ত একটি কাগজ নেই এমন অভিযোগে রিটার্নিং কর্মকর্তা তার মনোনয়নপত্র বাতিল করেন।

এ সময় কেএম মুজিবুল হক অভিযোগ করেন, ২০১৮-১৯ অর্থ বছরের টেক্স ক্লিয়ারেন্স সার্টিফিকেট, সম্পদের বিবরণসহ সব কিছুই হলফনামায় দেয়া হয়েছে। কাগজপত্র সঠিকভাবে দাখিল ও গ্রহণসহ সব কপি আমাদের কাছে সংরক্ষন করা আছে। ষড়যন্ত্র করে আমার ফাইল থেকে আইটেন-বি নামক আয়করের একটি কাগজ গায়ের করে দেয়া হয়েছে। তিনি এ ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের বিচার দাবি করেন।

এ বিষয়ে রিটার্নিং কর্মকর্তা ও জেলা প্রশাসক মো. আবুল ফজল মীর জানান, যেসব প্রার্থীর মনোনয়নপত্রের সঙ্গে বিধি মোতাবেক তথ্য ও কাগজপত্রের সমস্যা আছে তাদেরই মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে। এতে ইচ্ছেকৃতভাবে কারও কাগজপত্র সরিয়ে ফেলার বিষয়টি সঠিক নয়। কোনো প্রার্থী ইচ্ছে করলে নির্বাচনে কমিশনে এ বিষয়ে আপিল করতে পারবেন।

আর পড়তে পারেন