বুধবার, ১৯শে জুন, ২০১৯ ইং

চান্দিনায় আওয়ামীলীগ ও এলডিপির নেতা-কর্মীদের মধ্যে কয়েক দফা সংঘর্ষে আহত ৭; গ্রেফতার ১

আজকের কুমিল্লা ডট কম :
নভেম্বর ১৮, ২০১৮
news-image

মো. শরীফুল ইসলাম, চান্দিনা ঃ
চান্দিনায় আওয়ামীলীগ ও এলডিপি’র নেতা-কর্মীদের মধ্যে দফায় দফায় সংঘর্ষে উভয় পক্ষের অন্তত ৭ জন আহত হয়।

রবিবার (১৮ নভেম্বর) সকাল ও শনিবার (১৭ নভেম্বর) বিকাল পৌঁনে ৫টায় উপজেলার মহিচাইল বাজার এলাকায় কয়েক দফা  সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

পৃথক সংঘর্ষের ঘটনায় আহতরা হলেন- হরিনা গ্রামের মৃত কফিল উদ্দিন মাস্টার এর ছেলে মাইজখার ইউনিয়ন এলডিপি’র সদস্য মজিবুর রহমান (৫৫) এবং গণতান্ত্রিক যুবদল মাইজখার ইউনিয়ন শাখার সদস্য মাহবুবুর রহমান (৪৭), মহিচাইল ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ নেতা আব্দুল হক আব্দুল্লাহ (৫৫), একই গ্রামের আবদু মিয়ার ছেলে ছাত্রলীগ নেতা ওসমান গণি (২০), মোখলেছ মিয়ার ছেলে গণতান্ত্রিক ছাত্রদল নেতা রিফাত (২০)। তাদেরকে চান্দিনা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

এদিকে শনিবার রাতের সংঘর্ষের ঘটনায় আহত আব্দুল হক আব্দুল্লাহ’র ছেলে ইউসুফ বাদি হয়ে চান্দিনা থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।

জানা যায়, আওয়ামীলীগ নেতাকর্মীরা কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামীলীগ সহ-সভাপতি ডা. প্রাণ গোপাল দত্তের অনুসারী এবং এলডিপি নেতাকর্মীরা দলটির মহাসচিব সাবেক প্রতিমন্ত্রী ড. রেদোয়ান আহমেদ এর অনুসারী।

চান্দিনা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আবুল ফয়সল রোববার সকালে মুঠোফোনে জানান, আজকের সংঘর্ষের খবর জানি না। তবে, মহিচাইল বাজারে উত্তেজনা বিরাজ করছে খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠিয়েছি। তিনি আরও জানান, শনিবার সন্ধ্যার সংঘর্ষের ঘটনায় রাতেই মহিচাইল গ্রামের মৃত- আনু মিয়ার ছেলে মো. জসিম উদ্দিন (৪৪) নামে এক জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

আওয়ামীলীগ নেতা ও কুমিল্লা জেলা পরিষদ সদস্য জাহাঙ্গীর আলম জানান, রাজধানীর পল্টনে পুলিশের উপর হামলার ঘটনার প্রতিবাদে শনিবার (১৭ নভেম্বর) বিকাল ৪টায় মহিচাইল উচ্চ বিদ্যালয় প্রাঙ্গণ থেকে একটি প্রতিবাদ মিছিল বের করে ইউনিয়ন ছাত্রলীগ নেতা-কর্মীরা। মিছিল শেষে নেতা-কর্মীরা বাড়ি ফেরার পথে মহিচাইল হরিণা গ্রামের মধু মিয়ার ছেলে মাদক ব্যবসায়ী বিল্লাল ও মহিচাইল গ্রামের মোখলেছ এর ছেলে রিফাত এর সাথে ঝগড়া ও মারামারি হয়।

তার কিছুক্ষণ পর আমাদের নেতা-কর্মীরা বাজার থেকে বাড়ি ফেরার সময় ছাতাড্ডা গ্রামের রাস্তার মাথায় এলডিপি’র লোকজন তাদের উপর অতর্কিত হামলা করে। এতে আব্দুল হক আব্দুল্লাহ ও ওসমান গণি মারাত্মক আহত হয়। তাদেরকে চান্দিনা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে পরে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

জাহাঙ্গীর আলম আরও জানান, বিল্লাল আমাদের দলের কোন নেতা বা কর্মী নয়। তার সাথে ঝগড়া ও মারামারির পর আমাদের লোকজনদের উপর কেন অতর্কিত হামলা করা হয়েছে ? আমরা এমন হামলার তীব্র প্রতিবাদ ও নিন্দা জানাই এবং হামলাকারীদের দ্রুত আইনের আওতায় আনতে প্রশাসনের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।

এলডিপি মহাসচিব ড. রেদোয়ান আহমেদ এর ভাগিনা গণতান্ত্রিক ছাত্রদল আহবায়ক রাজিব ভূইয়া জানান, মহিচাইল-ছাতাড্ডা রোডের পাকা রাস্তার সংস্কার কাজ করার সময় মহিচাইল হরিনা গ্রামের মধু মিয়ার ছেলে বিল্লাল ও আলম মজুমদারের ছেলে রাজু মজুমদার ঠিকাদারের কাছে চাঁদা চেয়েছিল। ওই ঘটনায় মহিচাইলের লোকজনের সাথে রিফাতও চাঁদাবাজ বিল্লালকে আটক করে মারধর করে। ওই ঘটনার পর থেকে বিল্লাল ও রাজু ক্ষুদ্ধ হয় রিফাতের উপর। শনিবার ছাত্রলীগের বিক্ষোভ মিছিলের পর রিফাতকে একা পেয়ে বিল্লাল ও রাজু মারধর করে এবং রিফাতকে চাপাতি দিয়ে কুপিয়ে আহত করে। পরবর্তীতে ওই সন্ত্রাসী হামলার প্রতিবাদে রিফাতের লোকজন ক্ষিপ্ত হলে ওই ঘটনা ঘটে।

শনিবারের ঘটনার জের ধরে রবিবার সকাল ৮টায় আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীরা মহিচাইল বাজারে ড. রেদোয়ান আহমেদ এর মালিকানাধীন একটি মার্কেটে হামলা চালিয়ে দোকান ভাংচুর ও দুই নেতাকে মারধর করে।

 

আর পড়তে পারেন